বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে প্রশাসনের উদ্যোগে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবসে র‍্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বৈধ কাজগপত্র না থাকায় ১২টি মোটরসাইকেল চালককে জরিমানা জগন্নাথপুরে বিভিন্ন কর্মসুচির মধ্যে দিয়ে নিরাপদ সড়ক দিবস পালন জগন্নাথপুরে দু’পক্ষের বিরোধে বলীর শিকার শিশু সাব্বিরের খুনীরা এখনও ধরা পড়েনি জগন্নাথপুরে ৬০ কৃষক কৃষাণীদের প্রশিক্ষণ প্রদান জগন্নাথপুরে সনাক্তকারী ‘বহিরাগতদের’ বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন প্রাণের চেয়েও প্রিয় মহানবী (সা.) সুনামগঞ্জে আ.লীগ নেতার ছেলে পিটালেন ডাক্তারকে সুনামগঞ্জ পৌর শহরে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে আহত ৩ জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠানের উদ্যাগে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান

সুনামগঞ্জের ৪ হাজার কোটি টাকার বোরো ফসল অরক্ষিত,ধীরগতিতে চলছে হাওররক্ষা বাঁধের কাজ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৯ মার্চ, ২০১৫
  • ১১৮ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা-ধীরগতিতে চলছে সুনামগঞ্জের হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধের কাজ। এর ফলে অরক্ষিত হয়ে পড়েছে ৪ হাজার কোটি টাকার বোরো ফসল। এদিকে, হাওরের ফসল রক্ষাবাধের সময়সীমা পেরিয়ে ১০ দিন অপবোরো অতিবাহিত হয়ে পড়লে হাওরপাড়ের কৃষকদেকোটি টাকার বোরো ফসলর মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। রদিকে, পিআইসি কমিটিগুলো সময় মতো বরাদ্দের টাকা না পাওয়ায় ফসল রক্ষাবাধের কাজ সময় মতো শেষ করা যায়নি বলেও জানিয়েছেন (প্রজেক্ট ইমপ্লিমেন্টেশন কামিট) পিআইসি’র সদস্যরা। সুনামগঞ্জ পাউবো জানায়, গত বছরের ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে ফসল রক্ষা বাধের কাজর শুরু করার আদেশ থাকলেও দেরীতে হাওরের পানি না কমায় এবং সংসদ সদস্যদের মনোনীত প্রতিনিধির নামের তালিকা না দেওয়ার কারণে সময় মতো হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধের কাজ শুরু করা সম্ভব হয়নি। পাউবো আরো জানায়, সংসদ সদস্যরা ফসল রক্ষাবাধের পিআইসি কমিটিতে তাদের মনোনীত সদস্যদের তালিকো দিয়েছেন গত ২৫ জনুয়ারি। এরপর বাঁধের কাজ শুরু হয়। সুনামগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা ফিরোজ আহমদ জানান, জেলার ১১টি উপজেলায় ২ লাখ ১৪ হাজার ৪৫ হেক্টর বোরো জামি আবাদের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও আবাদ হয়েছে ২ লাখ ১৮ হাজার ৫শত ৬৫ হেক্টর। তিনি আরো জানান, এ আবাদকৃত জমিতে প্রায় ২৫ লাখ ১০ হাজার মেট্রিক টন ধান উৎপন্ন হবে। যার বাজার মূল্য প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকা। দিরাই উপজেলার বকশিওরপুর গ্রামের কামরুল