বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৫৪ পূর্বাহ্ন

সুদ মওকুফ ও নতুন ঋণপ্রাপ্তি নিয়ে ধুম্রজালে জেলার ১১ উপজেলার কৃষকরা কৃষকরা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৫ জুন, ২০১৭
  • ৬৪ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: হাওর ডুবিতে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের সরকার নতুন করে কৃষি ঋণ দেবার ঘোষণা দিলেও ব্যাংকের দেনাদাররা নতুন কৃষি ঋণ নিতে পারবেন কী-না? এই বিষয়ে সুনামগঞ্জের ব্যাংক কর্মকর্তাদের কাছে কোন নির্দেশনা আসেনি। কৃষি ঋণের সুদ মওকুফের বিষয়টিও সকল কৃষি ঋণ গ্রহিতার হবে কী-না? এটিও এখন নির্দেশনা আসেনি। সরকারী হিসাবে সুনামগঞ্জের ক্ষতিগ্রস্ত ২ লাখ ৭৭ হাজার ১৮৮ জন কৃষকের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ নির্দেশনা অনুযায়ী বিভিন্ন ব্যাংকের দেনাদার ১ লাখ ৭৩ হাজার ৬৩১ জন কৃষকই নতুন কৃষি ঋণ নিতে পারবে না। অবশ্য. ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন,‘এখনো ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের জন্য নতুন নির্দেশনা আসার সময় শেষ হয়নি।’
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সুনামগঞ্জের ২০ টি আর্থিক প্রতিষ্ঠান গত জুন মাস পর্যন্ত এক লাখ ৭৩ হাজার ৬৩১ জন কৃষককে ৩০২ কোটি ৩৮ লাখ ৫৭ হাজার টাকা কৃষি ঋণ প্রদান করেছে। কৃষি ঋণ প্রদানকারী এসব আর্থিক প্রতিষ্ঠান হচ্ছে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, বাংলাদেশ সোনালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক, ডাচ বাংলা ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, উত্তারা ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক, এবি ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, কর্মসংস্থান ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, ট্রাস্ট ব্যাংক, এনসিসি ব্যাংক ও বিআরডিবি।
এই প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে সুনামগঞ্জে সবচেয়ে বেশি কৃষি ঋণ প্রদান করেছে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক। সুনামগঞ্জ অঞ্চলে ব্যাংকটি ৯৬ হাজার ১৭৭ জন কৃষককের মধ্যে ২০১ কোটি ১৮ লাখ টাকা ঋণ প্রদান করেছে।
সরকারী একটি ব্যাংকের সুনামগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক বললেন,‘ব্যাংক ঋণ মওকুফের কোন চিঠি এখনও আমাদের কাছে আসেনি। পুরাতন ঋণ রেখে নতুন ঋণ দেওয়া যাবে কী-না, এ সংক্রান্ত কোন নির্দেশনাও পাওয়া যায়নি। তবে এখনো নতুন করে ঋণ কীভাবে দেওয়া যাতে পারে, এমন নির্দেশনা আসার সময় রয়েছে।’
একজন বেরসরকারী ব্যাংক ব্যবস্থাপক বললেন,‘এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ ব্যাংকের যে নির্দেশনা রয়েছে। পুরাতন ঋণ পরিশোধ না করে কেউ ঋণ চাইতেই পারবে না। এবার যা অবস্থা কৃষক পরিবারগুলোর খেয়ে- বেঁচে থাকার উপায় নেই। ঋণ দেবে কীভাবে? এই অবস্থায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মধ্যে দেনাদার ১ লাখ ৭৩ হাজার ৬৩১ পরিবার নতুন ঋণের জন্য ব্যাংকে আসার সুযোগই নেই।’
জেলার শাল্লা প্রেসক্লাবের সভাপতি পিসি দাস বলেন,‘ঋণ নেই এমন কৃষক শাল্লায় পেতে হলে খুঁজতে হবে। কোন না কোন ব্যাংক বা এনজিও থেকে ঋণ নিয়েছে শতকরা ৯৫ টি কৃষক পরিবার-ই।’
কৃষি ব্যাংকের সুনামগঞ্জ অঞ্চলের মুখ্য আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক অজয় কুমার সাহা বলেন,‘গত ২৪ এপ্রিলের বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনায় বলা হয়েছে রূপা আমনসহ মৎস্য চাষীদের মধ্যে কম সুদে ঋণ প্রদান করা, ঋণ আদায় কার্যক্রম স্থগিত রাখা, ঋণের পূনঃ তফসিল করা, নতুন করে সার্টিফিকেট মামলা দায়ের বন্ধ রাখা, দায়েরকৃত মামলা সোলেনামার মাধ্যমে (আপোসে) নিস্পত্তি করা। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ঋণ প্রদানে সহায়তা করা। কোন প্রকার হয়রানির শিকার যাতে কোন কৃষক না হয়, সেটি খেওয়াল রাখা। গো-খাদ্য উৎপাদনে ও বিক্রয়ে ঋণ প্রদান করা এবং গবাধিপশু পালনে ঋণ প্রদান করা।’ তিনি জানান, পুরাতন ঋণ গ্রহিতাদের ঋণ পরিশোধের মেয়াদ বাড়ানোর নির্দেশনা রয়েছে। তবে পুরাতন ঋণ রেখে নতুন ঋণ দেবার কোন নির্দেশনা আসেনি। সুদ মওকুপের বিষয়ে যাচাই-বাছাই করে যুক্তিযুক্ত হলে সুদ মওকুপ করা যেতে পারে এমন নির্দেশনা আগে থেকেই আছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24