সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:৫৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে নির্বিচারে ধরপাকড় চলছে স্মৃতির রত্নায় ঈদ ভাবনা || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরে আগুনে পুড়ল দুইটি ঘর,ক্ষয়ক্ষতি ১০ লাখ জগন্নাথপুর আদর্শ মহিলা কলেজের উদ্যােগে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের

শুভ কামনায় দেশবাসী-একটি জয় বদলে দিতে পারে লাল সবুজের টাইগার বাহিনীকে

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৯ মার্চ, ২০১৫
  • ৫৩ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক- টাইগারদের সামনে ভারতবধের স্বপ্নের ডানামেলার ম্যাচ আজ। বাংলাদেশের ক্রিকেটে এমন দিন আগে কখনো আসেনি। হতে পারে প্রতিপক্ষ প্রবল পরাক্রমশালী, হতে পারে তারা বিশ্বচ্যাম্পিয়ন, কিন্তু ইতিহাস যে হাত বাড়িয়ে ডাকছে বাংলাদেশকে। সেই ডাক এড়িয়ে যাওয়ার সাধ্য কার?ক্রীড়া প্রতিবেদক চলতি বিশ্বকাপে ম্যাচ জয়ের পর অনেকবারই এমন উচ্ছ্বাসে মেতে উঠতে দেখা গেছে বাংলাদেশকে। আজ ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ শেষেও আরো একবার এমন খুশি নিয়েই মাঠ ছাড়তে চাইবে টাইগাররা _ওয়েবসাইট একটি মাত্র জয় বদলে দিতে পারে বাংলাদেশের ক্রিকেটকে। বদলে দিতে পারে ইতিহাস। মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে (ইতিহাসখ্যাত এমসিজি) ভারতের বিপক্ষে আজ টাইগারদের সেই স্বপ্নের ডানামেলার ম্যাচ! কোয়ার্টার ফাইনালের বাধা টপকে সেমিফাইনালের গর্বিত মঞ্চে পা রাখার সুবর্ণ সুযোগ। বাংলাদেশের ক্রিকেটে এমন দিন আগে কখনো আসেনি। হতে পারে প্রতিপক্ষ প্রবল পরাক্রমশালী, হতে পারে তারা বিশ্বচ্যাম্পিয়ন। কিন্তু ইতিহাস যে হাত বাড়িয়ে ডাকছে বাংলাদেশকে, সে ডাককে এড়িয়ে যাওয়ার সাধ্য কার?
শক্তিমত্তার বিচারে নিশ্চিতভাবেই এগিয়ে ভারত। চলতি বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিটও তারা। কিন্তু বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে সবসময় কি ফেভারিটরাই জেতে? ২০০৭ সালেও কি ভারত ফেভারিট ছিল না? সেবার তো এই ফেভারিটদেরই বিদায় করে দিয়েছিল টাইগার বাহিনী। এবারও কি ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি অসম্ভব কোনো বিষয়?
২০০৭ বিশ্বকাপটা নিয়ে হয়তো মাতামাতিটা একটু বেশিই হচ্ছে। ধোনিরা চাইলে ২০১১ বিশ্বকাপকেও সামনে টেনে আনতে পারেন। ২০০৭ সালে হারের প্রতিশোধটা সেবার নিয়ে নিয়েছিল ম্যান ইন বস্নুরা। তবে মাশরাফি বিন মর্তুজা অতীতের জয় বা হারকে গণনায় আনতে চাচ্ছেন না। টাইগার দলপতি মনে করছেন, নির্দিষ্ট দিনে যে দল ভালো খেলবে তারাই জিতবে, ‘২০০৭ বিশ্বকাপ কোনো কাজে আসবে না। কাজে আসবে না ২০১১ বিশ্বকাপও, যেখানে আমরা হেরেছিলাম। সংক্ষিপ্ত ফরমেটের ক্রিকেটে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, নির্দিষ্ট দিনে আপনি কেমন খেলছেন সেটা।’
