মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:০৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

শুক্রবার ছাত্রলীগের ২৯তম সম্মেলন: নেতৃত্বের আলোচনায় যারা

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১০ মে, ২০১৮
  • ৬৭ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: আগামীকাল শুক্রবার শুরু হচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতীম বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ২৯তম জাতীয় সম্মেলন। দেশের প্রাচীনতম ছাত্রসংগঠনটির সম্মেলনকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা ছড়িয়ে পড়েছে নেতাকর্মীদের মধ্যে। সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে শনিবার নির্বাচিত হবে ছাত্রলীগের আগামী দিনের নতুন নেতৃত্ব। ইতোমধ্যে ত্যাগী, মেধাবী, ক্লিন ইমেজ এবং আওয়ামী ঘরানার নেতৃত্ব আনার ঘোষণা দিয়েছেন ছাত্রলীগের সর্বোচ্চ অভিভাবক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সম্মেলনের তারিখ ঘোষণার পরপরই নেতৃত্বে আসার লড়াইয়ে নেমেছে সংগঠনটির অর্ধশতাধিক ছাত্রনেতা। এরা সবাই বর্তমানে কেন্দ্রীয় কমিটি, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্বদ্যালয়ে ছাত্রলীগ নেতা। এসব ছাত্রনেতা নিজস্ব বলয় নিয়ে ধানমন্ডিস্থ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয় ও গুলিস্তানের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সরগরম করে রাখছেন। সমর্থকদের নিয়ে ধরনা দিচ্ছেন কেন্দ্রীয় নেতাদের দ্বারে দ্বারে। অনেকে লোকচক্ষুর আড়ালে কেন্দ্রীয় পদ বাগিয়ে নিতে বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালাচ্ছেন। ছাত্রলীগের নেতা নির্বাচনের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা আসার পর কথিত সিন্ডিকেট ভেঙে গেছে বলা হলেও পদপ্রত্যাশীদের তাদের ঘিরেই লবিয়িং করতে দেখা গেছে। সম্মেলন তদারকির দায়িত্বপ্রাপ্ত দুই নেতার মাধ্যমে সিন্ডিকেটের আশীর্বাদপুষ্ট কয়েকজন পদপ্রত্যাশী ছাত্রনেতা প্রধানমন্ত্রীর সুনজরে এসেছেন বলে জানা গেছে। এদের মধ্য হতেই আগামী দিনের ছাত্রলীগের নেতা নির্বাচিত হবেন। পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদল্যায় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স, কেন্দ্রীয় কমিটির প্রশিক্ষণ সম্পাদক আজাহারুল ইসলাম শামীম, শিক্ষা ও পাঠচক্রবিষয়ক সম্পাদক গোলাম রাব্বানি, আইনবিষয়ক সম্পাদক আল নাহিয়ান খান জয়, কর্মসূচি ও পরিকল্পনা সম্পাদক রাকিব হোসেন, সমাজসেবা সম্পাদক রানা হামিদ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ জয়নুল আবেদীন রাসেল, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি এরশাদুর রহমান চৌধুরী, সহ-সভাপতি ইমতিয়াজ বুলবুল বাপ্পি, সহ-সভাপতি আরেফিন সিদ্দিকি সুজন, সহ-সভাপতি গোলাম রসুল বিপ্লব, সহ-সভাপতি এম আমিনুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নওশেদ উদ্দিন সুজন, প্রচার সম্পাদক সাইফ উদ্দিন বাবু, কৃষি শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক বরকত হোসেন হাওলাদার, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন শাহজাদা, আপ্যায়নবিষয়ক উপ-সম্পাদক আরিফুজ্জামান আল ইমরান, উপ-প্রচার সম্পাদক সাইফুর রহমান সাইফ, গণশিক্ষা সম্পাদক আনিসুল ইসলাম জুয়েল, স্কুলছাত্রবিষয়ক উপ-সম্পাদক অসীম কুমার বৈদ্য, ঢাবির মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হলের সভাপতি ইউসুফ উদ্দিন খান, ঢাবির স্যার এএফ রহমান হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান তুষার, নারী নেত্রীর মধ্যে, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি নুসরাত জাহান নুপুর, সহ-সভাপতি নিশীতা ইকবাল নদী, সহ-সভাপতি চৈতালি হালদার, সহ-সভাপতি অর্না জামান, রোকেয়া হল শাখা সভাপতি বিএম লিপি আকতার প্রমুখ। এদিকে, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণার পরপরই ঘোষণা হতে পারে ঢাকার দুই মহানগর ও ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের নতুন কমিটি। ইতোমধ্যে শাখা ৩টির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নতুন কমিটিতে পদ পেতে এখানেও মাঠ দাবরিয়ে বেড়াচ্ছেন শতাধিক ছাতনেতা। আগামী দিনের নেতৃত্ব নির্বাচন প্রসঙ্গে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন বলেন, যাদের দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়ন হবে, মেধাবী, পরিশ্রমী ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী, তারাই নেতৃত্বে আসবে। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, ছাত্রলীগের নেতা বানানোর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন প্রধানমন্ত্রী। তবে ত্যাগী, মেধাবী, ক্লিন ইমেজ, দলের প্রতি কমিটেড, যার পারিবারিক রাজনৈতিক ঐতিহ্য রয়েছে, তারাই নেতৃত্বে আসবেন। ২০১৫ সালের ২৬ ও ২৭ জুলাই ছাত্রলীগের ২৮তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে সাইফুর রহমানকে সভাপতি ও এসএম জাকির হোসাইনকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। ছাত্রলীগে ‘সিন্ডিকেট’ শব্দ পরিচিত নয় : বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সিন্ডিকেট নামক কোনো শব্দের সঙ্গে পরিচিত নয় বলে দাবি করেছেন সংগঠনটির বর্তমান সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ। তিনি বলেন, সিন্ডিকেট শব্দটি ব্যবহার হয় কেবল পাবলিক বিশ^বিদ্যালয় পরিচালনার ক্ষেত্রে। কিছুসংখ্যক ব্যক্তি বা গোষ্ঠী ছাত্রলীগকে বিতর্কিত করতে সিন্ডিকেট শব্দটি ব্যবহার করে। গতকাল বুধবার সকালে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছাত্রলীগের আসন্ন ২৯তম সম্মেলনের প্রস্তুতি নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন, সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক কাজী এনায়েত, দপ্তর সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন শাহজাদা, প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম শামীমসহ ঢাবির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। আগামী ১১ ও ১২ মে ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনের প্রস্তুতি তুলে ধরে সোহাগ জানান, আসন্ন সম্মেলন ইতিহাসের সেরা সম্মেলন হবে। একটি সুশৃঙ্খল সম্মেলন উপহার দিতে সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। দুদিনব্যাপী এই সম্মেলনে সারাদেশ থেকে লক্ষাধিক ছাত্রনেতা অংশ নেবেন। সম্মেলন স্থলে আসতে চারটি প্রবেশপথ রাখা হয়েছে। আগামী ১১ মে শুক্রবার বিকাল ৩টায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছাত্রলীগের সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন সংগঠনের অভিভাবক, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রথমে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, এরপর শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী।

সৌজন্যে. আমার সংবাদ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24