শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:২৭ অপরাহ্ন

সব গেল লতিফ সিদ্দিকীর এবার সংসদ থেকে পদত্যাগ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ৭০ Time View

সংসদ রিপোর্টার:: ইসলাম ধর্ম নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে মন্ত্রিত্ব ও আওয়ামী লীগের সদস্যপদ হারানো আবদুল লতিফ সিদ্দিকী আকস্মিকভাবেই মঙ্গলবার সংসদ অধিবেশনে যোগ দেন। অধিবেশনে সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা দিয়েই তিনি স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন। পদত্যাগের পর তিনি বলেন, আমার বক্তব্যে দেশবাসী কোনো কিছু মনে করলে নতমস্তকে ক্ষমা চাই। ২৩ আগস্ট নির্বাচন কমিশনে গিয়ে নিজেই সংসদ সদস্যপদ থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে অধিবেশন কক্ষে ঢোকেন টাঙ্গাইল-৪ আসনের আওয়ামী লীগদলীয় এ সংসদ সদস্য। এরপর স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর অনুমতি নিয়ে বক্তৃতা দেন তিনি। এ বক্তৃতায় হজ নিয়ে নিজের বক্তব্যের ব্যাখ্যা তুলে ধরেন আবদুল লতিফ সিদ্দিকী। বক্তৃতার শেষ পর্যায়ে সংসদ সদস্যপদ থেকে পদত্যাগের সিদ্ধান্তের কথা জানান লতিফ সিদ্দিকী। প্রবীণ এ রাজনীতিবিদ এ সময় স্পিকারের উদ্দেশে তার পদত্যাগপত্রটি অধিবেশনে পড়ে শোনাবেন কিনা জানতে চাইলে ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, তার প্রয়োজন নেই।
বক্তৃতায় আবদুল লতিফ সিদ্দিকী নিজেকে ইসলামের পূর্ণ অনুসারী বলে দাবি করে বলেন, ‘আমি মুসলমান, বাঙালি ও আওয়ামী লীগার।’ সংসদে দেয়া লিখিত বক্তব্যে তিনি দলের প্রতি আনুগত্য প্রকাশের কথা উল্লেখ করেন। আবদুল লতিফ সিদ্দিকী বলেন, এর আগেও তিনি স্কুল-কলেজ জীবনে চারবার বহিষ্কৃত হয়েছিলেন। দল থেকে এর আগেও বহিষ্কারের শিকার হয়েছেন দুই বার। তবে দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের জন্য নয়। দলের ভেতরে অনিয়ম ও দুর্বল নেতৃত্বের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হওয়ার কারণে। সংসদে দেয়া বক্তব্যে আবদুল লতিফ সিদ্দিকী দেশবাসীর কাছে ক্ষমাও প্রার্থনা করেন। তিনি বলেন, ‘ধর্মান্ধ মৌলবাদী গোষ্ঠী ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে আমাকে হেয় করেছে। একই সঙ্গে আমাকে সরকারের প্রতিপক্ষ বানাতে ধর্মকে ব্যবহার করা হয়েছে।’ প্রবীণ এ রাজনীতিবিদ আরও বলেন, আমি মুসলমান, আমি বাঙালি, আমি আওয়ামীলীগার। এ পরিচয় মুছে দেয়ার মতো শক্তি পৃথিবীর কারও নেই। কিন্তু জীবনের শেষ প্রান্তে এসে আমার ধর্ম কুঠরিতে আলোড়ন আন্দোলন দেখা দিয়েছে। আমি বলতে চাই, আমি ধর্মবিরোধী নই। আমি সাচ্চা মুসলমান, ধর্ম অনুরাগী। যে ফরজ একবার করার কথা বলা হয়েছে, সে হজ আমি নিজেও করেছি। যারা ফরজ তরক করে সুন্নত মুস্তাহাব নিয়ে ছুটে তাদের সঙ্গে আমার ভিন্নতা রয়েছে।’ রাজনৈতিক জীবনে এখনও যেমন বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে লালন করছেন ভবিষ্যতেই এর ব্যতিক্রম হবে না দাবি করে আবদুল লতিফ সিদ্দিকী তার বক্তব্যে আরও বলেন, সবার আগে ঠিক করতে হবে রাজনৈতিক সংস্কৃতি কি হবে। বাঙালি আত্মপরিচয়ের সড়ক ঘোষণায় স্কুল ও কলেজ জীবনে চারবার বহিষ্কার হতে হয়েছে। তিনি ইসিকে দেয়া স্পিকারের চিঠি সম্পর্কেও প্রশ্ন তুলেন। তবে তিনি শেষ বেলায় কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ করবেন না বলে ঘোষণা দেন। বক্তব্যের শেষে আবদুল লতিফ সিদ্দিকী তার পদত্যাগের চূড়ান্ত ঘোষণা দেন। তবে তিনি কাউকে দোষারোপ করেননি। বরং তার আচরণে দেশবাসী কোনো কিছু মনে করলে নতমস্তকে ক্ষমা চান।
