রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯, ০৩:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে তিনটি ড্রেজার মেশিন আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস করল ভ্রাম্যমাণ আদালত প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে সিলেটে যুবলীগ নেতার রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে দুইটি মামলা দায়ের লন্ডনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আ.লীগ নেতাদের সাক্ষাৎ গণপিটুনিতে নিহত নারী ছেলেধরা ছিলেন না.৪০০ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা জগন্নাথপুরে আশার আলো ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে তিন শতাধিক বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ জগন্নাথপুরে বিপর্যস্ত যোগাযোগ ব্যবস্থা,১০ কোটি টাকার ক্ষতি, লাখো মানুষের দুর্ভোগ জগন্নাথপুরে বিদ্যুৎ স্পর্শে শিশুর মৃত্যু সুনামগঞ্জের নিরপরাধ ব্যক্তিদের মিথ্যা মামলায় জড়ানোর প্রতিবাদে মানববন্ধন যে পরিচয়ে হোয়াইট হাউসে যান প্রিয়া সাহা

সুনামগঞ্জের হাওরজুড়ে দরপতনে উৎকণ্ঠা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১ মে, ২০১৯
  • ১৯১ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
২০১৬ সুনামগঞ্জ জেলা থেকে সরকারিভাবে ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩০ হাজার ৯৭৯ মে.টন। ২০১৭ সালে হাওরডুবির কারণে ফসল না হওয়ায় সুনামগঞ্জ থেকে ধান কেনা যায়নি। ২০১৮ সালে ধান কেনা হয়েছে ৭৫০০ মে.টন। যা কৃষকদের হতাশ করে এবং পুরো হাওরাঞ্চলে ধানের দরপতন ঘটে। এবার ২০১৯ সালে সরকারি ভাবে আরও কম কেনা হবে ধান। সোমবার রাতে জেলা খাদ্য অফিসে ধান কেনার বরাদ্দের চিঠি এসেছে, তাতে বলা হয়েছে এ বছর সুনামগঞ্জ থেকে ৬৫০৮ মে.টন ধান কেনা যাবে। অর্থাৎ উৎপাদন বাড়লেও সরকার কিনবে কম। সরকারের ধান কেনার এই বরাদ্দের খবর হাওরাঞ্চলে পৌঁছালে কৃষকরা হতাশ হন। অনেকে ক্ষুব্ধ হয়ে বলেছেন,‘আগামী বছরে খাবার ধান ছাড়া, কোন ধানই উৎপাদন করবো না।’ সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর বড় গৃহস্থ বিশ্বম্ভরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বপন কুমার বর্মণ বলেন,‘উপজেলার খরচার হাওরপাড়ের গ্রাম রাধানগর। এই গ্রামে প্রান্তিক, মধ্যবিত্ত এবং উচ্চবিত্ত মিলে কৃষক আছেন ১২০ জন। উচ্চবিত্ত কৃষকদের মধ্যে অন্তত ৪-৫ জন আছেন, যারা দেড় থেকে দুই হাজার মণ ধান পান, ১০ জন আছেন কমপক্ষে হাজার মণ এবং ২০ আছেন ৫০০ মণ করে ধান পান। খাওয়ার ধান রেখে এই গ্রামের কৃষকরাই কমপক্ষে দেড় হাজার মেট্রিক ধান বিক্রি করেন। এই ইউনিয়নের ৪২ টি গ্রামের কৃষকরা ৫০ থেকে ৬০ হাজার মণ ধান বিক্রি করে থাকেন। অথচ. পুরো জেলা থেকে শুনেছি ধান কেনার সিদ্ধান্ত হয়েছে ৬৫০৮ মে.টন। এতো কম পরিমাণ ধান কেনার সরকারি সিদ্ধান্তে উদ্বিগ্ন কৃষকরা।’
স্বপন কুমার বর্মণের মতে কেবল ফতেহপুর ইউনিয়ন নয়, জেলার ৮৮ ইউনিয়নের বেশিরভাগ ইউনিয়নেই এভাবে ধান উৎপাদন হয়েছে। এই ধান কোথায় বিক্রি করবেন কৃষকরা। ধানের বর্তমান বাজার মূল্য উৎপাদন খরচের চেয়ে কম। ধানের উৎপাদন খরচ কোন কোন এলাকায় মণ প্রতি ৬০০ টাকা (কাটা মাড়াইসহ), বিক্রি করতে হচ্ছে ৫০০ থেকে সাড়ে ৫০০ টাকায়। এভাবে চলতে থাকলে কেউ আর চাষাবাদ করবে না।
দিরাই উপজেলার সরমঙ্গল ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের কৃষক, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস ছত্তার বলেন,‘আমি দেড় হাজার মণ ধান পেয়েছি, বিক্রির জন্য ক্রেতা পাচ্ছি না। ৫০০ টাকা মণ বিক্রি করতে হলেও বার বার মিলে ধরণা দেওয়া লাগে। স্থানীয় সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তাকে অনুরোধ করেছি, তিনি যাতে কৃষকদের এমন সমস্যার কথা প্রধানমন্ত্রীকে অবগত করান।’
জেলা খাদ্য কর্মকর্তা মো. জাকারিয়া মোস্তফা বলেন,‘সরকার এবার সুনামগঞ্জ থেকে ২৬ টাকা কেজিতে অর্থাৎ ১০৪০ টাকা মণে ৬৫০৮ মে.টন ধান কিনবে। ৩৫ টাকা কেজিতে আতব চাল কিনবে ১৭৭৯৮ মে.টন। ৩৬ টাকা কেজিতে সিদ্ধ চাল কিনবে ১৪১৭৯ মে.টন। ২ মে জেলা ধান ক্রয় কমিটির সভা হবে। আগামী সোম-মঙ্গলবার হবে উপজেলা ক্রয় কমিটির সভা। এরপরই ধান কেনা শুরু হবে। কীভাবে কোন পদ্ধতি কৃষকদের কাছ থেকে ধান কেনা হবে, তা ক্রয় কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত হবে। চালকল মালিকদের সঙ্গে ৬ মে চুক্তি হবে। যারা চুক্তি করবে, তারাই কেবল চাল দিতে পারবেন।’
সুনামগঞ্জে এবার দুই লাখ ২৪ হাজার ৪৪০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। হাওরে ধান কাটা শেষ পর্যায়ে। জেলায় এবার ধানের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে নয় লাখ ৭৫ হাজার মেট্রিক টন। গত বছর সরকারিভাবে সাড়ে সাতহাজার মেট্রিক টন ধান ক্রয় করা হয়েছিল। এবার চাহিদা দেওয়া হয়েছিল ৫০ হাজার মেট্রিক টন।

সৌজন‌্যে সুনামগঞ্জের খবর

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24