বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১১:১৪ পূর্বাহ্ন

সুনামগঞ্জশহরে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিত কমেছে

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই, ২০১৯
  • ১২২ Time View

‘আতঙ্কে আছি, আমার ছেলেটাও ভয় পাইতাছে। এজন্য বাচ্চাকে ক্লাসে দিয়ে অপেক্ষা করছি ছুটির জন্য।’ শহরের সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের দিবা শাখার ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে পড়–য়া ছেলেকে বিদ্যালয়ে পৌঁছে দিয়ে এমন মন্তব্য করেন অভিভাবক রেখা ভট্টাচার্য। ছেলেধরা আতঙ্কে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে আরো অনেক অভিভাবকের সাথে বসে ছিলেন তিনি। এসময় আরেকজন অভিভাবক স্মৃতি দেব বলেন, আগে ছেলেকে স্কুলে দিয়ে বাসায় যেতাম। কিন্তু এখন সব কাজকর্ম ফেলে ছেলের স্কুলের সামনে বসে থাকতে হচ্ছে।
চারিদিকে ছেলেধরা নিয়ে যে গুজব ছড়িয়ে পড়েছে তার প্রভাব পড়েছে স্কুলে পড়–য়া শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের মধ্যে। বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী উপস্থিতি কিছুটা কমে গেছে। আতঙ্কে অনেক অভিভাবক শিশুদের নিয়ে বিদ্যালয়ে আসছেন এবং ছুটির পর নিয়ে যাচ্ছেন।
সরকারি এস.সি বালিকা উচ্চ বালিকার একজন শিক্ষার্থী শিমু বলেন, আমার বান্ধবী অনামিকা ছেলেধরা বের হয়েছে শুনে ভয়ে স্কুলে আসে নি।
কালীবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অভিভাবক স্বপ্না রানী দাশ বলেন, ‘ছেলে ধরার কথা শুইন্না ডর লাগে। এর লাগি বাচ্চাটারে একলা ছাড়ি না। সব কাম কাজ ফালাইয়া লইয়া আই যাই স্কুলে।’
শহর বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অভিভাবক তাসলিমা আক্তার বলেন, বড় মেয়েটা ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ে, তারে একা স্কুলে যাইতে দিছি না। বাসাত রাইক্কা আইছি। ছোট বাচ্চারে স্কুলে লইয়া আইয়া পুরাটা সময় বইয়া রইছি। আর একজন অভিভাবক রুবিনা আক্তার বলেন, আমিও আমার বাইচ্চাটারে লইয়া আইছি। আগে স্কুলে অনেক ছাত্র-ছাত্রী একলা আইত। কিন্তু এখন সবার লগে বাসার কেউ না কেউ আয়, সবাই ডরাইতাছে তাই ছুটির আগে আবার সবাই স্কুলে আয় নিবার লাগি।’
কালীবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা নমিতা রানী সরকার বলেন, ‘গার্জিয়ানরা অনেক আতংকিত। বাচ্চাদের একা বিদ্যালয়ে আসতে দিতে চান না তারা। নিজে নিয়ে আসেন, এসেই আবার বাসায় যাওয়ার জন্য ব্যস্ত হয়ে যান।’
রাজগোবিন্দ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রাছমিন বেগম চৌধুরী বলেন, গত রবিবার

 

সদর থানায় ছেলেধরা সন্দেহে একজনকে আটক করার খবর শুনে আতঙ্কিত হয়ে অনেক অভিভাবক বিদ্যালয়ে ছুটে আসেন। এখন সবাই তাদের বাচ্চাদের নিজে নিয়ে আসেন এবং ছুটির পূর্ব পর্যন্ত অপেক্ষা করেন।
শহর বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা নাসরিন আক্তার খানম বলেন, অভিভাবকরা আতঙ্কিত। আজ অনেক শিক্ষার্থী অনুপস্থিত রয়েছে।
সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ফয়েজুর রহমান বলেন, অভিভাবকরা অনেক আতঙ্কে আছেন। বিশেষ করে ৩য় শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা। তারা সন্তানদের নিজে বিদ্যালয়ে নিয়ে আসেন, বিদ্যালয়ে অপেক্ষা করছেন ছুটির পূর্ব পর্যন্ত। অনেক অভিভাবক শ্রেণি কক্ষের সামনে চলে আসেন নিজের সন্তানকে দেখার জন্য। এতে শিক্ষকদের ক্লাস নিতেও সমস্যা হচ্ছে ।

সুত্র-সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24