শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:১৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর

মুক্তিযুদ্ধে জগন্নাথপুর- অমিত দেব

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৬ মার্চ, ২০১৫
  • ১৬৭ Time View

মুক্তিযুদ্ধে জগন্নাথপুর-অমিত দেব::রাজা বিজয় সিংহের স্মৃতি বিজড়ীত জগন্নাথপুর উপজেলা এক প্রাচীন জনপথ। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনসহ বিভিন্ন সময় সংঘটিত সকল আন্দোলন সংগ্রামে জগন্নাথপুরবাসী ছিল অগ্রভাগে।একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় ও জগন্নাথপুরের জনতা অগ্রভাগে থেকে অবিস্মরনীয় ভূমিকা পালন করছেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এক কালজয়ী অবস্মরনীয় ঘটনা। অঞ্চলভেদে মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ের ঘটনা সমূহ আজো বাংলার ইতিহাসে চীরঞ্জিব হয়ে আছে। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে সারাদেশের ন্যায় সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলা এক অন্যতম ইতিহাস বহুল উপজেলা হিসেবে স্বীকৃত। বৃহত্তর সিলেট বিভাগের মধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলায় ঘটেছে দু- দুটো মর্মস্পশী গণহত্যা। সুনামগঞ্জ জেলার উত্তর পূর্ব এবং উত্তর পশ্চিম সীমান্ত জুড়েই প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের অবস্থান। মেঘালয়ের পাদদেশে অবস্থিত সুনামগঞ্জ জেলার সকল উপজেলা হাওর বাওড় খাল বিল ও জলাশয়ে ভরপুর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ছিল। পাকবাহিনী নৌকাযোগে এ উপজেলায় আসে। ইতিহাস মতে, জগন্নাথপুরে পাক বাহিনীর দোসর শান্তি কমিটি গঠন নিয়ে তুমুল প্রতিদ্বন্ধিতা হয়। মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে মুসলিমলীগ জগন্নাথপুর থানা কমিটির সভাপতি ছিলেন, উপজেলার চিলাউড়া -হলদিপুর ইউনিয়নের হলদিপুর গ্রামের আব্দুস সোহান চৌধুরী ওরফে ছোবা মিয়া। প্রথমে তিনি এ উপজেলায় শান্তি কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেন। সে সময় জগন্নাথপুর থানার ওসিকে নিয়ে পাকবাহীনির মেজরের সাথে দেখা করে তার পরামর্শে শান্তি কমিটি গঠন করে তিনি শান্তি কমিটির কনভেনার হন। তাছাড়া তার ছেলে আব্দুল হান্নান চৌধুরী সুফি মিয়া ও মেয়ের জামাই সফিক চৌধুরী ও শম্বুর ফজলুর রহমান চৌধুরী,ভাগনা মানিক মিয়াকে সদস্য করে পাকবাহিনীকে জগন্নাথপুরে আসার আহ্বান জানান। এতে বাধ সাধেন জগন্নাথপুরের হবিবপুর গ্রামের আছাব আলী ও ইকড়ছই গ্রামের মোস্তফা। তারা শান্তি কমিটির কনভেনার হতে লবিং শুরু করেন। আছাব আলী পাক মেজরকে বুঝিয়ে নিজেই শান্তি কমিটির কনভেনারের দায়িত্ব নেন। পরবর্তীতে আছাব আলী ও আব্দুস সোবহান চৌধুরী ছোবা মিয়া সিলেটে গিয়ে পাক মেজরের সাথে