রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:২৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

শ্রীরামসি ট্রাজেডি-নির্বিচারে গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয় ১২৬ জনকে

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৩০ আগস্ট, ২০১৭
  • ১৮ Time View

অমিত দেব/আলী আহমদ::
১৯৭১ সালের ৩১ আগষ্ট সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার মীরপুর ইউনিয়নের শ্রীরামসি গ্রামে পাক বাহিনী শান্তিপ্রিয় লোকজনের ওপর নির্বিচারে গুলিবর্ষন করে শিক্ষক, জনপ্রতিনিধি, সরকারী কর্মকর্তাসহ ১২৬জনকে হত্যা করে।
সিলেট বিভাগের মধ্যে অন্যতম এ গণহত্যার ভয়াবহতা আজো জাতিকে পীড়িত করে। ইতিহাসের বর্বর এই গণ্যহত্যার কালের সাক্ষী হয়ে মুক্তিকামী মানুষের হৃদয়ে অমলিন হয়ে রয়েছে।
ইতিহাস মতে, ১৯৭১ সালের ২৯ আগষ্ট শ্রীরামসিতে আসে উপজেলার চিলাউড়া গ্রামের রাজাকার আব্দুল ওয়াতির ও মছলম উল্যাহ। তারা শ্রীরামসিতে এসে গ্রামের মানুষকে আকর্ষনীয় সুযোগ সুবিধা ও বেতন ভাতার লোভ দেখিয়ে রাজাকার বাহিনীতে যোগ দেয়ার প্রস্তাব দেন। কিন্তুু গ্রামের মুক্তিকামী মানুষ তাদের প্রস্তাব প্রত্যাখান করে তাদেরকে গ্রাম থেকে তাড়িয়ে দেয়। এ সময় ওই দুই রাজাকার হুমকি দিয়ে গ্রামবাসীকে শাসিয়ে যায়। পরে রাজাকাররা শ্রীরামসিতে মুক্তিবাহিনীর ক্যাম্প আছে একথা পাকবাহিনীকে বুঝিয়ে ৩১ আগষ্ট শ্রীরামসিতে নিয়ে আসে।
জেলার দক্ষিন সুনামগঞ্জ ছাতক ও সিলেটের বিশ্বনাথ, গোয়ালাবাজার সীমান্তে অবস্থিত জগন্নাথপুর উপজেলা। জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-রশিদপুর সড়কের ওপর দিয়ে অবস্থিত মীরপুর বাজার। তারপরই মীরপুর ইউনিয়নের শ্রীরামসি গ্রামের মধ্যস্থলে শ্রীরামসি বাজার, প্রাথমিক,মাধ্যমিক ও মাদ্রাসার অবস্থান। এছাড়াও ভূমি অফিস, পোষ্ট অফিসসহ সরকারী অফিস থাকায় সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারী ও ব্যবসায়ীদের অবস্থান ছিল শ্রীরামসি বাজারে। স্থানীয় রাজাকারদের সহযোগীতায় পাক বাহিনী বিশাল বহর নিয়ে ওই দিন নৌকাযোগে শ্রীরামসিতে প্রবেশ করে সকাল ১০টার মধ্যে পুরোগ্রাম তাদের নিয়ন্ত্রনে নিয়ে গ্রামবাসীকে শ্রীরামসি হাইস্কুল মাঠে শান্তি কমিটির সভায় যোগদিতে আহ্বান জানায়। যারা আসতে চাননি তাদেরকে বাড়ি থেকে জোর করে ধরে আনা হয়। সমবেত লোকজনকে দুই ভাগে বিভক্ত করে পাকসেনারা। বিদ্যালয়ের দ’ুটি কক্ষে আটক করে বেঁধে ফেলে। এক গ্রুপে যুবক ও অন্য গ্রুপে বয়স্কদেরকে রাখা হয়। সেখানে মারধর করে নির্যাতনের পর যুবকদলকে নিয়ে যাওয়া হয় শ্রীরামসি গ্রামের রহিম উল্যার বাড়িতে এবং অপরগ্রুপকে নিয়ে যাওয়া হয় নজির মিয়ার বাড়ীর পুকুর পাড়ে। দু’গ্রুপের লোকজনকেই সারিবদ্ধ করে হাত বেঁধে লাইনে দাঁড় করিয়ে টানা