রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে রোববার পরিকল্পনামন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন ৫ বছর পর কাল কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন: বিতর্কিত নেতৃত্ব চান না নেতাকর্মীরা তুরস্ক থেকে এসেছে দুই হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ রাজধানীতে দুই বাসে আগুন সৌদিতে জগন্নাথপুরের কিশোরীকে আটককে রেখে অমানবিক নির্যাতন চলছে, মেয়েকে ফিরে পেতে মায়ের আহাজারি জগন্নাথপুরে আমনের বাম্পার ফলন হলেও, ন্যায্য দাম নিয়ে সংশয়ে কৃষকরা জগন্নাথপুরে আনন্দ হত্যাকাণ্ডের রহস্য অজানা, নেই গ্রেফতার

লন্ডনে বাংলাদেশি খুনের দায়ে আরেক বাংলাদেশির কারাদণ্ড

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৬ জুলাই, ২০১৬
  • ১২৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: ১৯ বছর আগে প্রবাসী এক বাংলাদেশিকে খুন করে যুক্তরাষ্ট্রে পালিয়ে যাওয়া আরেক বাংলাদেশির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে যুক্তরাজ্যের একটি আদালত।

১৯৯৭ সালে লন্ডনের ইলিংটনে ডেলিভারিম্যান আবদুস সামাদকে হত্যার দায়ে শুক্রবার ওল্ড বেইলির আদালত ফয়জুর রহমানকে (৪৪) অন্তত ১৮ বছর জেলে রাখার রায় দেয়।

এ সময় বিচারক পিটার রক অভিযুক্তকে উদ্দেশ্য করে বলেন, “১৯ বছর আগে অন্য অপরাধীদের সঙ্গে মিলে তুমি সামাদকে সবচেয়ে দামী সম্পদ থেকে বঞ্চিত করেছ, আর তা হলো তার জীবন।”

খুন হওয়ার সময় আবদুস সামাদের বয়স ছিল ২৫, কাজ করতেন ইলিংটনের সেন্ট পল সড়কের ‘কারি ইন এ হারি’র বিতরণ ব্যবস্থাপনায়। বেথনেল গ্রিনের এ বাসিন্দাকে আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধুবান্ধবরা কামাল নামে ডাকত।

স্টোক নিউইংটন ও ব্রিক লেনের দুই দল প্রবাসী বাঙালিদের বিবাদের জের ধরে সামাদকে হত্যা করা হয় বলে তদন্ত কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

সামাদ ব্রিক-লেন অংশের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ১৯ বছর আগে মে’র ২১ তারিখ টেলিফোনের মাধ্যমে খাবারের ‘ভুয়া অর্ডার’ দিয়ে ইলিংটনের এলওয়েইন সড়কে সামাদকে ডেকে নেন ফয়জুর ও তার দোসররা।
সামাদ সেখানে গেলে দুই-তিনজন মুখোশধারী ব্যক্তি তার উপর মাংস কাটার চাপাতি, ছোরাসহ ধারাল অস্ত্র ও বেইসবল ব্যাট দিয়ে হামলা চালায়।

গুরুতর আহত অবস্থায় পুলিশ ও স্বাস্থ্যসেবা কর্মীরা হুইটিংটন হাসপাতালে নিয়ে গেলে পরদিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় সামাদের মৃত্যু হয়।

ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে সেন্ট পাঙ্কার্স মর্গ সামাদের মৃত্যুর জন্য ধারালো অস্ত্রের আঘাতকে দায়ী করেছে।

ওই ঘটনার পরদিনই সন্দেহভাজন ফয়জুর যুক্তরাজ্য থেকে পালিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যায় বলে তদন্ত কর্মকর্তারা আদালতকে জানান।

“রায় হতে অনেক বছর লেগেছে; কিন্তু আমি খুশি যে শেষ পর্যন্ত জুরিদের কাছে ফয়জুরের বিরুদ্ধে বীভৎস এ খুনে সংশ্লিষ্ট থাকার অভিযোগ প্রমাণ করতে পেরেছি”, বলেন তদন্ত কর্মকর্তা নিক মিলার।

হোমিসিড ও মেজর ক্রাইম বিভাগের এ গোয়েন্দা জানান, ২০১২ সালের মার্চে সামাদ হত্যার দায়ে মহিউদ্দিন বাবলুকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় দেয় আদালত।

হত্যাকাণ্ডের পর বাবলুও প্রথমে বার্মিংহাম ও পরে বাংলাদেশে পালিয়ে যায়। খুনের সঙ্গে তার সংশ্লিষ্টতা আছে তা জানার পর তাকে যুক্তরাজ্যে ফিরিয়ে এনে বিচারের মুখোমুখি করা হয়।

বাবলুর সাক্ষ্য, ঘটনাস্থলে পাওয়া মুখোশের ডিএনএ আর অস্ত্রের ব্যাগে থাকা আঙ্গুলের ছাপ ফয়জুরের সংশ্লিষ্টতা নিশ্চিত করে।

২০১৬ সালের ২৭ জানুয়ারি ফয়জুরকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরিয়ে আনা হয়। পরদিন তাকে আক্সব্রিজের ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়।

এরপর শুক্রবার ওল্ড বেইলির আদালত তাকে সামাদ হত্যায় জড়িত থাকার দায়ে যাবজ্জীবন সাজা দেয়।

রায়ে সামাদের স্ত্রী ও দুই মেয়ে সন্তুষ্ট বলে মিলার জানিয়েছেন।

“সামাদের পরিবার কখনোই আশা ছাড়ে নি; তারা স্নেহময়ী স্বামী ও বাবার হত্যাকারীকে আদালতে হাজির করতে দীর্ঘদিন ধরে অপেক্ষা করেছে।

“আমি তাদের এ দৃঢতাকে সম্মান দেখাতে চাই,” বলেন মিলার।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24