বৈঠক করে পাকসেনাদের জগন্নাথপুরে নিয়ে আসতে রাজি করান। ২৭ আগষ্ট শুক্রবার ভোরে প্রায় ৫ শতাধিক পাকসেনা স্থানীয় রাজাকারদের নিয়ে জগন্নাথপুরে আসে। এবং হবিবপুর গ্রামের রাজাকার এহিয়ার বাড়িতে উঠে। সেখানে রাজাকারদের নিয়ে বৈঠক করে জগন্নাথপুর থানা আক্রমনের পরিকল্পনা করে। পরদিন সকালে পাকিস্তান জিন্দাবাদ,এহিয়া খান জিন্দাবাদ ও শেখ মুজিব মুর্দাবাদ ধ্বনি দিয়ে ফাঁকাগুলি বর্ষন করে আতংক সৃষ্টি করে জগন্নাথপুর প্রবেশ করে। অবস্থা বেগতিক দেখে স্থানীয় মুক্তিবাহীনির সদস্যরা বিনা বাধায় মুক্তাঞ্চল হিসেবে থাকা জগন্নাথপুর উপজেলাকে তাদের দখলে নিয়ে যায়। ওই দিনই পাকবাহিনীর সহযোগীতায় রাজাকাররা মির্জাবাড়ীসহ জগন্নাথপুরের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাসা বাড়ীতে লুটপাট চালায়। এমনকি লুটপাটের মালামাল প্রকাশ্য নিলাম ডেকে বিক্রি করে পাকবাহিনীর হাতে তুলে দেয়। পরদিন আবারও পাকবাহিনী মির্জাবাড়ীতে হামলা চালিয়ে ৫টি ঘর দরজা ভাংচুর করে। এবং মির্জাবাড়ীতে পাকবাহিনীর ক্যাম্প স্থাপন করা হয়। সেখানে স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় লোকজনদের ধরে এনে নির্যাতন করতো। উপজেলার মজিদপুর গ্রামের বিপুল চন্দ্র দেবকে মির্জা বাড়িতে এনে আটক রাখা হয়। পরে পাকবাহিনীর দোসর আছাব আলীর অনুরোধে তাকে ছেড়ে দেয় পাকবাহিনী। এসময় পাকবাহিনীর দালাল আব্দুস ছোবহান চৌধুরী ছুবা মিয়া পাক বাহিনী এবং তার সহযোগী দালালদের তার বাড়িতে খাওয়ার নিমন্ত্রন করেন। সেই খাবারের জন্য ভবানীপুর গ্রামের অতুল দেবসহ আশপাশ গ্রামের কয়েকটি হিন্দু বাড়ি থেকে জোর পূর্বক খাসি ধরে নিয়ে জবাই করে ভোজের আয়োজন করেন। ব্যাপক উৎসবের মাধ্যমে ভোজসভা করে তার ছেলে সুফি মিয়াকে কনভেনার করে হলদিপুর ইউনিয়ন শান্তি কমিটি গঠন করেন। এর পরপরই সুফি মিয়ার লোকজন বেতাউকা গ্রামের অবনী চৌধুরীর বাড়ীতে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করে ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেয়। নিরুপায় হয়ে অবনী চৌধুরীর পরিবার ভারতে চলে যান। এ সুযোগে সুফি মিয়া অবনী চৌধুরীর স্থাবর অস্থাবর সম্পতি নিলামে বিক্রি করে কিছু মালামাল তার বাড়ীতে নিয়ে আসেন। পরবর্তীতে ছুবা মিয়া ও তার ছেলে সুফি মিয়ার প্ররোচারায় তাদের সহযোগীরা যাত্রাপাশা গ্রামের ডাক্তার সুধীর গোপ, রাধাকান্ত গোপ,মহেন্দ্র গোপ, গিরিন্দ্র গোপের বাড়িতে গিয়ে হামলা ও লুটপাট চালায়। এছাড়াও বাবা ছুবা মিয়া ও ছেলে সুফি মিয়া মিলে দাস নোওয়াগাঁও,বেরী সালদিঘা,চিলাউড়া গ্রামে হামলা লুটপাট চালিয়ে গরু ছাগল ও মালামাল লুট করে নিলামে বিক্রি করেন। এসময় চিলাউড়া গ্রামের পান্ডব চন্দ্র দাসের কাছ থেকে পাঞ্জাবির ভয় দেখিয়ে ৫০০ টাকা জোরপূর্বক আদায় করেন। (যা ১৯৭২ সালের ১৯ এপ্রিল বিন্দু বিন্দু রক্ত পত্রিকায় প্রকাশিত হয়)
