বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:৪৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে প্রশাসনের উদ্যোগে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবসে র‍্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বৈধ কাজগপত্র না থাকায় ১২টি মোটরসাইকেল চালককে জরিমানা জগন্নাথপুরে বিভিন্ন কর্মসুচির মধ্যে দিয়ে নিরাপদ সড়ক দিবস পালন জগন্নাথপুরে দু’পক্ষের বিরোধে বলীর শিকার শিশু সাব্বিরের খুনীরা এখনও ধরা পড়েনি জগন্নাথপুরে ৬০ কৃষক কৃষাণীদের প্রশিক্ষণ প্রদান জগন্নাথপুরে সনাক্তকারী ‘বহিরাগতদের’ বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন প্রাণের চেয়েও প্রিয় মহানবী (সা.) সুনামগঞ্জে আ.লীগ নেতার ছেলে পিটালেন ডাক্তারকে সুনামগঞ্জ পৌর শহরে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে আহত ৩ জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠানের উদ্যাগে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান

সারেন্ডার করুন তা না হলে সরকার আদালতের নির্দেশ পালনে বাধ্য হবে-খালেদা জিয়ার উদ্দেশে-প্রধানমন্ত্রী

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৫ মার্চ, ২০১৫
  • ৮২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উদ্দেশে বলেছেন, সারেন্ডার করুন তা না হলে সরকার আদালতের নির্দেশ পালনে বাধ্য হবে। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার পরোয়ানার প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আদালতই বিএনপি চেয়ারপারসনের আসল জায়গা। আর যারা সরকারপ্রধান (প্রধানমন্ত্রী) থাকেন, তাদেরই প্রথমে আইন মানতে হবে। শনিবার ঢাকার কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে পেশাজীবীদের মহাসমাবেশে শেখ হাসিনা এ আহ্বান জানান।
চলমান পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে খালেদা জিয়ার সংলাপের প্রস্তাব আবারও নাকচ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি প্রশ্ন উত্থাপন করে বলেন, যার হাতে মানুষের পোড়া গন্ধ, যে মানুষকে মানুষ হিসেবে গণ্য করে না, যে জঙ্গিদের নেত্রী, তার সঙ্গে কিসের সংলাপ? শেখ হাসিনা দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, খালেদা জিয়া যে কষ্ট দিচ্ছে, তা যেন তাড়াতাড়ি শেষ হয়, তার জন্য যা যা করার তা করব। বিএনপি-জামায়াত জোটের অগ্নি-পেট্রলবোমা-জঙ্গিবাদ সন্ত্রাস, মানুষ হত্যা ও জাতীয় উন্নয়ন-অর্থনীতি-শিক্ষা ধ্বংসের প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত এই মহাসমাবেশে সভাপতিত্ব করেন পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের সভাপতি বিচারপতি এএফএম মেসবাহ্উদ্দীন। মহাসমাবেশ পরিচালনা করেন সংগঠনের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান। মহাসমাবেশের শুরুতে একটি প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।
মহাসমাবেশে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মাহবুবে আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি আআমস আরেফিন সিদ্দিক, অধ্যাপক ডা. মাহমুদ হাসান, কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশনের সভাপতি সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আফম বাহাউদ্দিন নাছিম, বঙ্গবন্ধু প্রকৌশল পরিষদের সভাপতি হাবিবুর রহমান এবং চট্টগ্রাম বিভাগ থেকে সংগঠনের চট্টগ্রাম শাখার সভাপতি একিউএম সিরাজুল ইসলাম এবং ঢাকা বিভাগ থেকে ময়মনসিংহ শাখার সভাপতি আইনজীবী আনিসুর রহমান খান বক্তৃতা করেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহাসমাবেশস্থল কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশনে আসেন বেলা ১১টা ৮ মিনিটে। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শেখ হাসিনা বক্তৃতা শুরু করেন বেলা পৌনে ১টায়। তার বক্তব্য শেষ হয় ১টা ৪০ মিনিটে। প্রায় এক ঘণ্টার এ বক্তৃতায় শেখ হাসিনা বিএনপির চলমান নাশকতা, জনদুর্ভোগ, মানুষ হত্যা এবং সর্বশেষ শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে দেয়া খালেদা জিয়ার বক্তব্য খণ্ডন করেন।
বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের লাগাতার হরতাল-অবরোধে নাশকতায় শতাধিক মানুষের প্রাণহানির জন্য খালেদা জিয়াকে সরাসরি দায়ী করেন শেখ হাসিনা। শুক্রবারের সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়া সরকারকে উদ্দেশ করে যে বক্তব্য দিয়েছেন, তা ‘মিথ্যা’ বলে মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা। এ সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী হাসতে হাসতে বলেন, আজ যদি হিটলারের গোয়েবলস (প্রচার মন্ত্রী) বেঁচে থাকতেন, তাহলে তিনি লজ্জা পেতেন। তিনি এতটাই বিস্মিত হতেন যে বলতেন, ‘ওরে বাপরে এ (খালেদা জিয়া) দেখি আমার মা।’
৫ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে খালেদা জিয়াকে টেলিফোন করে প্রত্যাখ্যাত হওয়া এবং আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুর পর সমবেদনা জানাতে তার কার্যালয়ে গিয়ে ফিরে আসার ঘটনা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ফোন করলে গালি শুনব। উনার (খালেদা জিয়া) ছেলে মারা যাওয়ার পর দেখা করতে গেলে কেউ গেট খুলল না। সংলাপ কী বাতাসে হবে? এ সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমি বঙ্গবন্ধুর মেয়ে, আমি সরকারপ্রধান। আমাকে ঢুকতে দেয়া হল না। এজন্য আমি ব্যবস্থা নিতে পারতাম। কিন্তু কুকুর কামড়িয়েছে। কুকুরকে তো আমি কামড়াতে পারি না।’
শেখ হাসিনা বলেন, জনগণের জীবন নিয়ে কেন এই ছিনিমিনি খেলা? আমি বেঁচে থাকতে জনগণের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে দেব না। সহিংসতার বিরুদ্ধে জনগণের সচেতনতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, জনগণের চোখ খুলে গেছে। ২০ দলের কর্মসূচিতে জোটের নেতাকর্মীদের অনুপস্থিতি এবং দেনদরবার সত্ত্বেও আন্দোলনে বিদেশীদের সমর্থন না পাওয়ার প্রসঙ্গ তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেন, না উত্তর, না দক্ষিণ- কেউ সাড়া দেয়নি। আন্দোলনে ব্যর্থ হয়েছে। জনসমর্থন জোগাড় করে আন্দোলন করতে পারেনি। তার হরতাল তো তার দলের নিজের লোকরাই মানেন না। তাদের কলকারখানা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, গার্মেন্ট সব খোলা। তারা গাড়িতে চলেন। আর উনি স্বপ্নে বিভোর। তার এই মানুষ পোড়ানোকে দেশবাসী বাহবা দিচ্ছে। কেউ তার মাথায় ঢুকিয়েছে- উনি মহাকাজ করে ফেলেছেন।
বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদের নিখোঁজ রহস্যে বিএনপির হাত রয়েছে বলে ইঙ্গিত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সে (সালাহ উদ্দিন) কোথায়, তার জবাব খালেদা জিয়াকেই দিতে হবে। সে তো ডিপ আন্ডারগ্রাউন্ডে। ডিপ আন্ডারগ্রাউন্ডে থেকে একটা করে স্টেটমেন্ট দেন। আমি যেদিন গেলাম; সেদিনও জানি, সালাহ উদ্দিন সেখানে। পুলিশও তো তাকে খুঁজছে, পেলেই গ্রেফতার করা হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৮ বস্তা ময়লা যে বের করল- তার সঙ্গে সালাহউদ্দিনকে আবার পাচার করে দিল কিনা! এর জবাব খালেদা জিয়াকেই দিতে হবে।
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কার্যক্রমে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ক্ষোভের প্রতিক্রিয়ায় শেখ হাসিনা বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর ওনার এত রাগ কেন? তারা তো তাদের ওপর রাষ্ট্রের অর্পিত দায়িত্ব পালন করছে। যারাই মানুষ পুড়িয়ে মারবে, তাদের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেবে।
সজীব ওয়াজেদ জয়ের বিষয়ে তথ্য নেয়ার জন্য মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআইকে ঘুষ দেয়ার অভিযোগে প্রবাসী বিএনপি নেতার ছেলের কারাদণ্ডের রায় তুলে ধরে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার বিষয়টিও আনেন তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, আমাকে হত্যার চেষ্টা করেছে। এখন জয়ের পিছে লেগেছে, তার দোষটা কী?

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24