বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৭:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সংগ্রামী সেই মেয়েটির পরিবারে উপজেলা পরিষদের সেলাই মেশিন প্রদান জগন্নাথপুরে মোটরযান ও ভোক্তা আইনে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা সৌদিতে নির্যাতিতা জগন্নাথপুরের কিশোরীকে দেশে ফেরাতে পরিকল্পনামন্ত্রীর ডিও লেটার কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি আইসিজেতে গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী-মিয়ানমারের গণহত্যা কোনোভাবেই গ্রহণ করা যায় না জগন্নাথপুরে মানবাধিকার দিবসে র‌্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে মাকে হত্যা করল পাষান্ড ছেলে ঘৃনার বদলে অমুসলিমদের মধ্যে ১০ হাজার কোরআন বিতরণ করবে নরওয়ের মুসলিমরা জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু

রাখে আল্লাহ মারে কে

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২ জুন, ২০১৭
  • ২৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: ‘প্রচণ্ড বাতাসে হঠাৎ করেই আমাদের ট্রলারটি কাত হয়ে সাগরে ডুবে যায়। এই সময় আল্লাগো বলে চিৎকার শুনি। কিছু বুঝে ওঠার আগেই দেখি পাহাড় সমান বড় বড় ঢেউ আমাকে আরো গভীরে টেনে নিয়ে যাচ্ছে। তারপর একটি শক্ত গাছের বড়
টুকরো ধরে ৩৬ ঘণ্টা পানিতে ভেসে ছিলাম।’ঠিক এভাবেই কান্নাজড়িত কণ্ঠে কথাগুলো বলছিলেন ঘূর্ণিঝড় মোরার আঘাত থেকে সাগরে বেঁচে যাওয়া মাঝি আবদুশ শুকুর। কেবল তিনি নন, তার মতো এভাবে উত্তাল সাগরে ভেসে ভেসে শেষমেশ প্রাণে বেঁচেছেন আরো ৩২ জন।
কেউ গাছের টুকরো ধরে, কেউবা ট্রলারের পাটাতনকে সঙ্গী করে সাগরের ঢেউয়ের সঙ্গে যুদ্ধ করেছেন। এই সময় সাগরে ভাসতে থাকা কিছু লোকজনকে উদ্ধার করতে গিয়ে ভারতের মেরিন কমান্ডারের একটি দল দেখতে পান প্রচুর জেলে ও মাঝি বাঁচার আকুতি জানাচ্ছে তাদেরকে।
পরে লাইফ জ্যাকেট পরে মোট ৩৩ ব্যক্তিকে সাগরে ভাসতে থাকার পর উদ্ধার করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে উদ্ধার হওয়া এসব ব্যক্তিদের চট্টগ্রাম বন্দরে ইন্ডিয়ান নেভি শিপে করে নিয়ে আসা হয়।
পরে জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমানের কাছে হস্তান্তর করা হয়। প্রাণে বেঁচে যাওয়া এসব ব্যক্তিদের অনেকের সঙ্গে কথা হয় বন্দরের ৫ নম্বর জেটিতে। জানতে চাইলে তারা জানান, দুঃসহ তাদের সেই স্মৃতির কথা। কিভাবে সাগরের নোনা জল খেয়ে আল্লাহর রহমতে বেঁচে গেছেন সব মাঝিরা।
অনেকে বলেছেন, এই ঘটনার পর সাগরে আর মাছ ধরতে যাওয়ার সাহস করছেন না তারা। বাপ-দাদার দীর্ঘদিনের ৩০ বছরের এই পেশা ছেড়ে নতুন কোনো জীবন খুঁজে নেয়ার চেষ্টা করবেন তারা।
ঘূর্ণিঝড় মোরার আঘাত হানার কথা জানতে চাইলে খায়রুল আলম (২০) নামের একজন বলেন, সে কথা আর বলে ৩৬ ঘণ্টা পানিতে ভেসে থাকার চিত্রটা চোখের সামনে মনে করতে চাই না। প্রচণ্ড বাতাস হচ্ছিলো। আকাশ কালো হয়ে গিয়েছিল। ঢেউয়ের মাত্রা বড় হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই আমাদের ট্রলারটি ডুবে যায়। তারপর জীবনকে অন্যভাবে দেখা।