এউপজেলার কৃতি সন্তান প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদ ও আব্দুর রইছ ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। আব্দুস সামাদ আজাদ মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে দেশে বিদেশে অসমান্য অবদান রেখেছেন। আর আব্দুর রইছ এর প্রচেষ্ঠায় গঠিত হয় সংগ্রাম কমিটি। উক্ত কমিটিতে আব্দুর রইছ এমপি সভাপতি সুধীর চন্দ্র গোপ সহ-সভাপতি হারুণ রশিদ সাধারণ সম্পাদক, সৈয়দ ফখরুল ইসলাম সৈয়দ খালিক মিয়া,বুলবুল আহমদ,বশির মিয়া, জব্বার মিয়া ও নুরুল ইসলামকে সদস্য রাখা হয়। এছাড়াও বিশেষ ভূমিকা রাখেন সৈয়দ আব্দুল হান্নান, সৈয়দ আতাউর রহমান, আবুল বাশার চৌধুরী ব্যারিষ্টার আব্দুল মতিন,ব্রজেন্দ্র কিশোর চৌধুরী,শিশির চৌধুরী অন্যতম। ১১ নভেম্বর মীরপুরে সন্মুখযুদ্ধের মাধ্যমে জগন্নাথপুর শক্রমুক্ত হয়। ওইদিন ভোরবেলা পাকবাহিনী প্রস্তুতি নেয়ার আগেই দুইদিক থেকে মুক্তিযোদ্ধারা আক্রমন চালালে পাকসেনারা পিছু হটতে থাকে। এসময় পাকসেনাদের এলোপাতারি গুলিতে মনফর উল্যা নামে একজন কৃষক মারা যান। পরে তাদেরকে আত্মসর্মপনের আহ্বান জানালে অর্ধ শতাধিক রাজাকারসহ এক পাক দারোগা আত্মসর্মপন করেন। পরবর্তীতে মুক্তিযোদ্ধারা উপজেলার সর্বত্র পাহারা বসান যাতে আর পাকবাহিনী জগন্নাথপুরে ঢুকতে না পারে। দেশ স্বাধীনের পর পর মুক্তিযোদ্ধারা স্থানীয় রাজাকারকে ধরে এনে উপজেলা পরিষদে তৎকালীন নির্মিত খোয়াড়ে রাজাকারদের রাখেন। পরে কিছু লোকের সুপারিশে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। ১ে৯৮৭ সালে জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবু খালেদ চৌধুরীর প্রচেষ্ঠায় শ্রীরামসি ও রানীগঞ্জে দুটি স্মৃতিসৌধতৈরী করা হয়। এতে শহীদ ও আহত মুক্তিযোদ্ধাদের নাম স্থান পায়। ২০১০ সালে জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদের প্রস্তাবে এ দুটি স্মৃতিসৌধে ৩১ আগষ্ট শ্রীরামসি ও ১ সেম্পেম্বর রানীগঞ্জে উপজেলা পরিষদের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদনের সিদ্ধান্ত নেন। যা আজো চলমান আছে। জগন্নাথপুর উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের তালিকা অনুযায়ী এ উপজেলায় ৬ জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা, ১৩জন যোদ্ধাহতসহ ১৪৮জন মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধে জগন্নাথপুরবাসীর অবদান চীর অম্লান হয়ে আছে ইতিহাসে। লেখক- সম্পাদক জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ও মুক্তিযুদ্ধের জ্ঞানকোষ প্রনয়ন কাজের তথ্য সংগ্রাহক ও গবেষক।
তথ্যসূত্র- রক্তাক্ত ৭১ বজলুল মজিদ খসরু সম্পাদক বিন্দু বিন্দু রক্ত গোলাম রব্বানী,সিলেটে গণহত্যা তাজুল মোহাম্মদ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24