ইসলাম জানান, তাদের নিকটবর্তী উপজেলার টাংনির হাওরের বাধ উপজেলার কুলঞ্জর ইউনিয়নের রাড়ইল গ্রাম হতে একই উপজেলার জগদল ইউনিয়নের বকশিওরপুর ও তাড়ল ইউনিয়নের শালিয়ারগাও পর্যন্ত হাওর রক্ষা বাধের সময় সীমা ১০ দিন পেরিয়ে গেলেও এলাকায় বাধের কাজ এখনও শুরু হয়নি। শাল্লা উপজেলার কৃষক হাজী দুলদুল চৌধুরী জানান, উপজেলার বরাম ও ভান্ডা হাওরের শাশখাই বাজার থেকে কলাপাড়া বাজার পর্যন্ত বাধের নীচ থেকে এক্সকেভেট দিয়ে মাটি তোলে বাধ দেওয়ার কারণে পানির ধাক্কায় বাধ ভেঙ্গে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন। একইভাবে জেলার তাহিরপুর উপজেলার কৃষক সিরাজুল হক জানান, উপজেলার মাটিয়ান হাওরের বোয়ালিয়ার বাঁধের নীচ থেকে এক্সকেভেটর দিয়ে ঠিকাদার মাটি তোলে বাধে দিচ্ছে। ফলে পানির ধাক্কায় বাঁধটি ভেঙ্গে যেতে পরে। দিরাই উপজেলার জগদল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম জানান, ফসল রক্ষাবাধের কাজের গত বছরের পাওনা টাকা পাউবো এখন পর্যন্ত পিআইসি কমিটিকে দেয়নি। এ বছর মাত্র এক কিস্তিতে ২৫ ভাগ টাকা দিয়েছে। কিন্তু এ টাকার অভাবে পিআইসি কমিটি কাজ করানোর পর মাটি কাটা শ্রমিকদের পারিশ্রামিক দিতে পারছেনা । কোন কোন পিআইসি এলাকার কৃষকদের চাপে নিজের পকেট থেকে টাকা দিয়ে কাজ করছে। তিনি অরো জানান, তার এলাকার বাধের কাজ ৫০ ভাগের উপর সম্পন্ন হয়েছে। জগন্নাথপুর উপজেলার পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদির আহমদ মুক্তা জানান, পুরো হাওর ঘুরে তারা কোথাও ৫০ ভাগের বেশী কাজ হতে দেখেননি। যেটুকু কাজ হয়েছে তাও মানসম্মত নয়। দিরাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান তালুকদার জানান, তিনি উপজেলার বরাম হাওরের কাদিরপুর, বোয়ালিয়ার বাঁধসহ বেশ কয়েকটি বাধ ইতিমধ্যে পরিদর্শণ করেছেন । তিনি বলেন, বাধের কাজ ৪০ ভাগের উপর হয়নি। জেলার জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও জামালগঞ্জ হাওর রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক ইউছুফ আল আজাদ জানান, বিগত কয়েক বছর আগে হাওর রক্ষবাধের দুর্ভলতার কারণে বাঁধ ভেঙ্গে হাজার হাজার কোটি টাকার ফসল ডুবে যাবার পর সুনামগঞ্জবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে ঠিকাদারী প্রথার বদলে পিআইসির(প্রজেক্ট ইমপ্লিমেন্টেশন কমিটি) মাধ্যমে বাঁধ নির্মাণের সিদ্ধান্ত হয়, কিন্তু পাউবো এই প্রথাকে অজনপ্রিয় করার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে এবং কার্যাদেশ ও বরাদ্ধ প্রদানে নানাভাবে পিআইসিগণকে হয়রানি করেছে তারা। তিনি বলেন, বাঁধ নির্মাণে কোটি কেটি টাকা লুটপাটের জন্য প্রতি বছরেই ঝুঁকি নেয় পাউবো। তারা কাজ অসময়ে শুরু করে এবং পানি আসার আগে আগে তারা কাজের প্রগ্রেস (অগ্রগতি) বাড়িয়ে রিপোর্ট করে। অর্থাৎ পানি এসে কৃষকের ফসল ডুবিয়ে নিলেও বিল ঠিক-ঠাকই থাকে, আর পানি আসলেও যাতে