সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

সুনামগঞ্জের খবরের সংবাদ পড়ে- রোকেয়ার উচ্চ শিক্ষার স্বপ্ন পূরনে এগিয়ে এলেন ‘দি অকটিমিষ্টস’

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৭ আগস্ট, ২০১৫
  • ৭৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: এইচএসসিতে জগন্নাথপুরের জিপিএ-৫ পাওয়া হতদরিদ্র পরিবারের সংগ্রামী মেয়ে রোকেয়া বেগমের উচ্চ শিক্ষার দায়িত্ব নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক প্রবাসী বাঙ্গালীদের সেচ্ছাসেবী সেবামূলক সংগঠন দি অকটিমিষ্টস। সোমবার দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের ষ্টাফ রিপোটার অমিত দেবের সচিত্র প্রতিবেদন জগন্নাথপুরে রোকেয়ার উচ্চ শিক্ষা বন্ধ হয়ে যাবে শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হলে সুনামগঞ্জের খবরের অনলাইনে সংবাদটি পড়ে দি অকটিমিষ্টস এর সভাপতি রানা চৌধুরী সংগঠনের সুনামগঞ্জ জেলা শাখার কাছে ইমেইল পাঠিয়ে মেয়েটির উচ্চ শিক্ষার সহায়তার আগ্রহ প্রকাশ করেন। সংগঠনের দায়িত্বে থাকা গোলাম কিবরিয়ার সাথেও্ মুঠোফোনে কথা বলে তাদের আগ্রহের কথা জানান। এরপর সংগঠনের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিবেদকের সাথে যোগাযোগ করে তাদের আগ্রহের কথা জানান। দি অকটিমিষ্টসর সুনামগঞ্জ জেলা কমিটির পরিচালক অথও প্রশাসক বিশিষ্ট শিক্ষাবীদ পরিমল কান্তি দে বলেন, অদমনীয় মেধাবী রোকেয়া বেগমের সাফল্যর কথা সুনামগঞ্জের খবরের অনলাইনে পড়ে সংগঠনের সভাপতি রানা চৌধুরী মেয়েটির উচ্চ শিক্ষায় সহায়তার আগ্রহের কথা জানিয়েছেন। আমরা তাঁর এই আগ্রহকে সাধুবাদ জানিয়েছি। মেয়েটিকে দ্রুত সংগঠনের স্টুডেন্টস সন্সরশিপ গ্রোগামের ফরম পূরন করে ঢাকা অফিসে পৌঁছে দেয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে। শিক্ষাবিদ পরিমল কান্তি দে আরো জানান, যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক সেচ্ছাসেবী সংগঠন দি অকটিমিষ্ট দরিদ্র শিক্ষাথীদের নিয়ে কাজ করছে। বাংলাদেশের বিভিন্ন উপজেলায়ও কাজ চলছে। এই সংগঠনের চাইল্ড স্পন্সরশিপ পোগ্রামের আওতায় ২ সেপ্টেম্বর সুনামগঞ্জে আরো ২৫জন দরিদ্র শিক্ষাথীদেরকে সহায়তা করা হবে। সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সন্মেলন কক্ষে এই সহায়তা প্রদান করা হবে। রোকেয়া বেগমকেও সংগঠনের স্টুডেন্ট সন্সপরশিপ পোগ্রামের আওতায় সহায়তা প্রদান করা হবে। প্রসঙ্গত উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের শ্রীধরপাশা গ্রামের মেয়ে রোকেয়া শৈশব থেকে মাতৃস্নেহে বড় হয়েছে। চার ভাই বোনের মধ্যে সবার ছোট রোকেয়া বাবার আদর পায়নি। অভিমানী মা গত ১০ বছর ধরে ছেলে মেয়েদেরকে মানুষ করার ব্রত নিয়ে একাই সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। গ্রামের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে খন্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে মাত্র ১৫০০টাকা বেতনে চাকুরী নেন তিনি। সেই সাথে গ্রামের বিভিন্ন বাড়িতে গিয়ে টিউশনি করে যে টাকা মাসে আয় করেন। সেই টাকা দিয়ে ছেলে মেয়েদের পড়ালেখা ও সংসার খরচ করেন। ছেলে মেয়েরাও মায়ের সেই সংগ্রামকে বুকে লালন করে দারিদ্রতাকে জয় করে পড়া লেখায় মত্ত। তাইতো রোকেয়া এসএসসি পরীক্ষায় জগদীশপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ পায়। তার আরেক বোন সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজে বিএ অন্যায়নরত। এসএসসিতে জিপিএ পাওয়ার পর রোকেয়া শাহাজালাল মহাবিদ্যালয়ে এসে ভর্তি হয়। তার পারিবারিক অভাব অনটনের কথা জেনে অধ্যক্ষ সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিলেও রোকেয়ার সংগ্রাম শেষ হয়নি। তাকে প্রতিদিন চার কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে কলেজে আসতে হতো। যেখানে তার সহপাটিরা রিকশা কিংবা অটোরিকশা দিয়ে যাতায়াত করতেন। রোকেয়ার স্বজনরা জানান, অনেকদিন না খেয়ে কলেজে এসেছে রোকেয়া। সারাদিন আট কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে কলেজে যাওয়া আসা ও বিকেলে বাড়িতে গিয়ে মাকে কিছু সহায়তা করার মধ্যেও সে তার পড়ালেখা চালিয়ে গেছে। এযাত্রায় সে দারিদ্রতাকে জয় করে সফল হয়েছে। এখন দুশ্চিন্তা ভর করেছে কীভাবে উচ্চ শিক্ষা চালিয়ে যাবে। সামান্য বেতনে চাকুরী করা মায়ের পক্ষে কীভাবে সম্ভব সংসার চালিয়ে ছেলে মেয়েদের উচ্চ শিক্ষার খরচ জোগানো। এচিন্তায় সাফল্যর হাসি মলিন হয়ে যায় রোকেয়াদের। শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ এম এ মতিন বলেন,স্বপ্ন বিলাসী মায়ের স্বপ্নকে বাস্তবায়নে জীবনযুদ্ধে হার না মানা রোকেয়াদের উচ্চ শিক্ষা যাতে থেমে না যায় সেজন্য সমাজের বিবেকবানদের এগিয়ে আসা দরকার।
রোকেয়ার মা স্কুল শিক্ষিকা খায়রুন নেছা জানান, মেয়েটি প্রতিদিন আট কিলোমিটর হেঁটে কলেজে যাতায়াত করেছে। অভাব অনটনের সংসারের কত না পাওয়ার বেদনাকে অন্তরে লালন করে পড়ালেখা করে সফলতা এনেছে। কীভাবে উচ্চ শিক্ষা করাব এচিন্তায় মেয়ের পাশাপাশি আমার ঘুম হারাম হয়ে গেছে। তিনি মেয়ের উচ্চ শিক্ষার জন্য শিক্ষানুরাগীদের দোয়া ও সহযোগীতা কামনা করছেন। তাদের সেই আহ্বানে সাড়া দিয়ে দি অকটিমিষ্টের সভাপতি রানা চৌধুরী তার উচ্চ শিক্ষার সহায়তায় এগিয়ে এলেন। এদিকে শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ এম এ মতিন ও রোকেয়ার মা খয়রুন নেছা রোকেয়ার উচ্চ শিক্ষার সহায়তায় আগ্রন প্রকাশ করায় দি অকটিমিষ্ট ও সুনামগঞ্জের খবরকে ধন্যবাদ জানিয়ে সংশ্লিষ্টদের কাছে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24