সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:০৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু

সভাপতি পদে থাকতে চান না হাসিনা, রাখতে চান নেতারা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৬
  • ৪২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::থাকতে না চাইলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেই ‘আজীবন’ দলের সভানেত্রী হিসেবে চান আওয়ামী লীগের নেতারা। তাঁদের মতে, সরকার এবং দল চালাতে শেখ হাসিনা এখন দৃষ্টান্ত। তাঁর নেতৃত্বের বিকল্প নেই। গতকাল শনিবার এক বৈঠকে এমন কথা বলেছেন দলটির নেতারা।

আওয়ামী লীগের দুজন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও একজন উপদেষ্টা বলেন, একটি দলের প্রধান যিনি হবেন, তাঁর প্রধান যোগ্যতা হতে হবে দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখা। সর্বস্তরের নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের তাঁকে মানতে হবে। এই মুহূর্তে আওয়ামী লীগে এমন যোগ্যতাসম্পন্ন কেবল শেখ হাসিনাই আছেন। তাই তাঁর থাকতে চাওয়া না-চাওয়াটা এখানে বিষয় নয়। দলের জন্যই তাঁকে আবারও সভাপতি থাকতেই হবে।

তবে ওই নেতারা এ-ও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার থাকতে না চাওয়ার বিষয়টির তাৎপর্য নেই তা নয়। বরং এটা স্পষ্ট যে তিনি ভবিষ্যতের জন্য বিকল্প কারও হাতে দলের হাল ছেড়ে দেওয়ার কথা ভাবছেন। এটা দলের জন্যও ভালো। ওই নেতাদের মত হচ্ছে, আরও অন্তত ১০ বছর শেখ হাসিনাকেই সভানেত্রী পদে থাকতে হবে। এই সময়ের মধ্যে বিকল্প কাউকে ওই পদের জন্য তৈরি করা হবে।

গতকাল শনিবার রাতে গণভবনে আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সভায় প্রধানমন্ত্রী যখন সভানেত্রী পদে না থাকার কথা বলেন, তখন প্রায় সব নেতাই এর বিরোধিতা করেন। অনেকে মুখে না বললেও মাথা নেড়ে না সূচক ইঙ্গিত দেন।

সভায় জাতীয় কমিটির খুলনা জেলার সদস্য চিশতি সোহরাব হোসেন প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আপনি দলে না থাকতে চাইতেই পারেন। আমাদেরও অধিকার আছে আপনাকে ধরে রাখার। আওয়ামী লীগ আপনার হাতেই নিরাপদ।’

আওয়ামী লীগের ২০তম জাতীয় সম্মেলনে যে ঘোষণাপত্র করা হচ্ছে, সেখানেও ‘নেতৃত্বের কারিশমা-আওয়ামী লীগের প্রধান সম্পদ জননেত্রী শেখ হাসিনা’ নামে একটি অনুচ্ছেদ রাখা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, ‘শেখ হাসিনা দেশকে মর্যাদা ও সম্মানে বিশ্ব পরিমণ্ডলে এক অনন্য উচ্চতায় তুলে ধরেছেন। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের শক্তি ও সম্পদ দুটোই।’ এরপরেই প্রধানমন্ত্রীর পাওয়া সব পুরস্কারের কথা ঘোষণাপত্রে তুলে ধরা হয়েছে।

১৯৮১ সালের ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ত্রয়োদশ সম্মেলনে শেখ হাসিনা প্রথমবার সভানেত্রী নির্বাচিত হন। এরপরের সম্মেলনগুলোতে তাঁর কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় টানা ৩৫ বছর দলের সভানেত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ২২ ও ২৩ অক্টোবর অনুষ্ঠেয় আওয়ামী লীগের ২০তম সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর বোন শেখ রেহানা, তাঁর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়, মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ হোসেন, ভাগনে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক, জামাতা খন্দকার মাশরুর হোসেন বিভিন্ন জেলা ইউনিটের কাউন্সিলর হিসেবে সম্মেলনে যোগ দেবেন। তাঁদের মধ্যে কেউ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে আসবেন কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে দলটির দুজন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য প্রথম আলোকে বলেন, কাউন্সিলর হওয়ার অর্থ কমিটিতে অন্তর্ভুক্তি নয়। তাঁরা সবাই নিজ নিজ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত। কেন্দ্রীয় কমিটিতে তাঁদের অন্তর্ভুক্তি দলের জন্য সম্মানজনক। তবে কেন্দ্রীয় কমিটিতে তাঁরা আসবেন কি না, এটা সম্পূর্ণ সভানেত্রীর ওপর নির্ভর করছে। সুত্র প্রথম আলো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24