বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:০০ পূর্বাহ্ন

যুক্তরাজ্যে তেরেসা মে নের্তৃত্বে নতুন মন্ত্রীসভা- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অভিনন্দন

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৬ জুলাই, ২০১৬
  • ৭৫ Time View

আমিনুল হক ওয়েছ:: যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর তেরেসা মে নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের নিয়োগ দেয়া শুরু করেছেন। মার্গারেট থ্যাচারের পর ব্রিটেনের ইতিহাসে দ্বিতীয় কোনো নারী প্রধানমন্ত্রী তিনি। খবর বিবিসির।

নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর তেরেসা মে জানান, শুধু গুটিকয়েক সুবিধাভোগীর জন্য তিনি কাজ করবেন না বরং ধনী-গরিবের মধ্যে তফাত ঘোচাতে কাজ করবেন। তবে নতুন মন্ত্রিসভার কয়েকজন সদস্যের নাম ঘোষণার পর লন্ডনের সাবেক মেয়র বরিস জনসনের নিয়োগে অনেকেই বিস্মিত হয়েছেন।

ব্রিটেনের ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছাড়ার পক্ষের ক্যাম্পেইনার লন্ডনের সাবেক মেয়র বরিস জনসন নিয়োগ পেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদ পেয়েছেন আম্বার রাড। ডেভিড ক্যামেরনের জ্বালানিমন্ত্রী রাড অবশ্য ব্রিটেনের ইইউতে থাকার পক্ষে ছিলেন। প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন মিচাইল ফ্যালন। তিনি ২০১৪ সাল থেকেই এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি কনজারভেটিভ দলের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন। ইইউ থেকে বেরিয়ে আসার পর নানান দেন-দরবার করার জন্য তেরেসা মে নিয়োগ দিয়েছেন আর এক লিভ ক্যাম্পেইনার ডেভিড ডেভিসকে, ব্রেক্সিট মন্ত্রী হিসেবে। এর আগে তিনি কনজারভেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান এবং ছায়া উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। ২০০৩ থেকে ২০০৮ সালের মধ্যে মাইকেল হাওয়ার্ড এবং ডেভিড ক্যামেরন দুই সরকারের অধীনেই ছায়া স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন ডেভিস। অন্যদিকে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফিলিপ হ্যামন্ড পেয়েছেন অর্থমন্ত্রীর পদ। জর্জ অজবোর্নকে মন্ত্রিসভা থেকে বিদায় করে দিয়ে তিনি অনেককেই অবাক করেছেন।

মন্ত্রিপরিষদে স্থান পাননি বিচারমন্ত্রী মাইকেল গোভ। নতুন মন্ত্রিপরিষদ গঠনের সময় তাকে বরখাস্ত করেছেন তেরেসা মে। শিক্ষামন্ত্রী নিকি মরগ্যান এবং সংস্কৃতিমন্ত্রী জন হুইটিংডেলও মন্ত্রিত্ব হারিয়েছেন। এদিকে জেরিমি হান্টও স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদে থাকছেন না। তবে তিনি মন্ত্রিত্ব হারাচ্ছেন না। তাকে নতুন কোনো মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেয়া হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে।

২৩ জুন ঐতিহাসিক এক গণভোটে ব্রিটেন ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত জয়ী হয়। সেদিনই পদত্যাগের ঘোষণা দেন ডেভিড ক্যামেরন। রানী এলিজাবেথ ডেভিড ক্যামেরনের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করার পরপরই তেরেসা মেকে সরকার গঠনে আহ্বান করেন। রানী এলিজাবেথের শাসনামলের ১৩তম প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে।

এদিকে ব্রিটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী মে’কে অভিনন্দন জানিয়েছেন জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেল এবং ফরাসি প্রেসিডেন্ট ফ্রাসোয়া ওলাদ।

তেরেসা মে’কে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা : যুক্তরাজ্যের নতুন প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে’কে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার তাকে পাঠানো এক উষ্ণ বার্তায় শেখ হাসিনা বলেন, একজন নারী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আপনাকে অভিনন্দন জানানো আমার জন্য আরও উৎসাহজনক। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, আপনার সক্ষম এবং গতিশীল নেতৃত্ব আমাদের দুই বন্ধুপ্রতিম দেশের মধ্যে বিদ্যমান চমৎকার সম্পর্কের উদ্যোগ সহযোগিতার নতুন নতুন এলাকা অন্বেষণ করবে, যার ফলে দু’দেশের সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের মধ্যে সম্পর্ক পরিপক্ব, শক্তিশালী এবং স্থায়ী হয়েছে। এটা গণতন্ত্র, স্বাধীনতা ও মানবাধিকার, আইনের শাসন, ধর্মনিরপেক্ষতার পাশাপাশি সাধারণ ও পারস্পরিক লাভজনক স্বার্থের ওপর ভিত্তি করেই হয়েছে। দুই দেশের বন্ধন জোরদার। তেরেসা মে’কে উদ্দেশ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্য, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের শক্তিশালীকরণ প্রবল ক্ষমতায়ন, সন্ত্রাস ও চরমপন্থা প্রতিহতসহ অন্যান্য বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করছে। সামনেও দু’দেশ পরস্পরের বন্ধু হিসেবে বিভিন্ন বৈশ্বিক ইস্যুতে কাজ করবে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা তেরেসা মে’র সুস্বাস্থ্য, দীর্ঘায়ু এবং সুখ-শান্তির পাশাপাশি অগ্রগতি ও গ্রেট ব্রিটেন এবং উত্তর আয়ারল্যান্ডের মানুষের সমৃদ্ধি কামনা করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24