বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:১৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে বিএনপির দোয়া মাহফিল পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে কাল আসছেন জগন্নাথপুরে বাজার মনিটরিং করলেন পুলিশের এএসপি ধর্মঘট স্থগিত, যান চলাচল শুরু ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট মহাসড়কে প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে নেদার‌ল্যান্ডসের রাজধানীতে প্রথমবার মাইকে আজান জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই

রাজাকার কামরুজ্জামানের সময় শেষ ফাঁসির দরি সামনে ঝুলছে

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১১ এপ্রিল, ২০১৫
  • ২২২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের আগে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাতে যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা মুহাম্মদ কামারুজ্জামানকে আর সময় দেওয়া হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এক অনুষ্ঠান থেকে তাড়াহুড়ো করে বেরিয়ে যাওয়ার আগে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “ম্যাজিস্ট্রেট আজ গিয়েছিলেন, তার (কামারুজ্জামান) সঙ্গে কথা বলেছেন। সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।”

কামারুজ্জামান প্রাণভিক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন কি না জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “তাকে আর সময় দেওয়া হচ্ছে না।”

এর পরপরই তিনি দ্রুত শিল্পকলা একাডেমীতে ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের ওই অভিষেক অনুষ্ঠান থেকে বেরিয়ে যান।

এদিকে সন্ধ্যা থেকেই ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার এলাকার নিরাপত্তা জোরদার করা হয়। মূল ফটকের সামনে নেওয়া হয় দুই স্তরের নিরাপত্তা।

চকবাজার থানার ওসি আজিজুল হক বলেন, “ওপরের নির্দেশেই নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে।”

এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে একটি রিকশা ভ্যানে করে অন্তত আটটি বাঁশ ও বড় আকারের তিনটি কার্টন প্রধান ফটক দিয়ে কারাগারের ভেতরে নিতে দেখা যায়। এর আধা ঘণ্টা পর একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে নেওয়া হয় ত্রিপল। ৩০ থেকে ৪০টি প্লাস্টিকের চেয়ারও ভেতরে নিতে দেখা যায় এরপর।

কারাগারের একজন কর্মকর্তা জানান, ফাঁসির মঞ্চের ওপরে আচ্ছাদন হিসাবে ব্যবহারের জন্য বাঁশ ও ত্রিপল প্রয়োজন হয়। আশেপাশের কোনো উঁচু ভবন থেকে যাতে দেখা না যায় সেজন্য কাদের মোল্লার ফাঁসির সময়ও এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল।

তবে কামারুজ্জামানের সঙ্গে দেখা করার বিষয়ে কারা কর্তৃপক্ষ রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি বলে তার ছেলে হাসান ইকবাল জানান।

“সারা দিন আমরা অপেক্ষায় ছিলাম। বলা হয়েছিল কিছু হলে আইনজীবীর মাধ্যমে যোগাযোগ করা হবে। তবে আমাদের কিছু জানানো হয়নি।”

প্রাণভিক্ষার আবেদনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানতে শুক্রবার সকালে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে গিয়ে কামারুজ্জামানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন ঢাকা জেলার ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুব জামিল ও তানভীর মোহাম্মদ আজিম।

এক ঘণ্টার বেশি কারাগারে অবস্থানের পর বেলা ১১টা ৩৭ মিনিটে ম্যাজিস্ট্রেটরা বেরিয়ে যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে তারা কোনো কথা বলেননি।

কারাগার থেকে ম্যাজিস্ট্রেটরা বেরিয়ে যাওয়ার পর কারা ফটকের সামনে আসেন ফরমান আলী। সাংবাদিকদের প্রশ্ন ‘নো কমেন্টস’ বলে এড়িয়ে যান তিনি।

তবে একজন কারা কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, “ম্যাজিস্ট্রেটরা কারাগারে ঢুকে প্রথমে কামারুজ্জামানের কাছে যান। তার সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলেন তারা। পরে কারাগারের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে আধা ঘণ্টার বেশি কথা বলে বেরিয়ে যান।”

দুপুরে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কামাল বলেন, “কামারুজ্জামানকে মার্সি পিটিশনের বিষয়ে জিজ্ঞেস করা হয়েছে। উনি সময় নিচ্ছেন। বলছেন- ‘সিদ্ধান্ত দিচ্ছি, দেব’।”

তবে এই যুদ্ধাপরাধীকে ‘দ্রুত’ তার সিদ্ধান্ত জানাতে হবে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “সে যাই বলুক, আমরা বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।”

এর আগে কাদের মোল্লার ক্ষেত্রেও একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হলেও তিনি প্রাণভিক্ষার সুযোগ নেননি বলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়। ২০১৩ সালের ১২ ডিসেম্বর রিভিউ খারিজের দিনই তার ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

একাত্তরে হত্যা, গণহত্যা ও নির্যাতনের দায়ে ২০১৩ সালের ৯ মে ময়মনসিংহের আল বদর কমান্ডার কামারুজ্জামানকে মৃত্যুদণ্ড দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করলে সেখানেও তার সর্বোচ্চ শাস্তি বহাল থাকে।

সর্বোচ্চ আদালতের রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) জন্য কামারুজ্জামানের আবেদন গত সোমবার খারিজ করে দেয় প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বেঞ্চ।

বুধবার দুপুরে রায়ে বিচারপতিদের সইয়ের পর তা কারাগারে পাঠানো হয়। কারা কর্তৃপক্ষ ওই রায় পড়ে শোনান ফাঁসির আসামি কামারুজ্জামানকে।

এর আগে রিভিউ খারিজের দিনই কারা কর্তৃপক্ষের চিঠির প্রেক্ষিতে কামারুজ্জামানের পরিবারের সদস্যরা কারাগারে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করেন। প্রাণভিক্ষার আবেদনের নিষ্পত্তি হয়ে গেলেও পরিবারের সদস্যদের আবারও দেখা করার সুযোগ দেওয়া হতে পারে বলে একজন কারা কর্মকর্তা জানিয়েছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24