সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:৫৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে নির্বিচারে ধরপাকড় চলছে স্মৃতির রত্নায় ঈদ ভাবনা || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরে আগুনে পুড়ল দুইটি ঘর,ক্ষয়ক্ষতি ১০ লাখ জগন্নাথপুর আদর্শ মহিলা কলেজের উদ্যােগে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের

লন্ডনে পীর হবিবুর রহমান স্মরণে সভা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬
  • ২৭ Time View

আমিনুল হক ওয়েছ : সিলেটে জন্ম নেয়া শোষিত মানুষের মুক্তি আন্দোলনের কিংবদন্তী জননেতা, পীর হবিবুর রহমানের নামে সদ্য নির্মিত সিলেট কাজির বাজার সেতুর নাম করণের দাবি জানিয়েছেন ব্রিটেন প্রবাসীরা। মঙ্গলবার পূর্ব লন্ডনে মন্টিফিউরী সেন্টারে দ্বাদশ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে প্রয়াত জননেতার জীবন ও কর্ম নিয়ে সদ্য নির্মিত প্রামান্যচিত্র ‘রাজনীতির শুদ্ধ পুরুষ’ এর প্রথম প্রদর্শণী উত্তর আলোচনায় বক্তারা এই দাবি উত্তাপণ করে বলেন, পীর হবিবুর রহমান ছিলেন রাজনীতির আপাদমস্তক একজন শুদ্ধ পুরুষ। রাষ্ট্রের প্রয়োজনেই এমন একজন রাজনীতিককে বাঁচিয়ে রাখা আমাদের জন্যে জরুরী।পীর হবিবুর রহমান ফাউন্ডেশন আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি সাংবাদিক সৈয়দ আনাস পাশা।
জামাল আহমেদ খানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের প্রবীন সংগঠক, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ সভাপতি সুলতান শরীফ, ষাটের দশকের ছাত্রনেতা ও পীর হবিবুর রহমান স্মৃতি সংসদের সভাপতি মাহমুদ এ রউফ, জয়েন্ট কাউন্সিল ফর ওয়েলফেয়ার অব ইমিগ্রেন্টস (জেসিডব্লিউআই) এর সদ্য বিদায়ী চীফ এক্সিকিউটিভ, মাইগ্রেন্ট ভয়েস এর চেয়ারম্যান হাবিব রহমান, বিশিষ্ট সাংবাদিক, বাংলাদেশ হাইকমিশনের সাবেক মিনিষ্টার প্রেস আবু মুসা হাসান, এসএসবিআই এর চেয়ারম্যান আজিজ চৌধুরী, পীর হবিবুর রহমান স্মৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ এনামুল ইসলাম ও পীর হবিবুর রহমানের ঘনিষ্ট ব্যক্তিত্ব, প্রবীন কমিউনিটি নেতা বশির আহমেদ।
বক্তব্য রাখেন ‘রাজনীতির শুদ্ধ পুরুষ’ প্রামান্যচিত্রের পরিচালক মঈনুল হোসেইন মুকুল, শিক্ষক ও পীর হবিবুর রহমানের ঘনিষ্ট অনুসারী সৈয়দ রকিব, নারী নেত্রী হোসনা মতিন, জাসদ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবুল মনসুর লীলু, সাংবাদিক আহাদ চৌধুরী বাবু, যুব ইউনিয়ন নেতা শাহরিয়ার বিন আলী, পীর হবিবুর রহমান ফাউন্ডেশনের সহসভাপতি আব্দুল করিম, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সদরুল হোসেইন ও ইসমাইল হোসেইন লিটন প্রমূখ।

