সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:২৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে নির্বিচারে ধরপাকড় চলছে স্মৃতির রত্নায় ঈদ ভাবনা || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরে আগুনে পুড়ল দুইটি ঘর,ক্ষয়ক্ষতি ১০ লাখ জগন্নাথপুর আদর্শ মহিলা কলেজের উদ্যােগে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের

লেখক অভিজিৎ রায় হত্যাকান্ডের প্রধান সন্দেহভাজন ফারাবির সিলেটে ‘কানেকশন

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৯ মার্চ, ২০১৫
  • ১৫০ Time View

জগন্নাথপুর টোয়েন্টিফোর ডেস্ক-মুক্তমনা ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা ও লেখক অভিজিৎ রায় হত্যাকান্ডের প্রধান সন্দেহভাজন সিলেটভিউ২৪ডটকমশফিউর রহমান ফারাবির ‘কানেকশন’ বিস্তৃত ছিল সিলেটেও। সবার অলক্ষ্যে সিলেটে বসে তার নেটওয়ার্ক বিস্তৃত করার কাজ করেছে সে। চরম ধূর্ততায় নিজের কর্মকান্ড চালিয়ে গেলেও সিলেটে কর্মরত গোয়েন্দা সংস্থা বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কিছুই জানতেন না।

এমনকি সিলেট নগরীর মুন্সিপাড়াস্থ যে বাসায় ফারাবি এসে থাকত তার আশপাশের লোকজনও এই ফারাবিই যে ব্লগার রাজিব ও অভিজিৎ হত্যার ঘটনার সন্দেহভাজন সেটা বুঝতে পারেননি। গোয়েন্দাদের ধারণা, ফারাবি খুব সতর্কতার সাথে সিলেটে তার কার্যক্রম চালিয়েছে ফলে তার আসল পরিচয় প্রকাশ পায়নি। রবিবার ফারাবির সিলেটস্থ বাসায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ অভিযান চালানোর প্রেক্ষিতে ফারাবির ‘সিলেট কানেকশন’র বিষয়টি ধরা পড়ে। ওই অভিযানে ফারাবির বাসা থেকে কম্পিউটারের একটি সিপিইউ, একটি ল্যাপটপ, বেশকিছু কাগজপত্র ও বই উদ্ধার করা হয়েছে।

সিলেট নগরীর মুন্সিপাড়ার ডি/১৬ নম্বর বাসায় ২০১৩ সালের শেষ দিকে ঠিকাদার মুজিবুর রহমানের ৫ তলার বাসার ৩য় তলার একটি ফ্ল্যাটে ওঠেন ফারাবির সৎমা ফিরোজা বেগম ও বোন অন্তরা। অন্তরা সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের ৪র্থ বর্ষে পড়ালেখা করছে। এরপর থেকে ফারাবি প্রায়ই ওই বাসায় এসে থাকত। তবে তার তৎপরতা কি ছিল, সিলেটে এলে সে কোথায় যেতো, কার সাথে যোগাযোগ করতো- এসব বিষয়ে বাসার মালিক বা এলাকার কেউই কিছু বলতে পারছেন না।

মুন্সিপাড়াস্থ ফারাবির বাসার আশপাশের লোকদের সাথে কথা বলে জানা যায়- ফারাবি অনেকবারই ওই বাসায় এসে কিছুদিন করে সিলেটে অবস্থান করত। তবে এই ফারাবিই যে ব্লগার রাজীব বা অভিজিৎ হত্যাকান্ডের সন্দেহভাজন সেটা তারা বুঝতে পারেননি। মুন্সিপাড়াস্থ বাসায় আসলে সে এলাকার কারো সাথে মিশত না। মসজিদে নামাজ পড়তে গেলে তার মোবাইল ফোন খোলা থাকত। মোবাইল রিং বন্ধ না করে নামাজে দাঁড়ানো নিয়ে এলাকার মুসল্লিরা তার উপর ক্ষুব্ধ ছিলেন। এনিয়ে তাকে কয়েকবার সর্তকও করে দেয়া হয়।

ফারাবির বাসার মালিক মুজিবুর রহমান জানান- ২০১৩ সালের শেষেরদিকে ফারাবির মা বাসা ভাড়া নেন। মাঝে মাঝে ফারাবিও এখানে এসে থাকতো। সর্বশেষ কবে সে সিলেটে এসেছিল, তা জানা নেই। ফারাবি আটকের পর তার মা ও বোন কয়েকদিনের কথা বলে ব্রাহ্মনবাড়িয়াস্থ গ্রামের বাড়ি চলে যায়।

এদিকে রবিবার সিলেট কোতোয়ালি থানার সহায়তায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ ফারাবির ওই বাসায় অভিযান চালায়। অভিযানে বাসায় কাউকে না পেলেও বাসা থেকে কম্পিউটারের একটি সিপিইউ, একটি ল্যাপটপ ও গুরুত্বপূর্ণ কিছু কাগজপত্র ও বই উদ্ধার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মো. রহমত উল্লাহ বলেন, ফারাবির সিলেট অবস্থান নিয়ে আমাদের কাছে কোন তথ্য ছিল না। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ আমাদের সহযোগিতা চাইলে আমরা সিলেটে ফারাবির কোন নেটওয়ার্ক ছিল কি-না তা তদন্ত করে দেখব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24