মাশরাফি হয়তো আগেভাগেই কিছু বলে ভারতকে রাগিয়ে দিতে চাইছেন না। চলতি বিশ্বকাপে যে দুর্দান্ত ছন্দে রয়েছে ধোনির দল। জিতেছে গ্রুপপর্বের সবকটি ম্যাচেই (টানা ৬ জয়)। এখন তাদের চোখ শিরোপায়। অপরদিকে কোয়ার্টার ফাইনালের লক্ষ্য নিয়ে বিশ্বকাপে পা রেখেছিল বাংলাদেশ। ইতোমধ্যে সে লক্ষ্য পূরণও হয়ে গেছে। এই একটি দিক দিয়ে নির্ভার থাকার সুযোগ রয়েছে টাইগারদের। আজকের ম্যাচটি হেরে গেলেও যে কিছুই যাবে আসবে না তাদের। এই চাপটা এখন ভারতের ওপর দিতে পারলেই হয়!
টাইগাররা এখন ভয়ডরহীন ক্রিকেটের মন্ত্রই বুকে নিয়ে এগুচ্ছে। ২০০৭ সালেও এতে সাফল্য এসেছিল, চলতি বিশ্বকাপে এই ভয়ডরহীন ক্রিকেটেই হাসছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। আফগানিস্তানের বিপক্ষে বড় জয়ে (১০৫ রানের) টুর্নামেন্ট শুরুর পর স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে সোয়া তিনশ (৩১৮) রান তাড়া করতেও এতটুকু ঘাবড়ায়নি লাল-সবুজ পতাকাধারীরা। ঠা-া মাথায় টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে ফেলেছে ক্রিকেটের জনক ইংল্যান্ডকে। আর শেষ ম্যাচে তো আরেকটু হলে শুইয়ে দিয়েছিল নিউজিল্যান্ডকেও, যারা কিনা ভারতের মতোই চলতি বিশ্বকাপে রয়েছে অপরাজেয়।
ভারত চাইলেও তাই বাংলাদেশকে হালকাভাবে নিতে পারছে না, নেয়ার উপায়ও নেই। দলটির গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটসম্যান সুরেশ রায়না স্বীকার করেছেন, বাংলাদেশ দলকে এখন আর হালকাভাবে নেয়ার সুযোগ নেই, ‘বাংলাদেশকে আপনি হালকাভাবে নিতে পারেন না। ভারতের বিপক্ষে তারা আগেও ভালো করেছে। বিশেষ করে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি এবং ২০০৭ বিশ্বকাপে। আমরা তাদের বিপক্ষে এশিয়া কাপেও হেরেছি। তাদের খেলোয়াড়রা আইপিএলেও খেলছে। তাই তারা ভালোভাবেই জানে, এখনকার দিনে ওয়ানডে ক্রিকেটটা কীভাবে খেলতে হয়।’
মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে চলতি বিশ্বকাপেই একটি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। লংকানদের বিপক্ষে বড় ব্যবধানে হারা সেই ম্যাচটি অবশ্য ভুলেই যেতে চাইবে টাইগাররা। তবে এই ম্যাচেও ফ্ল্যাট উইকেটই প্রস্তুত থাকায় ভারতের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপ নিয়ে আলাদা ছক অাঁটতে হবে মাশরাফিদের। একটি পরিসংখ্যান অবশ্য ভরসা দিতে পারে টাইগারদের। ভারতের বর্তমান দলটির কারোরই নকআউট ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানোর পূর্ব অভিজ্ঞতা নেই। আজো যেন এই পরিসংখ্যান বদলে না যায় টাইগাররা তা মনেপ্রাণেই চাইবে।
পরিসংখ্যানে বাংলাদেশের জন্য প্রেরণার তথ্য আছে আরো। আজ নিজেদের ইতিহাসের ৩০০তম ওয়ানডে খেলতে নামবে টাইগাররা। এর আগে নিজেদের ১০০তম (২০০৪) এবং ১৫০তম (২০০৭) ওয়ানডেতে ভারতের বিপক্ষে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। পরিসংখ্যানের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে আজো তো একটি জয় প্রাপ্যই হয়ে গেছে লাল-সবুজদের!

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24