সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:৪৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
শালুকের ঠোঁটে ফুটে বিজয় || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুর উপজেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার সম্পন্ন, ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কৃত জগন্নাথপুরে প্রবাসি সংগঠনের উদ্যেগে দরিদ্র মানুষের মধ‌্যে ত্রাণ বিতরণ দিরাইয়ে সংঘর্ষ, গুলিতে নিহত ১, গুলিবিদ্ধসহ আহত ২০ ফ্রান্স আওয়ামী লীগের উদ্যাগে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালিত ভারতীয় মুসলিমদের পাশে থাকার আহবান ভারত থেকে ৯ পণ্য আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার বাংলাদেশের সমাজ মেরামতের দায়িত্ব আলেমদের জগন্নাথপুরে ব্রিটিশ বাংলা এডুকেশন ট্রাস্টের রিসোর্স সেন্টারের কাজ পরিদর্শনে ট্রাস্টের প্রতিনিধিদল

সুনামগঞ্জজেলা আওয়ামী লীগ: দুই সদস্যের কমিটির দুই কার্যালয়!

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৮ জুন, ২০১৭
  • ৪০ Time View

মো. আমিনুল ইসলাম ::
দুই বলয়ে বিভক্ত সুনামগঞ্জ জেলা আ.লীগের কার্যালয় এখন দুইটি। কর্মসূচিগুলোও পালিত হয়ে আসছে পৃথকভাবে। একটি কার্যালয় শহরের আলফাত স্কয়ার এলাকার রমিজ বিপণিতে। আর অন্যটি শহরের উকিলপাড়া এলাকার রেজা ভবনে। জেলা আ.লীগের দুই সদস্যর কমিটির দুটি পৃথক কার্যালয় থাকায় সাধারণ নেতাকর্মীরা পড়েছেন বিব্রতকর অবস্থায়।
দলীয় সূত্র জানায়, গত বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি সম্মেলনে দীর্ঘ ১৮ বছর পর জেলা আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি গঠিত হয়। সুনামগঞ্জ সদর আসনের সাবেক সাংসদ মতিউর রহমানকে সভাপতি ও সাবেক জেলা পরিষদ প্রশাসক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমনকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নাম ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় আ.লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। যদিও এখন পর্যন্ত বিভক্তির কারণেই ঘোষিত হয়নি জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি।
কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণার পর প্রথমে কয়েকটি দলীয় কর্মসূচি পালন করতে দেখা যায় দু’জনকেই। এরপর জেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ফাটল ধরে তাদের সাময়িক এ ঐক্যে। এসময় দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার ইমন। আর স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট নির্বাচনে দাঁড়ালে তার পক্ষে অবস্থান নেন জেলা আ.লীগের সভাপতি মতিউর রহমান। মতিউর-মুকুটের সঙ্গে যোগ দেন সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য আয়ূব বখ্ত জগলুল।
বর্তমানে মতিউর রহমান-নুরুল হুদা মুকুট-আয়ূব বখত জগলুল এক বলয়ের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। অন্য বলয়ের নেতৃত্বে আছেন ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন। ইমনের সঙ্গে প্রতিমন্ত্রী ও জেলার চার এমপিও আছেন।
মতিউর-মুকুট-জগলুল বলয় শহরের রমিজ বিপণিস্থ কার্যালয় থেকে দলীয় কর্মসূচি পালন করে আসছেন। তাদের অনুসারী অঙ্গসংগঠনগুলোর নেতারাও এই অফিসে বসেন। প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, অন্যান্য এমপি ও ইমন বলয়ের নেতারা বসেন শহরের উকিলপাড়ার রেজা ম্যানশনের কার্যালয়ে। রেজা ম্যানশনে এই বলয়ের সকল কর্মসূচি পালিত হয়ে আসছে। রমিজ বিপণি ও রেজা ম্যানশনে জেলা আওয়ামী লীগের সাইনবোর্ড সাঁটানো রয়েছে।
দলীয় সূত্র আরো জানায়, কেন্দ্র থেকে দ্বন্দ্ব নিরসনের তাগিদ থাকলেও জেলার আ.লীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা এ ব্যাপারে উদ্যোগী হচ্ছেন না। বরং তারা গ্রুপিং নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। জেলার শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মধ্যে মতদ্বন্দ্ব, কোন্দল আর গ্রুপিংয়ের কারণে দিন দিন তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মধ্যে দূরত্ব বাড়ছে। শীর্ষ নেতৃবৃন্দের বিভক্তি ছেয়ে গেছে তৃণমূলেও। একে অন্যের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সভায় বিষোদগারও করেছেন। নাম উল্লেখ না করলেও তারা আকার-ইঙ্গিতে বুঝিয়ে দিচ্ছেন অনেক কিছুই।
তৃণমূল নেতাকর্মীদের সাথে আলাপ করলে তারা জানান, এক দলের দুই কার্যালয় বিষয়টি সুখকর নয়। আমরা গ্রুপিং চাই না। সামনে জাতীয় নির্বাচন। এই নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে সৃষ্ট বিরোধ যদি দ্রুত নিষ্পত্তি না হয়, তাহলে এর প্রভাব পড়বে জাতীয় নির্বাচনে। তারা বলেন, এর আগেও আমরা বিভিন্ন নির্বাচনে দেখেছি দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থীকে অবস্থান নিতে। এর ফলে ভোট ভাগাভাগি হয়ে যায়। এর সুযোগ নেয় বিরোধীপক্ষ। দ্বন্দ্ব-কোন্দলই আ.লীগের জন্য ‘কাল’ হয়ে দাঁড়ায়। দল মনোনীত প্রার্থী পরাজিত হন। ঐক্যহীনতা থাকলে দল কখনোই শক্তিশালী হতে পারে না। তাই সার্বিক দিক বিবেচনা করে জেলা আ.লীগের ঐক্যের বিকল্প আর কিছুই হতে পারে না। পাশাপাশি তৃণমূলের নেতাকর্মীরা শীঘ্রই পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের দাবি জানান।
এ ব্যাপারে জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।
ব্যারিস্টার ইমন বলয়ের নেতা সদর উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসেন জানান, জেলা আ.লীগের মূল কার্যালয় উকিলপাড়ায়। এখান থেকেই জেলা আ.লীগের সকল কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। জেলা আ.লীগের সভাপতি তো থাকে ঢাকায়। শেখ হাসিনার মনোনীত জেলা আ.লীগের সেক্রেটারি ব্যারিস্টার এনামুল কবির ইমন নেতাকর্মীদের নিয়ে উকিলপাড়ার কার্যালয় থেকেই দলীয় কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।
জেলা আ.লীগের সভাপতি মতিউর রহমান বলেন, লোকের কাছে দিনের মতোই পরিষ্কার যে রমিজ বিপণির কার্যালয়ই জেলা আওয়ামী লীগের মূল কার্যালয়। উকিলপাড়ায় কিছু লোক বসে। সেখানে একটা কক্ষে আগেও তারা বসতো। তারা এটা কি বানিয়েছে বা কেন সেখানে সাইনবোর্ড লাগিয়েছে সেটা তাদের কাছে জানুন, আমি এ ব্যাপারে কথা বলতে চাই না’।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24