সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:৫৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু লজ্জা শুধু নারীরই নয়, পুরুষেরও ভূষণ জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস আজ

মৃত্যুপথযাত্রী শিশুর বিয়ে!

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৪ জুন, ২০১৭
  • ৩৭ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: ক্যান্সার আক্রান্ত পাঁচ বছরের এইলেড প্যাটারসনের জন্য এটা ছিল রূপকথার রাজপুত্র ও রাজকন্যার বিয়ের মতো। জীবনের মর্ম বুঝে ওঠার আগেই মৃত্যুর জন্য প্রহর গোনা শুরু হয়ে গিয়েছে তার।

দুরারোগ্য ক্যান্সারে (নিউরোব্লাস্টোমা) আক্রান্ত সে। মাথার সব চুল ঝরে গিয়েছে কর্কট রোগের কোপে। আয়নার সামনে দাঁড়ালে ভয়ে, দুঃখে কাঁদতে শুরু করে ছোট্ট মেয়েটা। মৃত্যুর দিকে দ্রুত এগোচ্ছে সে। কিন্তু চিকিৎসার কষ্ট, মৃত্যুর ভয়ও তার মনের জোরকে, তার ভালোবাসাকে তার থেকে কেড়ে নিতে পারেনি।

বিয়ের মর্ম সে বোঝেনি। তবু নিজের প্রিয় বন্ধুকে বিয়ে করার ইচ্ছে ছিল ছোট্ট মেয়েটির। দুই পরিবারের সম্মতিতে নিজের সবচেয়ে প্রিয় বন্ধু ছয় বছরের হ্যারিসন গ্রিয়ারের সঙ্গে বিয়ে হয়েছে এইলেড প্যাটারসনের। মর্মস্পর্শী স্কটল্যান্ডের এ ঘটনাটি জানিয়েছে ইয়াহু নিউজ।

হাসিখুশি একরত্তি মেয়েকে তিলে তিলে প্রতিদিন ফুরিয়ে যেতে দেখছেন প্যাটারসন পরিবার। এইলেডকে বাঁচাতে চেষ্টার ত্রুটি করেনি গ্রিয়ার পরিবারও। দুই পরিবারই বিভিন্ন অসহায় চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিল ক্যান্সারের কষ্ট ভুলিয়ে মেয়েটির মুখে হাসি ফোটাতে।

এ অবস্থায় এইলেড নিজেই যখন প্রিয় বন্ধু হ্যারিসনকে বিয়ে করার আবদার করে বসল, তখন একটুও না ভেবে তাতে সম্মতি দিল দুই পরিবার। শুধু সম্মতি কেন, এইলেডের এই ইচ্ছেকে তার ছোট্ট জীবনের স্মরণীয়তম মুহূর্ত করে রাখতে তোড়জোর শুরু করে দেয় দুই পরিবার।

গত রোববার এইলেড-হ্যারিসনের বিয়ে উপলক্ষে একত্রিত হলেন দুই পরিবারের সদস্যরা। এর আগে কখনও কোনো বিয়ের অনুষ্ঠানে যায়নি হ্যারিসন। তাই সন্ধ্যার প্রতিটি মুহূর্ত, প্রতিটি আয়োজনই ছিল তার কাছে একেকটা চমক। আর ছোট্ট এইলেড তো বেজায় খুশি তার প্রিয় বন্ধুকে পাশে পেয়ে।

গোলাপি ফ্রকে ছোট্ট পরীর মতো এইলেডকে ঘিরে উৎসবে মেতেছিলেন উপস্থিত সবাই। এইলেডের মা গেইল প্যাটারসন শোনান এইলেডের ছোট জীবনের নানা গল্প।

ছোট্ট মেয়েটির ইচ্ছে পূরণের জন্য এত আয়োজন। অথচ যাকে ছাড়া এই গোটা আয়োজনই সম্ভব হতো না, সেই হ্যারিসন কি জানে সে কেন আজ এই অনুষ্ঠানে এসেছে! কেন তাকে আর তার বন্ধুকে ঘিরে এত আয়োজন!

হ্যারিসনের বাবা বলেন ‘আমার মনে হয় ও বুঝতে পেরেছে। কারণ এই মুহূর্তে হ্যারিসনও ওর বন্ধুর খুশির জন্য সবকিছু করতে প্রস্তুত।’

শুধু হ্যারিসনই নয় দুটি পরিবারের সবাই চাইছেন এইলেডের শেষের দিনগুলো ভালো কাটুক, আনন্দে, ভালোবাসায় ভরে উঠুক। কারণ, ভালোবাসাই সব ভয়, কষ্ট ভুলিয়ে মানুষকে বাঁচতে শেখায়। লড়তে শেখায় মৃত্যুর বিরুদ্ধেও।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24