দশম জাতীয় সংসদের অধিবেশন শুরু হলে মাগরিবের নামাজের বিরতির পর সন্ধ্যা ৭টায় অধিবেশন কক্ষে ঢোকেন আবদুল লতিফ সিদ্দিকী। কারও সঙ্গে কোনো কথা না বলে সামনের সারিতে থাকা নিজের আসনে গিয়ে বসেন তিনি। আবদুল লতিফ সিদ্দিকী ঢোকার সময় বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্তের বিপক্ষে বক্তব্য রাখছিলেন। তবে এ সময় সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত ছিলেন না।
নিজ আসনে বসার পর প্রথমে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়ানোর জন্য স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করলেও সাড়া পাননি আবদুল লতিফ সিদ্দিকী। এ সময় তাকে উদ্দেশ করে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, ‘মাননীয় সদস্য, আপনি একটু পরে কথা বলেন।’ এর কিছুক্ষণ পর স্পিকারের অনুমতি নিয়ে বক্তব্য শুরু করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলী ও প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে বাদপড়া এই সদস্য।
অধিবেশন কক্ষে ঢোকার আগে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে স্পিকার ড. শিরীন শারমিনের সঙ্গে তার জাতীয় সংসদ ভবনের কার্যালয়ে গিয়ে দেখা করেন আবদুল লতিফ সিদ্দিকী। তিনি (আবদুল লতিফ সিদ্দিকী) অধিবেশন কক্ষে যাবেন কিনা- তখন জানতে চাইলে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘কেন যেতে পারবেন না? উনি তো এমপি।’ স্পিকারের সঙ্গে দেখা করেই অধিবেশন কক্ষে প্রবেশ করেন আবদুল লতিফ সিদ্দিকী।
গত বছরের ২৮ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে টাঙ্গাইল সমিতির সঙ্গে মতবিনিময় সভায় লতিফ সিদ্দিকী হজ, তাবলিগ জামাত, প্রধানমন্ত্রীর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় ও সাংবাদিকদের সম্পর্কে বিতর্কিত মন্তব্য করেন। এরপর প্রথমে মন্ত্রিসভা থেকে এবং পরে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে বহিষ্কার করা হয় তাকে। ওই সময়ে দেশের বিভিন্ন আদালতে তার নামে একাধিক মামলাও হয়। যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও ভারত হয়ে ওই বছরের ২৩ নভেম্বর পরোয়ানা মাথায় নিয়ে দেশে ফেরেন সাবেক এ মন্ত্রী। পরে ২৫ নভেম্বর ধানমণ্ডি থানায় আÍসমর্পণ করলে তাকে জেলহাজতে পাঠান আদালত। ২৯ জুন জামিনে মুক্তি পান তিনি।
১৩ জুলাই লতিফ সিদ্দিকীর সংসদ সদস্যপদ বাতিলের জন্য জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীকে আওয়ামী লীগের পক্ষে চিঠি দেন দলটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। চিঠিতে বলা হয়, ২০১৪ সালের ২৪ অক্টোবর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় গঠনতন্ত্র অনুসারে লতিফ সিদ্দিকীকে দল থেকে চূড়ান্তভাবে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয়। যেহেতু আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য পদও নেই, সেহেতু এ দলের মনোনয়নে নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য পদেও তাকে বহাল রাখা সমীচীন হবে না।
এরপর আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদকে চিঠি দেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। ওই চিঠির সঙ্গে সৈয়দ আশরাফের চিঠিটিও যুক্ত করেন স্পিকার। চিঠিটি পাওয়ার পর ইসি আওয়ামী লীগ ও লতিফ সিদ্দিকীর কাছে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা চান। ২৩ আগস্ট ইসির শুনানিতে উপস্থিত হন আবদুল লতিফ সিদ্দিকী। এ সময় তিনি নিজে স্বেচ্ছায় সংসদ সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করবেন বলে জানান। মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে গিয়ে বক্তব্য দেয়ার পর স্পিকারের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন বহুল আলোচিত এ রাজনীতিক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24