শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৪:০২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর টমটম গাড়ীর জন্য জগন্নাথপুরের এক চালককে রশিদপুরে নিয়ে খুন,গ্রেফতার-১ জেলা আ.লীগের গণমিছিল ৫ বছরেও শেষ হয়নি জগন্নাথপুরের ভবেরবাজার-গোয়ালাবাজার সড়কের কাজ,দুর্ভোগ লাখো মানুষের “জুম্মু কাশ্মীরে,গণতহ্যা শুরু করেছে মোদী সরকার”

শিলাবৃষ্টি থেকে ফসলরক্ষায় জগন্নাথপুরের নলুয়া হাওরে কৃষকদের প্রার্থনা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৬ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৯৬ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে হাওরের বোরো ফসলরক্ষায় মসজিদে মসজিদে বিশেষ প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়েছে শুক্রবার জম্মুার নামাজের পর।
এদিকে বেলা দুইটার দিকে জেলার অন্যতম হাওর জগন্নাথপুরের সর্ববৃহ নলুয়া হাওরপারে কৃষকদের অংশ গ্রহনে ভুরাখালি গ্রামবাসীর উদ্যোগে শিলাবৃষ্টি ও প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে সোনালী ফসলভরা মাঠের ফসলরক্ষায় বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত হয়।
নলুয়া হাওর ব্যষ্টির ভুরাখালি গ্রামের ঈদগাহ মাঠে এ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। দোয়া মাহফিল পরিচালনা করে মাওলানা ছুয়াইন-বিন-ওসমান। এতে শতাধিক কৃষক অংশ নেন।
আয়োজকরা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা রাত থেকে শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত ঝড় বৃষ্টি থেমে থেমে এ উপজেলায় উপর দিয়ে বয়ে গেছে। শিলাবৃষ্টি না হলেও এর তান্ডব থেকে ফসলরক্ষায় আল্লাহপাকের রহমত কামনা করে মোনাজত করা হয়েছে। নলুয়া হাওরের উচু এলাকায় সামান্য অংশে ধান কাটা শুরু হলেও এখনও হাওরের ৭৫ ভাগ ফসল আধা পাকা রয়েছে। সপ্তাহের মধ্যেই ধুম পড়বে ধান কাটার।
আয়োজককারীদের একজন হাওরপাড়ের কৃষক নেতা হাওর বাচাঁও সুনামগঞ্জ বাচাঁও আন্দোলনের জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটির যুগ্ম আহবায়ক সিদ্দেকুর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, টানা দুই বছর ফসলহারিয়ে কৃষকরা নিশেহারা হয়ে পড়েন। এবার ফসলের দেখা দেখে খুশি কৃষকরা। এখনও পুরাপুরি ধান পাকা হয়নি। তাই কষ্ঠার্জিত সফল যাতে শিলাবৃষ্টি কিংবা প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে বিনষ্ট না হয় এজন্য আল্লাহপাকের দরবারে প্রার্থনা করেছি আমরা। যাতে ভালোয় ভালোয় ফসল গোলায় তুলতে পারেন কৃষকরা।
উপজেলা কৃষক অফিস সুত্র জানায়, এবছর উপজেলার নলুয়া, মইয়া ও পিংলার হাওরসহ উপজেলার ছোট বড় ১৫টি হাওরে ২২ হাজার ৫০০ হেক্টর বোরো ফসল আবাদ করা হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, ফসলহানির পর এবার ফসলের দেখা পেয়ে কৃষকরা খুশি। ভয় যাতে কোনভাবেই মাঠভরা ফসল নষ্ট না হয়। আমরা এবার আশাবাদী প্রকৃতি অনুকুলে থাকলে ফসল গোলায় তুলা সম্ভব। এরই মধ্যে উপজেলার বিভিন্ন হাওরে ধান কাটা শুরু হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24