মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু

মুসলিম বলে বাসা ভাড়া মিলছে না রেজাউলের!

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৬ জুন, ২০১৭
  • ৫৫ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: বাসা নেবেন। পেশা, ভাড়ার পরিমাণ নিয়ে কথাবার্তা। এরপর পরিচয় জেনে নেয়া। সবকিছু ঠিক, তবে একটা জায়গায় এসে গোলমাল বেঁধে যাচ্ছে। নামটা শুনেই মুখের ওপর ‘না’ করে দিচ্ছেন বাড়ির মালিক।
রেজাউল করিমের জন্ম, শৈশব এবং বেড়ে ওঠা ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে। স্কুল, মেডিকেল কলেজ, চিকিৎসক হিসেবে পেশা জীবন- তা-ও এখানেই। তবু মাথা গোঁজার জন্য কলকাতা শহরে তিনি ভাড়ায় বাসা পাচ্ছেন না। কারণ, তিনি সংখ্যালঘু!
নিজের অসহায় অবস্থার কথা জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর দফতর এবং রাজ্য মানবাধিকার কমিশনে চিঠি দিয়েছেন ওই সরকারি চিকিৎসক। খবর আনন্দবাজার’র।
কলকাতার একটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওই শিক্ষকের অভিযোগ, ‘ভাড়ায় ঘর চাই শুনে শুরুতে কোনো বাড়ির মালিকই আপত্তি করেননি। কিন্তু পরে নামটা শুনেই মুখ ফিরিয়ে নেন তাদের প্রত্যেকেই!’
তার আক্ষেপ, ‘যেখানেই যাই, প্রাথমিক কথাবার্তায় সকলেই সন্তুষ্ট হন। তার পরে যেই আমার নাম শোনেন, তখনই বলেন- আপাতত বাড়ি ভাড়া দেওয়া সম্ভব নয়। কেউ বা বলেন- পরে খবর দেব। সেই পর অবশ্য আর আসে না।’

ওই চিকিৎসক জানান, দক্ষিণ কলকাতার একটি বাড়িতে তার নাম শোনার পর বাড়ির মালিক বলেন- ‘আমার স্ত্রী বাড়িতে পুজোআর্চা করেন তো। আপনাকে তাই বাড়ি ভাড়া দিতে পারব না।’
রেজাউলের বাড়ি বীরভূমে। কর্মসূত্রে বিভিন্ন জেলায় থেকেছেন। ২০০৩ সাল থেকে কলকাতার হেস্টিংসে সরকারি আবাসনে সপরিবার ভাড়ায় থাকছেন তিনি। অভিযোগ, সেই আবাসনের একাধিক অংশ ভাঙা। বর্ষায় বাসায় পানি পড়ছে। গত ১০ বছরে একাধিকবার সরকারি দফতরে সে-কথা জানিয়েও ফল হয়নি। চলছে টালবাহানা।

তিনি বলেন, ‘এই ফ্ল্যাটটি এখন কার্যত বসবাসের অযোগ্য হয়ে গেছে। তাই স্ত্রী ও দুই মেয়েকে নিয়ে থাকার জন্য ভাড়াবাসা খুঁজছিলাম। কিন্তু ঘর খুঁজতে গিয়ে প্রতি মুহূর্তে অপমান জুটছে। এমনকি আমার নাগরিকত্ব নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন অনেকে।’
উল্লেখ্য, মেটিয়াবুরুজ, খিদিরপুর, রাজাবাজার, পার্ক সার্কাসের মতো কিছু এলাকা বাদ দিলে কলকাতা শহরের অন্যত্র মুসলিমদের বাড়ি ভাড়া পাওয়া নিয়ে সমস্যা দীর্ঘকাল ধরে চলে আসছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24