তিনি আরো বলেন, আমাদের ট্রলারে মোট ছিলাম ১৫ জন। সবাই সাগরে জাল ফেলেছিলাম। এই সময় খবর আসে মোরা আঘাত হানবে। ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত। সাগরে রেড সিগন্যাল চলছে। দ্রুত আমরা ট্রলার ঘুরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করতেই সবাই পানিতে পড়ে যাই।
খায়রুল বলেন, প্রচুর নোনা পানি খেয়েছি। যেদিকে তাকিয়েছি কেউ নেই। আমার মতো সবাই আল্লাহকে ডেকে বাঁচার আকুতি জানাচ্ছিলো। কেউ পানিতে হাতরাচ্ছিলো। এই সময় পানিতে প্লাস্টিকের বোতল, কনটেইনার দেখে সেগুলোকে বাঁশ দিয়ে বাঁধার চেষ্টা করি। কিন্তু সেটিও ডুবে যেতে শুরু করে। এক পর্যায়ে গাছের টুকরো দেখে সেটি ১৫ জন ধরে ভাসতে থাকি।
খায়রুলের সঙ্গে যখন দুঃসহ স্মৃতি নিয়ে কথা হচ্ছিলো তখন পাশেই খানিকটা বিমর্ষ ছিলেন মোহাম্মদ শফি নামের আরো একজন। তিনি বলেন- আমি, খায়রুল, হাবিবুল্লাহ, বশির আলম, নুর ইসলাম, শুকুর সহ মোট ১৫ জন ছিলাম। দুই দিন সাগরে না খেয়ে গাছের টুকরো ধরে বেঁচে ছিলাম। আল্লাহর রহমত ভারতীয় একটি শিপ আমাদেরকে দেখে বাঁচাতে এগিয়ে আসে।
তিনি আরো বলেন, মায়ের দোয়ায় বেঁচে গেছি। বাড়ির সবার কথা মনে পড়েছে। হয়তো সবাই ভেবেছে আমরা মরে গেছি। নতুন জীবন ফিরে পাওয়ায় অনেক আনন্দ লাগছে। যদি ওই গাছের টুকরোটি খুঁজে না পেতাম তাহলে বুঝি আর বাঁচা হতো না।
জসিম মিয়া নামের আরেক জন জেলে বলেন, আমরা দুইটি ট্রলারে ছিলাম। এর মধ্যে একজন প্রচণ্ড বাতাসে ট্রলার থেকে নিচে পড়ে যায়। তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করেও বাঁচাতে পারিনি। তার পরিবারকে কী জবাব দেবো জানি না।
মো. জহির নামের একজন বলেন, সাগরের ওই উত্তাল ঢেউয়ে যারা মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করেছি কেবল তারাই জানি জীবনটা ফিরে পেতে সবার কত আকুতি। পুরো সাগর নির্জন। বাঁচার জন্য চিৎকার করছিলাম। কিন্তু কেউই সাহায্য করতে এগিয়ে আসেনি। আসবে কেমন করে? মোরার খবরে পুরো সাগরে আতঙ্ক নেমে এসেছিলো।
বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা বলেন, ভারতীয় ত্রাণবাহী জাহাজ সুমিত্রার নাবিকরা সাগরে ১৫ জন মানুষের হাত দেখতে পেয়ে দ্রুত এগিয়ে যায়। গিয়ে দেখেন প্রচুর লোক পানিতে ভাসছে। উদ্ধার হওয়া লোকজনের চিকিৎসার প্রয়োজন। এসব মানুষের জীবন ফিরিয়ে দিতে পেরে আমরা আনন্দিত।
ঘটনাস্থলে থাকা ভারতীয় শিপ সুমিত্রার কমান্ডিং অফিসার এসপি শ্রিশান বলেন, হয়তো নতুন জীবনের ভাগ্য তাদের কপালে লেখা ছিল। তবে বড় বড় ঢেউয়ে মানুষগুলো যেভাবে বাঁচার জন্য যুদ্ধ করে যাচ্ছিলো তাতে আর কিছু সময় দেরি হলে হয়তো তারা দুর্বল হয়ে সাগরে ডুবে যেতো।
তিনি আরো বলেন, ওরা ডুবে যায় সম্ভবত চট্টগ্রাম থেকে ৯০ নটিক্যাল মাইল দক্ষিণে। আমাদের একজন মেরিন কমান্ডার ঘটনাটি দেখে সবাইকে জানায়। পরে লাইফ বোট নিয়ে নাবিকরা সবাইকে উদ্ধার করেন।
জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান বলেন, উদ্ধার হওয়া নাবিকদের চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ করে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হবে। যারা জীবন ফিরে পেয়েছেন তাদের সবার শরীর দুর্বল। সাগরে যতক্ষণ ওরা ভেসেছিলো, ততক্ষণই কেবল নোনা পানি খেয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24