বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০৩:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে দুইটি সরকারি ইজারাকৃত জলাশয় থেকে মাছ শিকারের অভিযোগ জগন্নাথপুরে পরীক্ষা কেন্দ্রে মুঠোফোন রাখার দায়ে শিক্ষক বহিষ্কার জগন্নাথপুরে জুয়া খেলার দায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত চারজন কারাগারে ২৫ জনকে আসামি করে আবরার হত্যার চার্জশিট আ’লীগে দূষিত রক্তের প্রয়োজন নেই: কাদের আনন্দবাজার-এর বিশ্লেষণ মুসলিমরা ক্ষমতাহীন হয়ে পড়ছে ভারতে?

রাতে বাঁধ কেটে দেয় মাছ শিকারীরা-পাগনা হাওরের ফসল রক্ষায় শেষ লড়াই

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৪ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৪০ Time View

বিন্দু তালুকদার
প্রায় একমাস পানির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে শনির হাওরের ফসল বাঁধ রক্ষায় সব ধরনের চেষ্টা করেছিলেন অর্ধশতাধিক গ্রামের কৃষক। কিন্তু সবচেষ্টা ব্যর্থ করে হাওরের বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে তলিয়ে গেছে হাওরটি। এখন জেলার সর্বশেষ সুরক্ষিত জামালগঞ্জের ফেনারবাঁক ইউনিয়নের পাগনার হাওরের ১২ হাজার হেক্টর জমির বোরো ফসল রক্ষার শেষ লড়াই চলছে। তবে গত এক মাস ধরে সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কোন কর্মকর্তা বাঁধে নেই বলে জানা গেছে।
জেলা-উপজেলা প্রশাসনের সহায়তায় ফেনারবাঁক ইউপি চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু তালুকদার ও ইউপি সচিব অজিত কুমার রায় স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় বেশ কয়েকদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছেন। তবে পাগনার হাওরের ঝুঁিকপূর্ণ আফর বাঁধ কেটে হাওরের পার্শ্ববর্তী দিরাই উপজেলার রফিনগর ইউনিয়নের সজনপুর ও কিত্তাগাঁও গ্রামের মাছ শিকারীরা রাতের আঁধারে মাছ ধরার চেষ্টা করছে অভিযোগ উঠেছে। তাই হাওরের আফর বাঁধ রক্ষায় ৫০ জন পাহাড়াদার নিয়োগ করা হয়েছে। এছাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ড পাগনার হাওরের রফিনগর ইউনিয়নের এলাকায় ৮ কিলোমিটার আফর বাঁধ নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ করেনি বলে অভিযোগ করেছেন ফেনারবাঁক ইউপি চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু তালুকদার।
গতকাল রোববার সকাল থেকে পাগনার হাওরের উরারবন্দ, পাতিলচুড়া, ঢাইল্লা, সজনপুরের গোদারাঘাট, কেবল মাঝির খলাসহ প্রায় ৮ কিলোমিটার আফর বাঁধ রক্ষার নতুন করে কাজ শুরু হয়েছে। সকাল থেকে হাওরের ঝুঁিকপূর্ণ বাঁধে কাজ করছেন ফেনারবাঁক ইউপি সচিব অজিত কুমার রায়। পাগনার হাওরে জেলার দিরাই উপজেলা ও নেত্রকোনার খালিয়াজুরি উপজেলার অনেক কৃষকদের বোরো জমি রয়েছে বলে জানা গেছে। তবে ওইসব ঝুঁিকপূর্ণ বাঁধ রক্ষার শুধামাত্র ফেনারবাঁক ইউনিয়নের লোকজন কাজ করছেন।
ফেনারবাঁক ইউনিয়ন পরিষদের সচিব অজিত কুমার রায় বলেন,‘ইউএনও ও চেয়ারম্যান স্যারের নির্দেশনায় রোববার সকাল থেকেই পাগনার হাওরের বেশ কয়েকটি স্থানের ঝূঁিকপূর্ণ বাঁধে ১৭৪ জন শ্রমিক নিয়ে কাজ করছি। ওই শ্রমিকরা আগামী এক সপ্তাহ বাঁধে নিয়মিত কাজ করবে। হাওরের বাঁধ রক্ষায় ৫০ জন পাহাড়াদার ও গ্রাম পুলিশ নিয়ে বাঁধেই অবস্থান করব আমরা। ’