রাজনীতির প্রতি নতুন প্রজন্মকে আকৃষ্ট করতে প্রয়াত জননেতা পীর হবিবুর রহমানদের বাঁচিয়ে রাখতে হবে এমন মন্তব্য করে বক্তারা বলেন, সদ্য নির্মিত কাজির বাজার সেতু পীর হবিবুর রহমানের নামে নামকরণ হলে নতুন প্রজন্মের কাছে এটিই প্রমান হবে যে সৎ রাজনীতিক হতে রাষ্ট্র উৎসাহ যোগায়। দক্ষিন সুরমার সন্তান পীর হবিবুর রহমানকে রাজনৈতিক সহনশীলতার প্রতীক ও ঐক্যের সেতৃবন্ধন মন্তব্য করে সভায় বলা হয়, আজকের যুগে শোষিত মানুষের মুক্তি আন্দোলনের ত্যাগি নেতাদের মূল্যায়ন একমাত্র বঙ্গবন্ধু কন্যাই করতে পারেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর কর্মকান্ডের মাধ্যমে ইতোমধ্যে এর প্রমান রেখেছেন। বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট প্রয়াত পীর হবিবুর রহমানের স্মৃতি বাঁচিয়ে রাখতে কাজির বাজার সেতু তাঁর নামে নামকরণ করবেন প্রধানমন্ত্রী এমনটিই আশা করেন অনুষ্ঠানের বক্তারা।

অন্যতম অতিথির বক্তব্যে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি, প্রবীন রাজনীতিক সুলতান শরীফ বলেন, ভিন্ন দলের হলেও বঙ্গবন্ধু প্রয়াত পীর হবিবকে কতটুকু গুরুত্ব দিতেন তা আমি নিজেও দেখেছি। পীর হবিবুর রহমানকে সততার প্রতীক একজন বিরল নেতা হিসেবে মন্তব্য করে তিনি বলেন, তাঁকে কে মূল্যায়ন করলো বা না করলো এতে পীর হবিবুর রহমানের কিছুই আসে যায়না, রাষ্ট্রের প্রয়োজনে, ভবিষ্যত প্রজন্মের প্রয়োজনে, আমাদের নিজেদের প্রয়োজনেই তাঁর স্মৃতি বাঁচিয়ে রাখা জরুরী।

মাইগ্রেন্ট ভয়েসের চেয়ারম্যান হাবিব রহমান পীর হবিবুর রহমানকে একজন বিরল রাজনীতিক হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, তিনি অনুকরণীয় হলে, তাঁর মত নেতা সৃষ্টি করতে পারলে জাতি হিসেবে আমরা লাভবান হবো, রাষ্ট্রের সম্মান বাড়বে। প্রয়াত এই নেতার সাথে তাঁর তরুণ বয়সের সম্পর্কের স্মৃতিচারণ করে জেসিডব্লিউআ’র সদ্য বিদায়ী চীফ এক্সিকিউটিভ বলেন, প্রচারবিমূখ এই ক্ষনজন্মা রাজনীতিকের সংস্পর্ষে আসতে পেরেছিলাম বলেই হয়তো সমাজে চলার কিছুটা হলেও সক্ষমতা অর্জন করেছিলাম। পীর হবিবকে নিয়ে সদ্য নির্মিত প্রামান্যচিত্র ‘রাজনীতির শুদ্ধ পুরুষ’ এর ভূয়সী প্রশংসা করে এর ভবিষ্যত এডিশনে যাদের জন্যে পীর হবিব রাজনীতি করতেন, সেই সাধারণ মানুষের প্রতিনিধি এখনও জীবিত পীর হবিবের সান্নিধ্যধন্যদের মন্তব্যও সংযুক্ত করার আহবান জানান তিনি।

একাউন্টেন্ট মাহমুদ এ রউফ নিজেকে পীর হবিবের তৈরী রাজনৈতিক কর্মী পরিচয় দিয়ে বলেন, আমার জীবনের অন্যতম গর্বিত অধ্যায় পীর হবিবের স্নেহ সান্নিধ্য পাওয়া। তিনি ছিলেন আমার রাজনীতির শিক্ষক। পীর হবিবের মত বিরল, প্রচারবিমূখ ও সততার প্রতীক রাজনীতিককে ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্যে বাঁচিয়ে রাখা রাষ্ট্রেরই দায়িত্ব বলে মন্তব্য করেন মাহমুদ এ রউফ।

