বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:৫৩ পূর্বাহ্ন

যেভাবে কুলি থেকে কোটিপতি হলেন হারুন

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৪১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক :: এমনটা তো কেবল বাংলা সিনেমাতেই দেখা যায়। যেমন রেলস্টেশনের কুলি এক নিমেষে হয়ে গেলেন কোটিপতি। ভারতে কিন্তু বাস্তবেই এমন ঘটনা ঘটেছে। কুলি থেকে কোটিপতি হয়েছেন হারুন মণ্ডল নামের এক ব্যক্তি। তিনি ধনী হয়েছেন নিজের চেষ্টা, একাগ্রতা আর পরিশ্রমের মাধ্যমে। চলুন শুনি তার কথা।

বাস্তব ছোটবেলা থেকে আর্থিক অনটনই ছিল তার নিত্যসঙ্গী। দু’বেলা দু’মুঠো খাবার ছিল দিবাস্বপ্ন। অভাবের তাড়নায় স্কুলের মুখও দেখেননি তিনি। খাবার জোগাড় করতে বেছে নিয়েছিলেন কলকাতার শিয়ালদহ স্টেশনে কুলির কাজ। কিন্তু, মনের অদম্য ইচ্ছার কাছে আর্থিক প্রতিবন্ধকতা যে নেহাৎ তুচ্ছ তা প্রমাণ করে দিয়েছেন বাদুড়িয়ার চণ্ডীপুর গ্রামের হারুন মণ্ডল। স্টেশনের পেশাদার কুলি থেকে আজ তিনি কোটিপতি। স্রেফ মধু ব্যবসা করে এতটা ধনী হয়েছেন তিনি। তার হাত দিয়েই পাঞ্জাব হয়ে পশ্চিমবঙ্গের মধু পাড়ি দিচ্ছে সুদূর আমেরিকা ও জার্মানিতেও।

হারুন মণ্ডলের বর্তমান বয়স ৫২ বছর। একেবারে হতদরিদ্র গরিব পরিবারে জন্মছিলেন তিনি। কাজ করতেন কুলি হিসেবে। কিন্তু, লোকজনের বোঝা টানতে আর ভাল্লাগছিলো না। ভাগ্য বদলাতে পাড়ি জমান পাঞ্জাবে। সেখানেই তার পরিচয় হয় এক মৌপালকের সঙ্গে। সেখানে মৌমাছি পালন শেখেন তিনি। তারপর ফিরে আসেন নিজের গ্রামে। ১৯৮৭ সালে প্রথম শুরু করেন মৌমাছি চাষ। ইতালি থেকে খুঁদে মৌমাছি নিয়ে এসেছিলেন। ১৯৯০ সালে বড় মৌমাছি পালন শুরু করেন। তিনি এলাকার মানুষকেও মৌমাছি পালনে উৎসাহিত করেন। তারাও এই ব্যবসায় যুক্ত হন। বর্তমানে তার অধীনে রয়েছেন দু’হাজার মৌপালক। সারা রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় তাঁরা মধু সংগ্রহে ব্যস্ত।

হারুন বলেন, তার লোকজন নদীয়া, মুর্শিদাবাদ ও বীরভূম জেলায় সরষে ফুলের মধু, কালিয়াচক, ফারাক্কা, জঙ্গিপুরে লিচু ফুলের, বাঁকুড়া ও মেদিনীপুরে ইউক্যালিপটাসের মধু এবং সুন্দরবন এলাকার ডাঙা এলাকায় সোনা, কেওড়া প্রভৃতি ফুলের মধু সংগ্রহ করেন। তবে, বিদেশের বাজারে সরষে ফুলের মধু খুবই জনপ্রিয়। তাই এই সময়টি হারুনদের খুবই ব্যস্ত সময়। তারা পাঞ্জাবের একটি কোম্পানিকে মধু সরবরাহ করেন। ওই কোম্পানিই আমেরিকা ও জার্মানিতে মধু রপ্তানি করে।

মধু ব্যবসায়ী হারুন বলেন, ‘আমরা ১২০-১২৫ টাকা কেজি দরে সরষে ফুলের কাঁচামাল মধু সরবরাহ করি। এছাড়াও সারা দেশে আমাদের মধু সরবরাহ হয়।

মোহন সিং নামে পাঞ্জাবের ওই কোম্পানির এক ম্যানেজার বলেন, প্রাতঃরাশে সরষের মধু আমেরিকা ও জার্মানিতে খুব চাহিদা রয়েছে। আমরা এই দু’টি দেশে বছরে এক হাজার কন্টেনার মধু রপ্তানি করি। এক কন্টেনারে ২০ টন মধু থাকে। আপনাদের বাংলা থেকে গাড়িতে মধু আসে। তারপর আমরা কাঁচামাল পরিস্রুত করি। কোয়ালিটি টেস্ট করে জাহাজে করে ওই মধু বিদেশে চলে যায়। তিনি বলেন, আমেরিকা ও জার্মানি ছাড়াও অনান্য দেশেও মধু রপ্তানি করি।

শূন্য থেকে শুরু করে আজ প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হলেও হারুন মণ্ডলের চোখেমুখে বিন্দুমাত্র অহংকার নেই। হেসে বললেন, ‘আমি স্কুলের মুখ দেখেনি। কিন্তু, এলাকার হাজার হাজার মানুষকে আজ কর্মসংস্থানের পথ দেখাতে পেরেছি, এটাই আমার কাছে পরম আনন্দের।’

সূত্র: বর্তমান

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24