সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:৫৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু লজ্জা শুধু নারীরই নয়, পুরুষেরও ভূষণ জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস আজ

সংবাদ সন্মেলন- জগন্নাথপুর এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীকে বন্দোবস্তকৃত ঘর থেকে দেড়ঘন্টার নোটিশে উচ্ছেদের অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১২ জুন, ২০১৭
  • ৩২ Time View

: জগন্নাথপুরে এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর বন্দোবস্তকৃত ঘর থেকে দেড়ঘন্টার নোটিশে উচ্ছেদ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকারী নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করায় ওই ব্যবসায়ী ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন বলে রবিবার বিকেলে জগন্নাথপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সন্মেলন করে দাবি জানান। সংবাদ সন্মেলনের লিখিত বক্তব্যে ব্যবসায়ী সুব্রত কুমার দাস বলেন,
আমি একজন গরীব ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। আমার শশুড় নির্মলকান্তি দাস একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। আমি আমার স্ত্রী এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে অতি কষ্টে দিনাতিপাত করিতেছি। আমার অভাব অনটন দেখিয়া আমার শশুড় বীর মুক্তিযোদ্ধার সাহায্যে জগন্নাথপুর পৌরপয়েন্ট এর দক্ষিণ পার্শ্বে এস.এ ১৭২নং জে.এল.স্থিত ইকড়ছই মৌজার ৪২৭ নং দাগের সরকার কর্তৃক ফেরী ফেরী শ্রেণী ভূক্ত ০.০০৫০ একর বাজার ভিট রকম ভূমিতে বিগত ২০০৮ইং সনে প্রথম দিকে সামান্য মাটি ভরাট ক্রমে কাচা মাল রাখিয়া দোকান দিয়া ব্যবসার মাধ্যমে আমাদের জীবিকা নির্বাহ করিতেছিলাম। তৎপ্রেক্ষিতে আমি সহকারী কমিশনার (ভূমি) জগন্নাথপুর এর নিকট অকৃষি খাস জমি বন্দোবস্তের নীতিমালায় বাজার ভীট বন্দোবস্ত পাওয়ার জন্য আবেদন করি। আমাকে সর- জমিনে দখলে পাইয়া সরকারী নিয়ম নীতির মাধ্যমে বিবিধ বাজার লাইসেন্স মোকদ্দমা নং ৩৩/২০০৮-০৯ মাধ্যমে বন্দোবস্ত প্রদান করা হয়। এবং আমি তথায় বাঁশ পালা দিয়া একটি দোকান ঘর নির্মাণ ক্রমে ব্যবসা পরিচালনা করিয়া সন সন সরকারী খাজনা পরিশোধ করিয়া আসিতেছিলাম। ইহাতে আমার সংসার না চলায় আমার মাতা উষা রাণী দাস এর নামে আমার নিজ নামে বন্দোবস্তকৃত ভূমির পার্শ্বে বিবিধ বাজার লাইসেন্স মোকদ্দমা নং ৫৭/২০১২-১৩ইং মুলে সরকারী নিয়ম নীতি অনুসারে আরেকটি বন্দোবস্ত নেই। উক্ত দুইটি দোকানে ব্যবসা পরিচালনা করা অবস্থায় প্রায়ই আমার ঘরের মালামাল চুরি হইয়া থাকে এবং বিগত দু সপ্তাহ আগে প্রচন্ড ঝড়ে ঘর দুইটি ভাঙ্গিয়া পড়িলে আমি মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হইয়া পড়ি। গত ১৮ মে আমার নামীয় বন্দোবস্তের এবং আমার মাতার নামীয় বন্দোবস্তের খাজনা,টেক্স পরিশোধ করিয়াছি। সেহেতু আমাদের ঘর দুইটি ভাঙ্গিয়া গিয়াছে তাই আমি সহকারী কমিশনার ভূমি অফিসের কতিপয় কর্মচারী নিকট যোগাযোগ করলে তারা আমাকে ভিটা দুইটির উপর আধাপাকা টিনের ছানীযুক্ত ঘর নির্মাণের পরামর্শ দেন। ভুমি অফিসের কর্মচারীদের পরামর্শে আমার পরিচিত জনদের নিকট হইতে ঋণ করিয়া টাকা পয়সা আনিয়া উক্ত দুইটি দোকান ভিটায় হালকাপাকা পিলার দিয়া সামান্য ইটের গাথুনীতে ঘর উঠাইয়া ছিলাম।
মঙ্গলবার দুপুরে স্থানীয় তহশিলদার সরজমিনে আসিয়া ঘরের কাজ বন্ধ করার জন্য অনুরোধ করিলে আমি সাথে সাথে কাজ বন্ধ করিয়া দেই। হঠাৎ করে গতকাল রোববার দুপুর ১২টার সময় ভুমি অফিসের জনৈক কর্মচারী আব্দুল হক দুইখানা নোটিশ একখানা আমার নামে এবং আরেকখানা আমার মায়ের নামের নোটিশ আমাকে দোকানের পাশে পাইয়া উক্ত দুইখানা নোটিশ ধরাইয়া দিয়া রিসিভ কপিতে স্বাক্ষর নিয়া নেন।
তবে আমাকে স্বাক্ষরের পাশে তারিখ সময় বসাইতে দেন নাই। পরে আমি দেখতে পাই নোটিশ গুলো ৮ জুনের ইস্যু করা। নোটিশ রিসিভ করার ঠিক দেড় ঘন্টা পর কতিপয় রাজমিস্ত্রি ও শাহজাহান মিয়া এবং ভূমি অফিসের তহশীলদার দোকান ঘরে আসিয়া আমাকে কোন কিছু না জানাইয়া দোকান ঘরের ইট এবং পাকা পিলার ভাঙ্গিয়া ধুলিসাৎ করিয়া দিয়া চলিয়া যায়। এতে আমি আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হই। সম্প্রতি উক্ত ঘরদুটি মির্জা আবুল কাশেম স্বপনের মালিকানাধীন উল্লেখ করে
জগন্নাথপুরের কথিত সংবাদকর্মী শাহজাহান মিয়া আমাদেরকে দোকান ভিটা হইতে উচ্ছেদ করার দূরভিসন্ধি মুলকভাবে উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে আর্থিক লাভবান হওয়ার আশায় মনগড়া মিথ্যা প্রচার করিয়া ধ্রুমজালের সৃষ্টি করিয়াছেন। প্রকৃুত পক্ষে মির্জা আবুল কাশেম স্বপন উক্ত ঘর দুইটির মালিক নন বা উক্ত ঘর দুটির সাথে তার কোন সম্পৃক্ততা নাই। তারপরও মির্জা আবুল কাশেম স্বপনকে জড়াইয়া মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করিয়া আমি গরীব সংখ্যালঘু মানুষের মারাত্মক ক্ষতি সাধন করিয়াছেন। ভুমি অফিসের কতিপয় কর্মচারী ভূল বুঝাইয়া সেমি পাকা ঘর তুলিতে উৎসাহিত করিয়া আমাকে ক্ষতিগ্রস্থ করায় আমি সামজিকভাবে আমাকে হেয় প্রতিপন্ন এবং মারাত্মক আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। সংবাদ সন্মেলনে সুবিচারের প্রত্যাশা করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24