শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:১০ পূর্বাহ্ন

শোকগাঁথা ধনু স্মরণে -অশেষ কান্তি দে

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭
  • ১৬১ Time View

মরিতে চাহি না আমি সুন্দর এই ভুবনে। মানবের মাঝে আমি বাঁচিবারে চাই..।রবীন্দ্রনাথ ও মরতে চাননি।বেঁচে থাকার আকুতি তার মধ্যে ছিল।তবু সেই আক্ষেপ নেই।রবীন্দ্রনাথ একটি কাল অতিক্রম করেছিলেন বলেই। অন্যদিকে সময়টা যদি হয় কারো অকালে চলে যাওয়া নাম তাহলে?ধনঞ্জয় দাস ধনু তেমনি এক নাম।আমাদের প্রিয় ধনু।আকস্মিক দুর্ঘটনায় তার আকস্মিক চলে যাওয়া মনে যে ক্ষত শূন্যতার সষ্টি করেছে তা সহজে পূরণ হওয়ার নয়।দেখতে দেখতে এক বছর হয়ে গেল।মনে হয় এই তো সেদিন।কত কথা।কত স্মৃতির ভীড় ।মত্যুর ঠিক দিন কয়েক আগে ও জনিদের বাসায় মিলিত হয়েছিলাম।ওর বিয়ে ধার্য হয়েছিল।খেতে খেতে কী তুমুল আড্ডা।ধনু তার সহধর্মিণীর সাথে ফোনে কথা বলে আমাকে ধরিয়ে দিয়েছিল।দেখি না যে।সঙ্গে রসিকতা করে বললাম পুকুরপাড়ে আসলে ও তো দেখা যায়।ওর বউ হেসে উঠেছিল।কে জানত এই হাসি নিমিষে বিষাদ হয়ে যাবে।গোটা সুখী পরিবারেই নামবে হাহাকার ।সবকিছু এলোমেলো হয়ে যাবে।সময়কে আর যাবে না চেনা।তার ছেলে যে তার অস্তিত্ব।অনেককিছুই যেখানে হয়ে যাবে অতীত। এক শুক্রবারে হাসপাতালে ভর্তি। আরেক শুক্রবারে এসেই জীবনের ইতি।হাসপাতালের দিনগুলোতে নিয়মিতভাবেই ছিলাম।অপারেশনের পর হুশ ফেরার পর কোন এক সময়ে আইসিউতে গিয়ে দেখেছিলাম ওকে।আস্তে করে ডেকেছিলাম ধনু! চোখ খুলে সাড়া দিয়েছিল।মুখ দিয়ে কিছু বলার চেষ্টা করেছিল কী যেন।চোখে তার অশ্রু।হয়তো আসন্ন মৃত্যু টের পেয়ে গিয়েছিল। বলা হয়ে উঠেনি না বলা কথা।হাসপাতালে প্রতিদিন কত মানুষের আনাগোনা ওর জন্য।বুঝা যায় জনপ্রিয় ছিল। মধু,মান্না,কামাল,রতন,মিল্টন সহ সকলের সমবেত প্রার্থনা।ধনু চোখ মেলুক।ধনু ফিরুক।না শেষতক ধনু আর চোখ মেলেনি।ধনু ফিরেনি।রেখে গেছে স্মৃতি।সে স্মৃতি বড় জীবন্ত। বড় অমলিন!
ধনুর জন্য শোকগাঁথা ও ভালবাসা। লেখক- অশেষ কান্তি দে প্রভাষক জগন্নাথপুর ডিগ্রী কলেজ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24