ফেনারবাঁক ইউপি চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু তালুকদার বলেন,‘পাগনার হাওরের অধিকাংশ জমি ফেনারবাঁক ইউনিয়নবাসীর। অথচ এই হাওরের দুইটি পিআইসি দেয়া হয়েছে দিরাই উপজেলার রফিনগর ইউনিয়নে। এছাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ড এই হাওরের ৮ কিলোমিটার আফর বাঁধে কাজ করেনি। ঢাইল্লার স্লুইস গেইট নিয়ে পানি ঢুকার পর তা বন্ধ করা হয়েছে। হাওরের এত বড় দুর্যোগে পাউবোর কোন অফিসারকে বাঁধে পাওয়া যাচ্ছে না। নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ার পর থেকে এলাকার জনপ্রতিনিধি ও কৃষকরা স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধের কাজ করেছেন। বর্তমানে তলিয়ে যাওয়ার ভয়ে সবাই কাঁচা ধানই কাটতে শুরু করেছে। রবিবার থেকে ১৭৪ জন শ্রমিক বাঁধে নিয়োজিত রাখা হয়েছে। রাতের আঁধারে বাঁধের পাশ্ববর্তী সজনপুর ও কিত্তাগাঁও গ্রামের কিছু মাছ শিকারী বাঁধ কেটে মাছ ধরার চেষ্টা করে তাই দিন-রাত নজরদারী রাখার জন্য ৫০ জন পাহাড়াদার নিয়োগ করা হয়েছে। পরিষদের সচিব বাঁধে উপস্থিত থেকে সবকিছু তদারকি করছেন।’
জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রসূন কুমার চক্রবর্তী বলেন,‘ জামালগঞ্জের দুইটি হাওর হালী ও পাগনা। ইতোমধ্যে হালীর হাওর তলিয়ে গেছে। পাগনার হাওর ছাড়া জেলায় আর কোন বৃহৎ হাওর নেই। আমরা এই হাওরটির ফসল রক্ষায় কৃষকদের নিয়ে দিন রাত কাজ করছি। রোববার থেকে ১৫০ শ্রমিক ও ৫০ জন পাহাড়াদার নিয়োগ করা হয়েছে। পাগনার হাওর রক্ষায় আমরা সর্বশেষ চেষ্টা করে যাব।’
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মো. জাহেদুল হক জানান, শনির হাওরের বোরো ফসল রক্ষায় কৃষকরা জান-প্রাণ দিয়ে শেষ রক্ষার চেষ্টা করেছিলেন। আর ১০ দিন সময় পেলে হাওরের ধান পেকে যেত এবং কৃষকরা ধান কাটার সুযোগ পেত। কিন্তু কৃষকদের সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে শনিবার রাতে হাওরের দুইটি বাঁধ ভেঙে কাঁচা ধান তলিয়ে গেল। এখন জামালগঞ্জের পাগনার হাওরটি রক্ষার শেষ চেষ্টা চলছে। রোববার পর্যন্ত জেলায় বোরো ফসলের প্রায় ১ লাখ ৪০ হাজার হেক্টর জমি তলিয়ে গেছে বলে জানান তিনি।
পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ বলেন,‘ হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ কাউকেই কাটতে দেয়া হবে না। জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’
জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন,‘ হাওরের ফসল রক্ষায় কৃষকদের পাশে থেকে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন আর্থিকসহ সব ধরনের সহযোগিতা করে যাচ্ছে। জামালগঞ্জের পাগনার হাওরের বাঁধ রক্ষায় সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে। কেউ যদি রাতের আঁধারে বাঁধ কাটার চেষ্টা করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ’
প্রসঙ্গত, জেলায় এ বছর ২ লাখ ২৩ হাজার ৮৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছিল। বোরো ধানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ২৬৩৪ কোটি টাকা। ৪২টি হাওরের ফসল রক্ষায় ৬৮ কোটি টাকা ৮০ লাখ টাকার বাঁধের কাজ চলছিল। জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড সুনামগঞ্জের বৃহৎ ৩৭টি হাওরসহ মোট ৪২টি হাওরে ২০ কোটি ৮০ লাখ ব্যয়ে ২২৫টি পিআইসি (প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি) ও ৪৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭৬টি প্যাকেজে ঠিকাদার দিয়ে বোরো ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করেছিল। কৃষকদের অভিযোগ পিআইসির কাজ ২৮ ফেব্রুয়ারি ও ঠিকাদারের কাজ ৩১ মার্চের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও পিআইসির ও ঠিকাদারের কাজ সময়মত শেষ হয়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24