গুলিবর্ষণ করা হয়। এসময় রহিম উল্যাহর বাড়িতে লাইনে দাঁড়ানো ৫ জন নিজেকে পাক বাহিনীর সমর্থক বলে দাবী করে প্রানভিক্ষা চায়। স্থানীয় এক রাজাকার আত্বীয় পরিচয় দিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়ার সুপারিশ করলে শ্রীরামসি বাজার আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়ার শর্তে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। অবশ্য মুক্তি পাওয়ার পর তারা গ্রামছেড়ে সটকে পড়েন। এছাড়াও পাকবাহিনীর বন্ধনমুক্ত হয়ে পালিয়ে বাঁচেন শ্রীরামসি গ্রামের হুশিয়ার আলী, ডা: আব্দুল লতিফ, জওয়াহিদ চৌধুরী। পাকবাহিনীর টানা গুলিবর্ষনে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে যারা সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে গিয়েছিলেন তাঁরা হলেন, শ্রীরামসি ডাকঘরের নৈশ্যপ্রহরী আব্দুল লতিফ, জোয়াহির চৌধুরী (গদাভাট) ছফিল উদ্দিন (দিঘীরপাড়) তপন চক্রবর্তী (নিহত তহশীলদারের ভাই)আমজাদ আলী,ইলিয়াছ আলী এলকাছ আলী, সুন্দর আলী প্রমুখ।
আর যারা শহীদ হয়েছিলেন তাঁরা হলেন, শ্রীরামসি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ছাদ উদ্দিন, বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক (হেড মাওলানা) মৌলানা আব্দুল হাই, তহশীলদার সত্যেন্দ্র নারায়ন চৌধুরী সহকারী তহশীলদার এহিয়া চৌধুরী, সৈয়দ আশরাফ হোসেন পোষ্ট মাষ্টার) আব্দুল বারি (ইউ.পি সদস্য) ফিরোজ মিয়া (প্রবাসী কাদিপুর) এখলাসুর রহমান(দিঘীরপাড়), সামছু মিয়া(সাতহাল) ওয়ারিছ মিয়া (সাতহাল), আব্দুল জলিল(সাতহাল), মানিক মিয়া(সাতহাল) ছুয়াব মিয়া(সাতহাল),আব্দুল লতিফ(সাতহাল) রইছ উল্যাহ(সাতহাল), দবির মিয়া(আব্দুল্লাহপুর) মরম উল্যাহ(গদাভাট) মমতাজ আলী(রসুলপুর),আব্দুল মজিদ(রসুলপুর), নজির মিয়া(রসুলপুর),মজিদ মিয়া(রসুলপুর), সুনু মিয়া (রসুলপুর) আব্দুল মান্নান(শ্রীরামসি বাজার) অজ্ঞাত পরিচ দর্জি(রসুলপুর)ছামির আলী (পশ্চিম শ্রীরামসি) রুপু মিয়া(শ্রীরামসি)রুস্তম আলী(শ্রীরামসি)আছাব মিয়া(শ্রীরামসি)তৈয়ব আলী(শ্রীরামসি)রোয়াব আলী,তোফাজ্জল আলী,মছদ্দল আলী(শ্রীরামসি)শহীদ অজ্ঞাত পরিচয় শিক্ষক (শ্রীরামসি মডেল প্রাইমারি স্কুল) শহীদ অজ্ঞাতনামা পোষ্ট মাষ্টার(শ্রীরামসি ডাকঘর) অজ্ঞাতনামা ডাক পিয়ন(শ্রীরামসি ডাকঘর)অজ্ঞাতনামা দোকান সহকারী(শ্রীরামসি বাজার) আব্দুল মান্নান (হবিবপুর) শহীদ নুর মিয়া, জহুর আলী। এ হত্যাযজ্ঞে ১২৬ জন লোককে সেদিন গুলি করে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। পরে স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় পাকহানাদার বাহিনী শ্রীরামসি বাজারে গিয়ে কেরোসিন ছিটিয়ে সবকটি দোকানঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়। শ্রীরামসি গ্রামে ঢুকে বাগি বাড়ি গিয়ে জনমানব