সদ্য নির্মিত প্রমান্যচিত্র ‘রাজনীতির শুদ্ধ পুরুষ’ এর মূল্যায়ন করতে গিয়ে তিনি বলেন, যেকাজটি করার দায়িত্ব ছিলো রাষ্ট্রের, সেটিই আজ করা হলো লন্ডনে। প্রামান্যচিত্রটির নির্মাতাদের প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞতার শেষ নেই। সাংবাদিক আবু মুসা হাসান প্রয়াত পীর হবিবুর রহমানকে শোষিত মানুষের মুক্তি আন্দোলনের আলোকিত নেতা হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, রাজনীতির প্রয়োজনে, দেশের প্রয়োজনে এই নেতাকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। তিনি তাঁর বক্তৃতায় পীর হবিবুর রহমানের সাথে তাঁর সম্পর্কের স্মৃতিচারণ করে বলেন, এমন একজন নেতার সান্নিধ্য পাওয়া আমার জীবনের অন্যতম পাওয়া বলেই আমি মনেকরি। এসএসবিএ’র চেয়ারম্যান আজিজ চৌধুরী প্রয়াত নেতা পীর হবিবকে তাঁর আদর্শের পুরুষ হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, তাঁর সান্নিধ্য জীবন চলার পথে আমার জন্যে পথ প্রদর্শক হিসেবে কাজ করেছে। প্রয়াত এই নেতার স্মৃতি বাঁচিয়ে রাখতে সিলেটের কাজির বাজার সেতু তাঁর নামে নামকরণের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, রাজনীতির বাইরেও পীর হবিবছিলেন সুরমা পারের দুই অংশ উত্তর সুরমা ও দক্ষিন সুরমার সেতুবন্ধন। সুরমা পাড়ের দুই অংশের সংযোগ সৃষ্টিকারী সদ্য নির্মিত কাজির বাজার সেতুর উপযুক্ত নাম হতে পারে পীর হবিবুর রহমান সেতু। এ বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করছি আমরা। ‘রাজনীতির শুদ্ধ পুরুষ’র পরিচালক মঈনুল হোসেন মুকুল বলেন, পীর হবিবুর রহমানকে দেখা বা জানার সুযোগ হয়নি আমার। কাজ করতে গিয়ে সাংবাদিক সৈয়দ আনাস পাশার তৈরী ‘রাজনীতির শুদ্ধ পুরুষ’র স্ক্রীপ্ট হাতে নিয়ে আমি যেন ডুবে যাই অন্য এক জগতে।

এমন রাজনীতিকও বুকে ধারণ করেছে আমার দেশ, এটি ভাবতে গিয়ে শ্রদ্ধায় নত হয়েছি আমি। প্রচার বিমূখ এই নেতার কোন ফুটেজ বা উল্লেখযোগ্য ছবিও ছিলনা আমাদের কাছে। আনাস ভাই যাই দিয়েছেন তা দিয়েই মনের সব আবেগ অনুভূতি একত্র করে তৈরী করেছি ‘রাজনীতির শুদ্ধ পুরুষ’। এটি করতে গিয়ে আমার উপলব্ধি, আসলেই বাংলা নামের দেশটি একটি রত্ন গর্ভা দেশ। অনুষ্ঠানে পীর হবিবুর রহমানের দুই ছেলেসহ অনেক আত্মীয় স্বজনও উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, অবিভক্ত পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি ন্যাপ এর যুগ্ম সম্পাদক, স্বাধীনতাত্তোর বাংলাদেশে ন্যাপ’র সাধারণ সম্পাদক, ও গণতন্ত্রী পার্টির কেন্দ্রীয় সভাপতি পীর হবিবুর রহমান ছিলেন পাকিস্তানী শাসনামলও বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের এক পুরোধা ব্যক্তিত্ব, রাজনীতির এক আপাদমস্তক শুদ্ধ পুরুষ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24