বিল পুরেপুরি উত্তোলন করে ভাগ বাটোয়ারা করে নেওয়া যায় ঐ ফন্দি করে তারা। এছাড়া প্রাক্কলন তৈরির ক্ষেত্রেও বড় ধরণের অনিয়মের উল্লেখ করে তিনি বলেন, পাউবো ১০ গুন বেশী প্রাক্কলন করে, পরে বিল তুলে ভাগ-বাটোয়ারা করে নেয় ঠিকাদার ও পাউবো কর্মকর্তারা। এবারও এমন প্রক্রিয়া হচ্ছে বলে মন্তব্য তার। তিনি বললেন, গত ২৮ নভেম্বর বাঁধ নির্মাণের কাজের সময় সীমা শেষ হয়েছে। অথচ প্রায় চার হাজার কোটি টাকার ফসল এখনো অরক্ষিতই রয়ে গেছে। ইউছুফ আল আজাদ আরো জানান, পিআইসিকে অজনপ্রিয় করে তুলতে পাউবো কর্মকর্তারা পিআইসি গুলোকে তুলনা মূলক খারাপ কাজটি দেয়। এমনকি বরাদ্ধের টাকাও সময় মতো দিচ্ছে না। এদিকে ঠিকাদারী প্রথাকে জনপ্রিয় করে আবারো এ প্রথায় ফিরিয়ে আনতে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে ভাল কাজ গুলো দিচ্ছে এবং তাদের বিলও তাড়াতাড়ি পরিশোধ করছে। অন্যদিকে, বাংলাদেশ কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদিকা ও সুনামগঞ্জ জেলা নারী উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি এডভোকেট শামীমা শাহরিয়ার জানান, প্রতিবছর অসাধু কর্মকর্তাদের কারণে সঠিকভাবে বাঁধের কাজ হয়নি। তিনি দাবি করেন, ফসল রক্ষাবাধের তদারকি (মনিটরিং)’র জন্য তদারকি (মনিটরিং) কমিটি গঠনের দরকার। বছরের পর বছর হাওরবাসীর এ দাবিটি অপেক্ষিত রয়েছে। তিনি আরো বলেন, বর্তমান কৃষিবান্ধব সরকার কৃষকের উন্নয়নের কথা চিন্তা করে কৃষিখাতে বরাদ্দ বেশী দিয়েছে। কিন্তু অসাধু কর্মকর্তাদের কারণে সরকারের মহৎ কাজটি সফল হচ্ছে না। অপেক্ষিত রয়েছে কৃষিখাত ও কৃষকরা। সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)-এর নির্বাহী প্রকৌশলী সাঈদ আহমদ বলেন, সারা জেলায় হাওর রক্ষা বাঁধের কাজ গড়ে ৬৫ ভাগ হয়েছে। পিআইসিকে অসহযোগিতার প্রশ্নই উঠেনা। প্রাক্কলন ব্যয় বেশী করার অভিযোগকে অবান্তর বলে মন্তব্যও করেন তিনি। গত বছরের ১০ ভাগ টাকা পিআইসিদের বকেয়া বিল রয়েছে স্বীকার করে সাঈদ জানান, দু’এক দিনের মধ্যে বরাদ্দের টাকা এসে যাবে । আগামী বৃহস্পতিবারের মধ্যে পিআইসিদের টাকা দেওয়া হবে। তিনি আরো জানান, এবছর সুনামগঞ্জ জেলার ৪২ টি হাওরের ১৪৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ ফসল রক্ষা বাধের কাজ করছে ২৫১ টি পিআইসি। এ কাজের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ২০ কোটি ১৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে পিআইসি কাজর করছে ১১৫ কিলোমিটার বাধের । এ জন্য পিআইসিকে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ১৫ কোটি টাকা এবং ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান গুলো ৩৩ কিেিলামিটার বাধের কাজ করছে তাদের বরাদ্দ দেওয়া দেওয়া হয়েছে ৫ কোটি ১৪ লাখ টাকা।
<>
পাঠকের মন্তব্য
মন্তব্য প্রদানের জন্য

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24