সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০৮:৩২ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জের ১০ উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থীদের শেষ মুহূর্তের প্রচারণা জমে উঠেছে

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৬ মার্চ, ২০১৯
  • ৬৫ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
সুনামগঞ্জের ১০ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের শেষ মুহূর্তের প্রচারণা জমে ওঠেছে। আগামী ১০ মার্চ এই উপজেলাগুলোয় নির্বাচন। নির্বাচনে দুটি উপজেলায় আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থী এবং বিএনপি’র স্বতন্ত্র প্রার্থী’র ভোটযুদ্ধ হবে। অন্য ৮ উপজেলায় লড়াই আওয়ামী লীগে-আওয়ামী লীগে। অর্থাৎ আওয়ামী লীগের মনোনীত ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বিতা জমে উঠেছে এইসব উপজেলায়।
জেলার তাহিরপুর উপজেলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জেলা আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল ও জেলা বিএনপির সহসভাপতি সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী আনিসুল হক। বিএনপি নির্বাচনে না গেলেও এখানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’তেই। নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ রয়েছে বললেন, দুই প্রার্থীই।
জেলা বিএনপির সহসভাপতি (প্রার্থী হওয়ায় দল থেকে বহিস্কারের প্রেস বিজ্ঞপ্তি গণমাধ্যমে দেওয়া হয়েছে।) আনিসুল হক বললেন,‘কে কোন রাজনীতি করে খুঁজছি না, সকলের দোয়া ও সহযোগিতা চাইছি, সবাই সহযোগিতা করছেন।’ নির্বাচনী পরিবেশ এখন পর্যন্ত সুষ্ঠু বলেই মন্তব্য করলেন তিনি।
এই উপজেলার বর্তমান চেয়ারম্যান জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান কামরুল অবশ্য দাবি করেছেন, তাহিরপুর উপজেলায় কেবল উত্তর বড়দল ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি নজরুল শাহ্ এবং উপজেলা যুবদলের একাংশের আহ্বায়ক ইউপি চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন ছাড়া অন্য কেউ নির্বাচনী প্রচারণায় নেই।
আওয়ামী লীগ প্রার্থী করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল বলেন,‘আমি আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী, দলের নেতা কর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে প্রচারণায় আছেন। আমার বিশ্বাস উন্নয়নের পক্ষেই থাকবেন তাহিরপুরবাসী। তাঁরা ১০ মার্চে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করবেন বলে মনে করছি আমি।’
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আবুল কালাম (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি ফারুক আহমদ (আনারস)’এর মধ্যেই ভোটযুদ্ধ হবে।
উপজেলা বিএনপির সভাপতি (প্রার্থী হওয়ায় দল থেকে বহিস্কারের প্রেস বিজ্ঞপ্তি গণমাধ্যমে দেওয়া হয়েছে) ফারুক আহমদ বলেন,‘স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে সকল দল ও মতের মানুষের সমর্থন নিয়েই এগুচ্ছি। নির্বাচনী পরিবেশ, আইন-শৃঙ্খলা সব কিছুই এখনো পর্যন্ত ভালই বলতে হবে।’
আওয়ামী লীগ প্রার্থী আবুল কালাম বললেন,‘দল আমার পক্ষে ঐক্যবদ্ধ আছে। আমি আশা করছি মানুষ নৌকায় ভোট দিয়ে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা করবে।’
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতা ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম তালুকদার, বিএনপি’র সাবেক উপজেলা সভাপতি (প্রার্থী হওয়ায় দল থেকে বহিস্কারের প্রেস বিজ্ঞপ্তি গণমাধ্যমে দেওয়া হয়েছে) হারুন অর রশিদ এবং আওয়ামী লীগ নেতা সফর উদ্দিনের ত্রিমুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতা জমে উঠেছে।
হারুন অর রশিদ বললেন,‘পরিবেশ ভালই রয়েছে, আশা করছি মানুষ শান্তিপূর্ণভাবে ভোট দিতে পারবে। যদি ভোট সুষ্ঠু হয়, ইনশাল্লাহ্ আমি বিজয়ী হবো।’
আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রফিকুল ইসলাম তালুকদার বলেন,‘আমার দল আমার পক্ষে ঐক্যবদ্ধ নয়। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন মুঠোফোনে নেতা কর্মীদের বলে দিচ্ছেন, আমাকে ভোট না দেবার জন্য। উপজেলা সভাপতি আমার সঙ্গে আছেন।’
আওয়ামী লীগ নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী সফর উদ্দিন বলেন,‘নির্বাচনী পরিবেশ ভালই ছিল, উত্তপ্ত করছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্ আচরণবিধি না মেনে, প্রচারণায় নেমে।’
