মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:৩২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে আ.লীগ নেতার ছেলে পিটালেন ডাক্তারকে সুনামগঞ্জ পৌর শহরে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে আহত ৩ জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠানের উদ্যাগে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান জগন্নাথপুর আ,লীগের সন্মেলন কে স্বাগত জানিয়ে সৈয়দপুর বাজারে মিছিল জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সন্মেলন ১ ডিসেম্বর জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে ফের বুধবার থেকে ধর্মঘট, এলাকায় মাইকিং জগন্নাথপুরে পৃথক দুই হত্যাকাণ্ডের থানায় মামলা জগন্নাথপুরে ভুয়া নাগরিক সনদপত্র সংগ্রহকারী ২৫ জন সনাক্ত জগন্নাথপুরে ফাঁদে পড়ে খাঁচায় বন্দি মেছোবাঘ সুনামগঞ্জে ওয়ার্ড-ইউনিয়ন সম্মেলন না করেই উপজেলা সম্মেলনের তারিখ ঘোষণায় দলের তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিক্রিয়া

সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে আগুন: ২৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারির পরোয়ানা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৭৩ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: ২০১২ সালের ৮ জুলাই রাতে সিলেটের ঐতিহ্যবাহী এমসি কলেজের ছাত্রাবাস পোড়ানোর ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) সিলেটের অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন আদালতের বিচারক উম্মে সরাবন তহুরা আসামিদের বিরুদ্ধে এ গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

এর আগে সিলেট চিফ মেট্রোপলিটন আদালতে বুধবার প্রতিবেদন দাখিল করে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি।

বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি এমসি কলেজের ছাত্রাবাস পোড়ানোর ঘটনার সাথে ২৯ জনের সম্পৃক্ততা প্রমাণ পেয়েছে । তদন্তে আরো জানানো হয়েছে ছাত্রলীগ ও ছাত্র শিবিরের বিরোধের জের ধরেই এই নাশকতা চালানো হয়।

এ তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন আদালতের বেঞ্চ সহকারী মোহাম্মদ আলী।

তিনি বলেন, ‘এমসি কলেজের ছাত্রাবাস পোড়ানোর ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি ২৯ জনের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পেয়েছে। এদের বিরুদ্ধে আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন। পরোয়ানাগুলো সংশ্লিষ্ট থানায় পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।’

প্রতিবেদনে যাদের নাম রয়েছে

তদন্তে যে ২৯ জনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে তারা হলেন, সিলেট সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও বর্তমানে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাংশু দাস মিঠু, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি পংকজ পুরকায়স্থ, আবু সরকার (শ্রমিক লীগ নেতা), জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, মৃদুল কান্তি সরকার, কামরুল ইসলাম, আলমগীর হোনে, বাবলা, আতিকুর রহমান, লায়েক আহম্মেদ, সিদ্দিক আহম্মেদ ইউসুফ, জহিরুল ইসলাম, আক্তারুল ইসলাম, জসিম উদ্দিন, আসাদুজ্জামান শাহীন, মোহাম্মদ বিন মামুন বুলবুল, আউলাদ, আছরাফ আহমেদ শিপন, নজরুল ইসলাম, অলিউল্লাহ ওরফে ওলিউর রহমান, খুরশেদ আলম, বাছিদ ওরফে আবদুল বাছিদ, আবদুস সালাম, ইমতিয়াজ রফিক চৌধুরী, আবদুল্লাহ ফারুক, কয়েছ ওরফে কয়েছুজ্জামান তালুকদার, আবু রেহান, রুবেল ও জ্যোতির্ময় দাস সৌরভ।

এ প্রসঙ্গে সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার এম এ ওয়াহাব বলেন, ‘আদালতের জারি করা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা এখনো পুলিশের হাতে পৌঁছেনি। পরোয়ানা হাতে পাওয়ামাত্র আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু হবে।’

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ৮ জুলাই রাতে ছাত্রলীগ ও ছাত্রশিবির মধ্যকার সংঘর্ষের সময় আগুনে পুড়েছিল মুরারি চাঁদ কলেজের ছাত্রাবাসের ৩টি ব্লকের ৪২টি কক্ষ। এ ঘটনায় পরদিনই সুপার বশির আহমদ বাদী হয়ে শাহপরান থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

আলোচিত এ মামলার রহস্য উদঘাটন করতে আদালতের নির্দেশে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় সিলেটের পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডিকে। সিআইডি ২০১৩ সালের ৩১ অক্টোবর আদালতে প্রথমবার চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দেয়। তবে আদালত এ প্রতিবেদন গ্রহণ না করে আবার তদন্তের নির্দেশ দেয়।

এরপর আবার তদন্ত করে সিআইডি ২০১৫ সালের ৯ আগস্ট ফের আদালতে প্রতিবেদন জমা দেয়। ওই প্রতিবেদনও আদালত গ্রহণ না করে পুলিশের একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের মাধ্যমে পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেয়।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) দুই বার ও বিশেষায়িত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) তদন্তে অপরাধী শনাক্ত না হওয়ায় আলোচিত এ মামলার ভবিষ্যৎ নিয়ে সংশয় দেখা দেয়।

পরে এ মামলার জট খুলতে গত ৩১ মে বিচার বিভাগীয় তদন্তের আদেশ দেন সিলেটের অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট উম্মে সারাবন তহুরা।

পুলিশ শুরুতে যে তদন্ত করে, তাতে ছাত্রলীগের নাম আসেনি। আর পুলিশ, সিআইডি ও পিবিআইয়ের তদন্তের পর বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

তবে সাক্ষীদের বক্তব্য, ভিডিও ফুটেজ, স্থিরচিত্র, জেলা প্রশাসন গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পর্যালোচনায় ছাত্রাবাসে আগুনের ঘটনা ছাত্রলীগ ও ছাত্র শিবিরের বিরোধের কারণেই সংঘটিত হয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে প্রতিবেদনে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘প্রথমত ছাত্রলীগের কর্মী উজ্জ্বল আহমদকে ছাত্র শিবিরের কর্মীরা গুরুতর জখম করায় তাৎক্ষণিক উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। পরে ছাত্রাবাসে অগ্নিসংযোগ করা হয়। মৌখিক ও দালিলিক সাক্ষ্য বিচার বিশ্লেষণে এটা সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত।’’

ছাত্রাবাসে আগুন দিতে গ্যালনে করে পেট্রোল ব্যবহার করা হয় বলেও জানান হয় তদন্ত প্রতিবেদনে। পরে ছাত্রাবাস কক্ষ লুটপাটও হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24