শুন্য ঘরবাড়িতে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ চালায়। দাউ দাউ করে জ্বলে শ্রীরামসি গ্রাম ও শ্রীরামসি বাজার। শ্রীরামসি গণহত্যায় নিহতদের মৃতদেহ পুরোগ্রামে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে। জনমানবশুন্য গ্রামে শিয়াল কুকুর লাশগুলো নিয়ে টানাটানি করে। ৪/৫ দিন পর কেউ কেউ গ্রামে এসে মরদেহগুলো একত্রে করে এক এক গর্তে পুঁতে রাখেন। ইতিহাসের বর্বর এই গণহত্যার খবর নয়াদিল্লী থেকে তৎকালীন বিবিসি সংবাদদাতা বেতারযোগে বিশ্ববাসীকে জানান। দেশ স্বাধীনের পর মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক এম এ জি ওসমানী শ্রীরামসি গণহত্যার স্থান পরির্দশন করেন। ১৯৮৬ সালে মুক্তিযোদ্ধাদের দাবীর প্রেক্ষিতে শ্রীরামসি শহীদের স্মরণে তৎকালীন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবু খালেদ চৌধুরীর সহায়তায় নির্মাণ করা হয় একটি স্মৃতিফলক। ওই ফলকে লেখা আছে প্রাপ্ত শহীদের নাম পরিচয়। ১৯৮৭ সালে শ্রীরামসি গ্রামবাসী শহীদ স্মৃতি সংসদ নামে একটি সংগঠন গঠন করে ৩১ আগষ্ট শ্রীরামসি গণহত্যার দিবসকে আঞ্চলিক শোক দিবস হিসেবে পালন করতে শুরু করেন। এখন পর্যন্ত শহীদ স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে আঞ্চলিক শোক দিবস পালিত হচ্ছে। তবে শ্রীরামসি গ্রামের যে দুই বাড়িতে গণহত্যা হয়েছিল। তন্মেধ্যে শ্রীরামসি রসুলপুর গ্রামের রহিম উল্যাহর বাড়িতে নির্মাণ করা হয় স্মৃতিসৌধ। তবে রহিম উল্যাহর বাড়িটি একটি খালের কারণে বিশ্বনাথ উপজেলায় অর্ন্তভুক্ত হয়। স্মৃতি সৌধের ডিজাইনার সিরাজ উদ্দিন মাষ্টার বলেন, চেতনা থেকে ব্যক্তিউদ্যোগ এ কাজ করা হয়েছে। যে বাড়ীতে ঘটনাটি ঘটেছে তাদের আর্থিক অনুদানে কাজ করা হয়েছে। পরবতীতে জেলা পরিষসহ অনেকেই এগিয়ে এসেছেন। তিনি জানান,
জগন্নাথপুর উপজেলায় অন্তুভূক্ত শ্রীরামসি রসুলপুর গ্রামের নজিব উল্যাহর বাড়িতে আজ অবধি হয়নি কোন স্মৃতিসম্ভ। ওই গণ্যহত্যায় নজিব উল্যাহ নিজেও শহীদ হয়েছিলেন।
১৯৮৭ সাল থেকে শ্রীরামসি গণহত্যা দিবসকে প্রতি বছর আঞ্চলিক শোক দিবস হিসেবে পালন করে আসছে শহীদ স্মৃতি সংসদ শ্রীরামসি নামের একটি সামাজিক সংগঠন।
যার ধারাবাহিকতায় এবারও পালিত হবে আঞ্চলিক শোক দিবসের কর্মসূচী। শহীদ স্মৃতি সংসদের সভাপতি জুয়েল আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুব হোসেন জগনাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, এবারও আমরা স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন, আলোচনাসভা ও মিলাদ মাহফিলসহ নানা কর্মসূচী গ্রহণ করেছি। এতে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান,পিএসসির চেয়ারম্যান ড.মোহাম্মদ সাদিকসহ বরণ্য অতিথিবৃন্দ উপস্থিত থাকবেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24