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান বলেন,‘বিশ্বম্ভরপুরের রফিকুল ইসলামকে সোমবার স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ সভা করে দল থেকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নিয়ে আমাদের কাছে ফোন করেছেন। তাঁরা সুপারিশও পাঠাবেন বলেছেন, বিষয়টি দেখবো আমরা। নির্বাচন বিষয়ে তাঁর বক্তব্য অনেকটা ‘পাগলে কী না বলে- ছাগলে কী না খায়’ এরকম।’ তার বক্তব্যের জবাব নয়, আমরা দলীয় হাইকমান্ড, বিশেষ করে আমাদের নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উদ্ধৃতি দিয়ে দলীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের যে নির্দেশনা দিয়েছেন তা পালন করছি। নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক করা, উৎসবমুখর করা, পরিবেশ যাতে শান্তিপূর্ণ থাকে, ভোট যাতে সুষ্ঠু হয়, সেটি সংশ্লিষ্ট সকলে মানছেন কী না, তা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকসহ সকলেই আমরা খেয়াল রাখছি। অতি উৎসাহী হয়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বপ্রাপ্ত কেউ যাতে নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট না করেন, বিএনপি যে নির্বাচনে না এসে নেতিবাচক প্রচারণা দিচ্ছে, সেই প্রচারণা যে মিথ্যা তা আমরা সাধারণ মানুষকে বুঝাতে চাই। আমাদের দলের হাইকমান্ড এটাই চান।’
সংসদ সদস্য,জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক পীর ফজলুল রহমান মিসবাহ্ বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাচনের প্রচারণা নিয়ে কোন মন্তব্য করেন নি।।
অন্য ৭ উপজেলার মধ্যে জামালগঞ্জে প্রার্থী তিন জন থাকলেও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইউসুফ আল আজাদ’এর (নৌকা) সঙ্গে ভোটযুদ্ধ হবে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীম (মোটর সাইকেল)’এর।
সুনামগঞ্জ সদরে প্রার্থী ৪ জন থাকলেও আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক খায়রুল হুদা চপলের (নৌকা) সঙ্গে ভোটযুদ্ধ হবে সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি অ্যাডভোকেট মনিষ কান্তি দে মিন্টু (ঘোড়া) ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ নেতা রশিদ বখ্ত নজরুল (মোটর সাইকেল)’এর।
শাল্লা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দুই প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বিতা জমে ওঠেছে। আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী আব্দুল্লা আল মাহমুদ’এর সঙ্গে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট অবনী মোহন দাস’এর (মোটর সাইকেল) লড়াই হবে।
দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ৫ জন। কিন্তু প্রতিদ্বন্দ্বিতা জমে ওঠেছে চতুর্মুখী। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ডা. আব্দুর রহিম (নৌকা) উপজেলা আওয়ামী লীগের একাংশের আহ্বায়ক ফরিদ আহমদ তারেক (আনারস), আওয়ামী লীগ নেতা দেওয়ান তানভির আশরাফি বাবু (কাপ পিরিচ) ও বিএনপি নেতা হারুনুর রশিদ (মোটর সাইকেল)’এর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।
দিরাই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ৪ জন। এই উপজেলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে ত্রিমুখী। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ রায় (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আলতাব উদ্দিন (আনারস) ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মঞ্জুর আলম চৌধুরী (মোটর সাইকেল)’র মধ্যে লড়াই হবে ।
ধর্মপাশা উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ৪ জন। প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে দ্বিমুখী। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. শামীম আহমেদ মুরাদ (নৌকা) ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মোজাম্মেল হোসেন রোকন (ঘোড়া)’এর মধ্যে।
ছাতক উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে দুই প্রার্থীর ভোটযুদ্ধ। বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল (কাপপিরিচ) ও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফজলুর রহমান (নৌকা)’এর লড়াই জমেছে।
সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ রোববার জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় বলেছেন,‘অবাধ-সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন যাতে হয়, সেই চেষ্টা করা হবে। ভোট দেবার উপযুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে সকলকেই। সকল কার্যক্রম নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী করা হবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24