বুধবার, ২২ মে ২০১৯, ০৩:১৫ পূর্বাহ্ন

‘রমজানের চাঁদ গুরুত্বের সঙ্গে তালাশের আহ্বান’

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৮ এপ্রিল, ২০১৯
  • ৩১ Time View

Shah জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

আসন্ন রমজানের চাঁদ অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে তালাশ করে সঠিক তারিখে শুরু করার আহ্বান জানিয়েছেন ‘মাজলিসু রুই্য়াতিল হিলাল’। আজ জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংগঠনটির আয়োজনে ‘পবিত্র রমজানের চাঁদ দেখার গুরুত্ব এবং রোযা অবস্থায় ইনজেকশন, ইনহেলার, স্যালাইন ইত্যাদি নেয়া রোযা ভঙ্গের কারণ’ শীর্ষক এক সেমিনারে বক্তারা এ আহ্বান জানান।

সেমিনারে গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, বিশিষ্ট চাঁদ গবেষক ও ফার্মাসিষ্ট এবিএম রুহুল হাসান এবং দৈনিক আল ইহসান ও মাসিক আল বাইয়্যিনাত পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক মুফতিয়ে আ’যম আল্লামা আবুল খায়ের মুহম্মদ আযীযুল্লাহ।

আলোচকরা বলেন, শরীয়তের দৃষ্টিতে রোযা অবস্থায় পাকস্থলী বা মগজে কিছু প্রবেশ করলেই রোযা ভঙ্গ হয়। সেটা যেভাবে এবং যে স্থান দিয়েই প্রবেশ করুক না কেন। একইভাবে শরীয়ত অনুযায়ী আকাশে খালি চোখে চাঁদ দেখে আরবী মাস শুরু করতে হয়। তাই পৃথিবীর কোথাও চাঁদ দেখা গেলে তা সেই দেশ বা এলাকার জন্য প্রযোজ্য। সারাবিশ্বের জন্য নয়।

রোযা অবস্থায় ইনজেকশন, স্যালাইন নেয়া প্রসঙ্গে আলোচকরা বলেন, স্বয়ং মহান আল্লাহ পাক অসুস্থ ব্যক্তির জন্য রোযার পরে ক্বাযা আদায় অথবা ফিদিয়া দেয়ার ব্যবস্থা রেখেছেন। সেখানে এক শ্রেণীর কথিত মুফতি ও অজ্ঞ ডাক্তার ষড়যন্ত্রমূলকভাবে দাবি করেছে, রোযা অবস্থায় ইনজেকশন, স্যালাইন, ইনহেলার নিলে রোযা ভঙ্গ হবে না। আসন্ন রমজানের চাঁদ অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে তালাশ করে সঠিক তারিখে শুরু করার আহ্বান জানিয়েছেন ‘মাজলিসু রুই্য়াতিল হিলাল’। আজ জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংগঠনটির আয়োজনে ‘পবিত্র রমজানের চাঁদ দেখার গুরুত্ব এবং রোযা অবস্থায় ইনজেকশন, ইনহেলার, স্যালাইন ইত্যাদি নেয়া রোযা ভঙ্গের কারণ’ শীর্ষক এক সেমিনারে বক্তারা এ আহ্বান জানান।

সেমিনারে গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, বিশিষ্ট চাঁদ গবেষক ও ফার্মাসিষ্ট এবিএম রুহুল হাসান এবং দৈনিক আল ইহসান ও মাসিক আল বাইয়্যিনাত পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক মুফতিয়ে আ’যম আল্লামা আবুল খায়ের মুহম্মদ আযীযুল্লাহ।

আলোচকরা বলেন, শরীয়তের দৃষ্টিতে রোযা অবস্থায় পাকস্থলী বা মগজে কিছু প্রবেশ করলেই রোযা ভঙ্গ হয়। সেটা যেভাবে এবং যে স্থান দিয়েই প্রবেশ করুক না কেন। একইভাবে শরীয়ত অনুযায়ী আকাশে খালি চোখে চাঁদ দেখে আরবী মাস শুরু করতে হয়। তাই পৃথিবীর কোথাও চাঁদ দেখা গেলে তা সেই দেশ বা এলাকার জন্য প্রযোজ্য। সারাবিশ্বের জন্য নয়।

রোযা অবস্থায় ইনজেকশন, স্যালাইন নেয়া প্রসঙ্গে আলোচকরা বলেন, স্বয়ং মহান আল্লাহ পাক অসুস্থ ব্যক্তির জন্য রোযার পরে ক্বাযা আদায় অথবা ফিদিয়া দেয়ার ব্যবস্থা রেখেছেন। সেখানে এক শ্রেণীর কথিত মুফতি ও অজ্ঞ ডাক্তার ষড়যন্ত্রমূলকভাবে দাবি করেছে, রোযা অবস্থায় ইনজেকশন, স্যালাইন, ইনহেলার নিলে রোযা ভঙ্গ হবে না।

যা সম্পূর্ণ ভুল ও কবীরা গুণাহের কারণ। বক্তারা বলেন, শরীয়ত অনুযায়ী আকাশে খালি চোখে চাঁদ দেখে আরবী মাস শুরু করতে হয় এবং সেই ১৪৩৯ বছর ধরেই এই নিয়ম মুসলিম বিশ্বে পালিত হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24