শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুরের সাম্রাটে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র মনাফকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

লিফলেট হাতে ভোট চাইতে মাঠে নেমেছেন খালেদা জিয়া

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৯ এপ্রিল, ২০১৫
  • ৫০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: হেঁটে চলছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। ভোটারদের হাতে হাতে তুলে দিচ্ছেন লিফলেট। কথা বলছেন তাদের সঙ্গে। আহ্বান তাবিথ আউয়ালকে বাস মার্কায় ভোট দেয়ার। সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে কাছে পেয়ে বিস্মিত মানুষ। এ যেন তাদের কল্পনারও বাইরে। বেগম খালেদা জিয়া সিটি নির্বাচনে প্রচারণায় নামবেন- এমন কথা শোনা গিয়েছিল আগেই। কিন্তু গতকাল এভাবে আকস্মিক গণসংযোগে নামবেন তা জানা ছিল না কারোই। ঘড়ির কাঁটায় বিকাল ৪টা ২০ মিনিট। হঠাৎ গুলশানের বাসভবন থেকে বেরিয়ে পড়েন খালেদা জিয়া। সঙ্গে দলের কয়েকজন মহিলা নেত্রী। কয়েক মিনিট পথ পেরিয়ে তার গাড়ি থামে গুলশান-২ নম্বর পিংক সিটির সামনে। গাড়ি থেকে নেমে মার্কেটের নিচতলার ঢুকে পড়েন তিনি। এসময় ওই মার্কেটে উপস্থিত অনেকেই নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারেননি। পরমুহূর্তেই তাদের ঘোর কাটে। খালেদা জিয়া নিজেই ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ২০ দল সমর্থিত মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের পক্ষে প্রচারপত্র বিতরণ করেন। প্রতিটি দোকানে গিয়ে ব্যবসায়ী, ক্রেতা-বিক্রেতা ও দোকান মালিকদের কাছে বাস মার্কায় ভোট চান তিনি। কিংকর্তব্যবিমূঢ় অনেকে তার সঙ্গে হাত মেলান, ছবি তোলেন। অনেকে আবার সেলফি তোলার আবদার করলে খালেদা জিয়া তাও পূরণ করেন। খালেদা জিয়াকে দেখার জন্য মার্কেটের দর্শনার্থীরা হুমড়ি খেয়ে পড়েন। প্রচণ্ড ভিড় লেগে যায় ওই মার্কেটে। এসময় তাদের সামলাতে সিএসএফ সদস্যদের যথেষ্ট বেগ পেতে হয়। প্রায় ২০ মিনিট নিচতলার বিভিন্ন শাড়ি, কসমেটিকস, জুয়েলারি দোকানে ঘুরে ঘুরে প্রচারণা চালান। ওই মার্কেটের ব্লু স্টোন নামের একটি দোকানে গিয়ে বিক্রয় প্রতিনিধিদের সালাম দিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, ঢাকা শহর অনেক নোংরা হয়ে গেছে। এগুলো পরিষ্কার করতে হবে। তাই তাবিথ আউয়ালকে বাস মার্কায় একটি ভোট দেবেন। ৪টা ৪০ মিনিটে ওই মার্কেট থেকে বেরিয়ে সামনের রাস্তায় উপস্থিত সাধারণ মানুষের মধ্যে লিফলেট বিলি করেন খালেদা জিয়া। এরপর তিনি গুলশান-১ নম্বরের ডিসিসি মার্কেটে চলে যান। ওই মার্কেটের নিচতলায় ঘুরে ঘুরে তাবিথ আউয়ালের লিফলেট বিতরণ করেন এবং বাস মার্কায় ভোট চান। প্রায় ১৫ মিনিট ওই মার্কেটে প্রচারণা চালিয়ে চলে আসেন গুলশান-১ নম্বর মোড়ের নাভানা শপিং কমপ্লেক্সে। ওই মার্কেটের নিচতলার ওয়েস্টার্ন ভিশন, জিইএমএস ওয়ার্ল্ড, জুয়েল অপটিকসহ বিভিন্ন দোকানে লিফলেট বিলি করেন। প্রায় ১০ মিনিট প্রচারণা চালিয়ে নাভানা শপিং কমপ্লেক্সে সামনে দাঁড়ান। এসময় গুলশান-১ নম্বর মোড়ে প্রায় সহস্রাধিক লোক জড়ো হয়ে যান। খালেদা জিয়া হাত নেড়ে তাদের অভিবাদন জানান। সেখান থেকে ধীর গতিতে তার গাড়িবহর বাড্ডা লিংক রোডের পথ ধরে এগিয়ে যায়। এসময় গাড়িতে বসেই রাস্তার দুই পাশে পথচারীদের মধ্যে লিফলেট বিতরণ করেন বিএনপি চেয়ারপারসন। পেছনে পেছন দলের নেতাকর্মীরা হ্যান্ডমাইকে নানা স্লোগান দেন। এসময় মহিলা নেত্রীরাও পথচারীদের মধ্যে লিফলেট বিতরণ করেন। খালেদা জিয়ার গাড়িবহর লিংক রোড ঘুরে শাহজাদপুর, উত্তর বাড্ডা হয়ে আমেরিকান দূতাবাসের সামনে দিয়ে ফের গুলশান-২ নম্বরস্থ উত্তর ডিসিসি মার্কেটের সামনে থামে। ওই মার্কেটের নিচতলায় প্রচারণা চালান খালেদা জিয়া। এম আর বেকারির একটি দোকানে প্রবেশ করে বিক্রয় প্রতিনিধিদের গ্রামের বাড়ি কোথায় জিজ্ঞেস করেন তিনি। তাদেরকে বাস মার্কায় ভোট দেয়ার আহ্বান তিনি। প্রায় ২০ মিনিট ওই মার্কেটে প্রচারণা চালিয়ে বনানী সুপার মার্কেটে চলে আসেন। বনানী সুপার মার্কেটে প্রায় ১০ মিনিট প্রচারণা চালান। এসময় তিনি বনানী মসজিদের সামনেও মুসল্লিদের সঙ্গে কথা বলেন এবং কুশলাদি বিনিময় করে তাবিথ আউয়ালের পক্ষে ভোট চান। সন্ধ্যা ৭টার পর বনানী ১১ নম্বর রোডে গণসংযোগ করেন খালেদা জিয়া। এসময় উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র প্রার্থী তাবিথ যোগ দেন তার গণসংযোগে। এসময় তিনি তাবিথ আউয়ালকে তার নিজের মতো করে প্রচারণায় মনোসংযোগ দেয়ার পরামর্শ দেন। বিএনপি চেয়ারপারসনের পরামর্শ ও দোয়া নিয়ে নিজের গণসংযোগে চলে যান তাবিথ। এখান থেকে খালেদা জিয়া চলে আসেন মহাখালী এলাকায়। আমতলী ও কাঁচাবাজার এলাকায় তিনি গাড়ি থেকেই হাত নেড়ে বাস মার্কায় ভোট চান এবং লিফলেট বিলি করেন। এরপর তিনি মহাখালী বাসস্ট্যান্ডে প্রবেশ করেন। সেখানে তিনি গাড়ি থেকে নেমে গাড়িচালক, হেলপারসহ মালিক সমিতির নেতাকর্মীদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন এবং নোংরা রাজধানীকে আধুনিক করে গড়ে তোলার জন্য তাবিথ আউয়ালের পক্ষে ভোট চান। এসময় বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুল কালাম উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের মতো এত বড় নেত্রী তাদের এই বাসস্ট্যান্ডে আসবেন- তা তারা কল্পনাও করতে পারেননি। মহাখালী বাসস্ট্যান্ড থেকে খালেদা জিয়া তেজগাঁও কলোনি বাজার হকার্স মার্কেটে গণসংযোগ করেন। এরপর হাতিরঝিল এলাকায় গণসংযোগকালে সংবাদিক ও পথচারীদের সঙ্গে কথা বলে খালেদা জিয়া। কেমন সাড়া পাচ্ছেন সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, মানুষের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। আর আপনারা তো দেখতেই পাচ্ছেন কেমন সাড়া পাচ্ছি। এসময় একজন পথচারী খালেদা জিয়াকে বলেন, আমরা পজিটিভ রাজনীতি চাই। জবাবে তিনি বলেন, আমরাও পজিটিভ রাজনীতি করি। যারা নেগেটিভ রাজনীতি করে তাদের প্রতিহত করুন। তরুণ এই তাবিথকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করুন। প্রায় সাড়ে ৪ ঘণ্টার প্রচারণা শেষে রাত ৯টার দিকে বাসায় ফিরে যান তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24