মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ১০:১১ পূর্বাহ্ন

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে আকাশচুম্বী ভবনে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত, আতঙ্ক

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১১ জুন, ২০১৯
  • ৫৬ Time View
নিউ ইয়র্কের ম্যানহ্যাটানে আকাশচুম্বী এএক্সএ ইকুইটেবল ভবনের ছাদে জরুরি অবতরণকালে একটি হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়েছে। এতে তাৎক্ষণিকভাবে ওই ছাদে আগুন ধরে যায়। দ্রুততার সঙ্গে তা নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় হেলিকপ্টারের পাইলট টিম ম্যাকরম্যাক নিহত হয়েছেন। হেলিকপ্টারে তিনি একাই ছিলেন এ সময়। এএক্সএ ইকুইটেবল ভবনটি প্রায় ৭৫০ ফুট বা ২২৯ মিটার উঁচু। এটি কমপক্ষে ৫০ তলাবিশিষ্ট একটি স্কাইস্ক্র্যাপার বা আকাশচুম্বী ভবন। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে নিউ ইয়র্কে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়।

২০০১ সালের ১১ই সেপ্টেম্বরের সেই ভয়াবহ হামলার কথা স্মরণ করেন অনেকে। এএক্সএ ইকুইটেবল ভবনটি টাইমস স্কয়ারের খুব কাছাকাছি। এ কথা বলেছেন নিউ ইয়র্কের গভর্নর অ্যান্ড্রু কুমো। প্রাথমিক তথ্যের ওপর ভিত্তি করে তিনি বলছেন, এক্ষেত্রে কোনো ‘ফাউল’ পাওয়া যায় নি। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি।

গভর্নর কুমো বলেছেন, ম্যানহ্যাটানে এয়ারক্রাফট বিধ্বস্ত হওয়ার খবরে নিউ ইয়র্কারদের মধ্যে সেই ৯/১১-এর আতঙ্ক দেখা দেয়। অগাস্টা এ১০৯ই হেলিকপ্টারটি দুই ইঞ্জিনবিশিষ্ট। ঘটনার সময় এতে শুধু পাইলট একা ছিলেন বলে জানিয়েছে ফেডারেল এভিয়েশন এডমিনিস্ট্রেশন। সোমবার বৃষ্টি ও কুয়াশাচ্ছন্ন আবহাওয়ায় সেভেন্থ এভিনিউয়ে স্থানীয় সময় বিকাল ২টায় ওই ঘটনা ঘটে। গভর্নর কুমো বলেছেন, হেলিকপ্টারটিকে অবতরণ করতে বাধ্য করা হয়েছে, জরুরি অবতরণ করেছে অথবা কোনো কারণে ভবনের ছাদে অবতরণ করে। এটি ছাদ স্পর্শ করার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে আগুন ধরে যায়। ফলে ভবনটির ভিতর থেকে লোকজনকে দ্রুত সরিয়ে আনা হয়। এ সময় ওই ভবনটি দুলছিল। সোমবার এ নিয়ে হোয়াইট হাউজে কথা বলেছেন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। তিনি এই হেলিকপ্টার ধসকে একটি বড় ট্রাজেডি এবং একটি বড় দুঃখজনক ঘটনা বলে আখ্যায়িত করেছেন।

ঘটনাস্থলের নিচে ফুটপাতে কোনো ধ্বংসস্তূপ দেখা যায় নি। এএক্সএ ইকুইটেবল ভবনে কাজ করছিলেন নিউ জার্সির মাইকেলা ডুডলে। তিনি বলেছেন, হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হওয়ার সময় হালকা কম্পন অনুভূত হয়েছিল। অকস্মাৎ সাইরেনের শব্দ শুনতে পাই। তখনই জানতে পারি খারাপ কিছু ঘটে গেছে। ৩০ বছর বয়সী এই আইনজীবী আরো বলেন, বাইরে তখন সাইরেনের পর সাইরেন বাজছিল। আমাদের জন্য ঘোষণা দেয়া হচ্ছিল, ভবন থেকে বেরিয়ে যেতে। আমি ব্যাকপ্যাক এবং মোবাইল ফোন হাতে নিয়ে বেরিয়ে পড়ি। কিন্তু সিঁড়িতে তখন মানুষ আর মানুষ। তারা বেরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন। ফলে তড়িঘড়ি করে বের হওয়ার কোনো উপায় ছিল না। আমরা কেউ তখনো জানতে পারি নি কি হয়েছে। তবে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছিল।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24