মঙ্গলবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৩৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে প্রকাশ্য দিবালোকে গ্রামীণ ফোনের ৫ লাখ টাকা ছিনতাই, জনতার ধাওয়ায় বাইকসহ আটক ১ জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের!

যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে ছাতকের ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৬ অক্টোবর, ২০১৭
  • ২১ Time View

স্টাফ রিপোর্টার
১৯৭১ সালে (১৩৭৮ বাংলা) মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যা, লুটপাটসহ নানা অপরাধের ঘটনায় ছাতকের ১২ জনের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ আইনে মামলা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার আমল গ্রহণকারী জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ছাতক-এ এই মামলা দায়ের করেছেন ছাতকের নোয়ারাই ইউপির রাজারগাঁও গ্রামের শহীদ উস্তার আলীর ছেলে মো. শহীদুল ইসলাম সরু।
আদালত মামলাটি গ্রহণ করে পরবর্তী কার্যক্রমের জন্য আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে পাঠিয়েছেন বলে জানিয়েছেন মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী অরুনাভ দাশ সন্দীপ।
মামলার আসামী করা হয়েছে, নোয়ারাই ইউপির আছদনগর গ্রামের মৃত মফিজ আলীর ছেলে আজিজুল রহমান ও ছাদক আলী, মৃত ওয়াজিদ আলীর ছেলে রমজান আলী, মৃত চান্দ আলীর ছেলে সিরাজ আলী, মৃত মন্তাজ আলীর ছেলে এতিম উল্লাহ, বেতুরা গ্রামের মৃত সিদ্দিক আলীর ছেলে খোয়াজ আলী, মৃত মুজেফর আলীর ছেলে মুসলিম আলী, মৃত মাহমদ আলীর ছেলে ইছবর আলী, মির্জাপুর গ্রামের মৃত মছদ্দর আলীর ছেলে ইলিয়াছ আলী, মৃত রুছমত আলীর ছেলে ছুরত মিয়া, মৃত ইছাক আলীর ছেলে ছুরাব আলী, মৃত হুশিয়ার আলীর ছেলে ওয়ারিছ আলীকে। এছাড়া আরো অজ্ঞাত ২৫-৩০ জনকে অভিযুক্ত
করা হয়েছে।
মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, আসামীরা এলাকার চিহ্নিত খুনি, লুটেরা, প্রভাবশালী ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় আসামীরা সরাসরি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষে অবস্থান করে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর পক্ষে সক্রিয়ভাবে এলাকার বহু নিরীহ লোকজনের ঘর-বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান লুটপাট, অগ্নিসংযোগ করে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোকদের সম্ভ্রমহানি, ধর্ষণ এবং খুন করে লাশ গুম করে।
১৯৭১ সালে (১৩৭৮ বাংলা) ১০ আশ্বিন ও এর পরে আসামীরা স্থানীয় রাজাকার শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান মৃত মতচ্ছির আলী (ফকির) এর বাড়িতে গোপনে বৈঠক করে সরাসরি বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধে অবস্থান করে নোয়ারাই ইউপির রাজারগাঁও গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা উস্তার আলী ও তার ভাইদের বাড়ি-ঘর ভেঙে বিভিন্ন মূল্যবান জিনিসপত্র, নগদ অর্থ ও গবাদিপশু লুটপাট করে স্থানীয় রাজাকার ক্যাম্পে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে রাজারগাঁও গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা সুরুজ আলী, মুক্তিযোদ্ধা আয়াত উল্লাহ, জোড়াপানি গ্রামের নুরুল ইসলাম, গোদাবাড়ি গ্রামের সোনাবান বিবি, মুক্তিযোদ্ধা আজব আলীসহ আরো অনেকের বাড়ি-ঘর ভেঙে বিভিন্ন মূল্যবান জিনিসপত্র, নগদ অর্থ ও গবাদিপশু লুটপাট করে।
এলাকার লোকজন আসামীদের কর্মকান্ডে অতীষ্ট হয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের শরণাপন্ন হয়ে অন্যায় অত্যাচারের প্রতিরোধ চেষ্টা করলে ওই বছরের ২২ আশ্বিন মুক্তিযোদ্ধা উস্তার আলী ও তার বাড়িতে আশ্রয় নেয়া জোড়াপানি গ্রামের আব্দুস ছামাদকে চোখ ও হাত বেঁধে বেতুরা গ্রামের লঞ্চঘাটে নিয়ে যায়। রাজারগাঁও গ্রামের হাজী ফুলজান বিবি, গোদাবাড়ি গ্রামের সোনা বিবির স্বামী সোনা উদ্দিনসহ আরো ৪-৫ জনকে এক সাথে লাইনে দাঁড় করিয়ে ব্রাশ ফায়ার করে হত্যা করে সুরমা নদীতে ভাসিয়ে দেয়। অনেক খোঁজাখুঁিজ করেও স্বজনরা নিহতদের কারো লাশ খোঁজে পায় নি।
মামলায় উল্লেখ করা হয়, ওই ঘটনায় নোয়ারাই ইউপির রাজারগাঁও গ্রামের শহীদ উস্তার আলীর ছেলে মো. শহীদুল ইসলাম সরু ২০১০ সালের ২২ জুলাই সিলেটের ডিআইজির কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। শহীদ হাজী ফুলজান বিবির ছেলে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস শহীদ ২০১০ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি আমল গ্রহণকারী জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ছাতক-এ পৃথক আরেকটি মামলা দায়ের করেছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24