বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০৩:১৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:

জগন্নাথপুরে ১০ টাকা কেজিতে চাল পাবেন ১০ হাজার হতদরিদ্র মানুষ

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ২০ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি:: শেখ হাসিনার বাংলাদেশ ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ শ্লোগানে খাদ্যবান্ধন কর্মসূচীর অংশ হিসেবে ১০ টাকা কেজি দরে চাল পাচ্ছেন জগন্নাথপুর উপজেলায় প্রায় ১০ হাজার হত দরিদ্র মানুষ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী দশ টাকা কেজিতে চাল বিক্রয় খাদ্য বান্ধন কর্মসূচী বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনের পর উপজেলা পর্যায়ে তালিকা প্রনয়ন কাজ চলছে। যদিও জগন্নাথপুর উপজেলার আটটি ইউনিয়নে এখনো কার্যক্রম শুরু হয়নি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া প্রতিশ্রুতি মোতাবেক হতদরিদ্র মানুষদেরকে ১০ টাকা কেজিতে চাল ক্রয়ের সুবিধা দিতে খাদ্য শস্য বিতরণ নীতিমালা করা হয়েছে। এতে উপজেলা পর্যায়ে ওয়ার্ড ভিত্তিক দারিদ্রের প্রকোপ দুঃস্থতা বিবেচনা করে সুবিধাভোগী পরিবারের তালিকা প্রনয়ন এবং অনুমোদনের জন্য উপজেলা যাচাই কমিটি করা হয়েছে। কমিটির উপদেষ্টা হিসেবে রয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান। সভাপাতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা,এছাড়াও কৃষি কর্মকর্তা,সমাজসেবা কর্মকর্তা,পরিসংখ্যান কর্মকর্তা,প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যানগনদেরকে সদস্য করা হয়েছে। কমিটির সদস্য সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক/খাদ্য পরির্দশক। জগন্নাথপুর উপজেলায় তালিকা যাচাই কমিটির এক সভা বুধবার আহ্বান করা হলেও সভা হয়নি বলে জানিয়েছেন কমিটির সদস্য জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতির এই প্রকল্প স্বচ্ছতার সহিত বাস্তবায়ন করতে হবে। ওয়ার্ড ভিত্তিক যাতে সঠিক তালিকা প্রনয়ন করা যায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। তিনি উপজেলা যাচাই কমিটির সভা না করে কমিটির সদস্য হিসেবে তার সাক্ষর নিতে এলে তিনি সাক্ষর না দিয়ে সভা আহ্বন করতে সংশ্লিষ্টদেরকে বলেছেন বলে জানান। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে আরো বলেন, এধরনের গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সভা না করে সিদ্ধান্ত নেয়া ঠিক হবে না। এদিকে প্রতিটি ইউনিয়নে রয়েছে তালিকা প্রনয়ন কমিটি। উক্ত কমিটিতে উপাজেলা পর্যায়ে একজন কর্মকর্তা রয়েছেন সভাপতি হিসেবে এছাড়াও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান,২জন গন্যমান্য ব্যক্তি (উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কর্তৃক মনোনীত),সকল ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বারকে সদস্য করা হয়েছে। সদস্য সচিব হিসেবে রাখা হয়েছে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ সচিবকে। তন্মেধ্যে কলকলিয়া ইউনিয়নে তালিকা প্রনয়ণ কমিটির সভাপতি হিসেবে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুর রব সরকারকে সভাপতি মনোনীত করা হয়েছে। এ ইউনিয়নে ১৪০০ জন দরিদ্র মানুষ সুবিধা পাবেন। পাটলী ইউনিয়নে সভাপতি হিসেবে সহকারী পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা রেজাউল করিম শেখকে সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এ ইউনিয়নে১০০০ জন হত দরিদ্র সুবিধা পাবেন। চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নে উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেনকে সভাপতি মনোনীত করা হয়। এ ইউনিয়নে ১১৩০জন সুবিধা ভোগী সুবিধা পাবেন। মীরপুর ইউনিয়নে উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা হারুণ অর রশীদ কে সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সুবিধা ভোগীর সংখ্যা ১০০০ জন। রানীগঞ্জ ইউনিয়নে ১৫৬৮জন সুবিধা ভোগী রয়েছেন সভাপতি হিসেবে দায়িত্বে রয়েছেন এলজিইডির সহকারী প্রকৌশলী আব্বাছ উদ্দিন। সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়নে ১০৫০জন সুবিধাভোগী সুবিধা পাবেন। সভাপতি হিসেবে এলজিইডির সহকারী প্রকৌশলী আমির হোসেন দায়িত্বে রয়েছেন। আশারকান্দি ইউনিয়নে ১২০০জন দরিদ্র সুবিধা পাবেন সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা ইনষ্ট্রাক্টর হারুণ অর রশীদ, ও পাইলগাঁও ইউনিয়নে ১৩০০ জন হতদরিদ্র মানুষ এ সুবিধা পাবেন। সভাপতি হিসেবে দায়িত্বে রয়েছেন উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা কে এম আব্দুস শাহেদ।
কলকলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল হাশিম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ইউনিয়ন থেকে আমরা উপজেলা যাছাই কমিটির নিকট তালিকা প্রেরণ করেছি। পরবর্তী নির্দেশনা পেলে কাজ শুরু হবে। তবে কলকলিয়া ইউনিয়ণ কমিটির সভাপতির দায়িত্বে থাকা উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুর রব সরকার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, তালিকা এখনো চুড়ান্ত হয়নি। ঈদের ছুটির পর এবিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।
জগন্নাথপুর উপজেলা খাদ্য পরির্দশক আফছর উদ্দিন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান,জগন্নাথপুর উপজেলার আটটি ইউনিয়নে ৯৬৪৮ জন হতদরিদ্র মানুষ ১০টা কেজিতে চাল পাবেন। তিনি জানান,সরকার নির্ধারিত দামে একজন কার্ডধারী মাসে ৩০ কেজি চাল পাবেন। প্রতি বছরের সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বর ও মার্চ থেকে এপ্রিল ৫ মাস হত দরিদ্ররা এ সুবিধা পাবেন। ইউনিয়ন পর্যায়ে তালিকা প্রনয়নের কাজ চলছে বলে তিনি জানান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24