রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ১১:৫০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে বিতর্কিতদের আওয়ামী লীগে স্হান না দিতে তৃণমূল নেতাদের দাবি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা:জগন্নাথপুরে প্রথম দিনে অনুপস্থিত ২৬০ যুক্তরাজ্য বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে জগন্নাথপুর বিএনপির অভিনন্দন পেঁয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করলেন কাদের সিদ্দিকী ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি

সুনামগঞ্জে রাষ্টপতি-ফেইসবুকে নয়,বাস্তবে কথায় ও কাজে নিজেদেরকে দুর্নীতি বিরোধী প্রমাণ করতে হবে

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৮ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৫০ Time View

আল-হেলাল,সুনামগঞ্জ থেকে :
রাষ্ট্রপতি এডভোকেট মোঃ আব্দুল হামিদ বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহবানে সাড়া দিয়ে ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে সুনামগঞ্জ এসেছিলাম। দেশ স্বাধীন করেই ঘরে ফিরেছি। সেই স্মৃতিময় স্থানে বারবার আসার চেষ্ঠা করেও তা সম্ভব হয়নি। এবার কারো দাওয়াতে নয়, নিজের তাগিদে দুর্যোগকালীন সময়ে আসলাম। কারণ ৭৪ বছরের জীবনে চৈত্রমাসে ভয়াবহ অকাল বন্যা দেখিনি। ইনশাহআল্লাহ সকলের সক্রিয় সহযোগিতা নিয়ে এই মহাদুর্যোগেরও মোকাবেলা করবো। রাষ্ট্রপতি বলেন, সুনামগঞ্জ আর কিশোরগঞ্জ এক ও অভিন্ন হাওরের জনপদ। এখানে কান্না শুরু হলে কিশোরগঞ্জ গিয়ে শেষ হয়। কারণ উজান থেকে হানা দেয়া পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টির পানি সুনামগঞ্জ গড়িয়ে কিশোরগঞ্জ যায়। এতে নদীগুলো নাব্যতা হারিয়ে ভরাট হয়ে গেছে। এখন হাওর ও বোরো ফসল বাঁচাতে সরকারি উদ্যোগে নদী খনন করতেই হবে। নদী খনন ব্যতিত হাওরকে বাঁচানোর কোন বিকল্প নেই। সোমবার রাতে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসন আয়োজিত স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, শিক্ষাবিদ, মুক্তিযোদ্ধা ও জেলা পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন রাষ্ট্রপতি। সভা পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম। স্থানীয় সুধীজনদের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে রাষ্ট্রপতি উল্টো প্রশ্ন রেখে বলেন, সুনামগঞ্জের জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তাসহ সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ যখন দুর্নীতির বিপক্ষে সেখানে হাওররক্ষা বাঁধ নির্মাণে দুর্নীতি কিভাবে হয় আমি তা ভেবে পাচ্ছি না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে দুর্নীতি বিরোধী না হয়ে বাস্তবে কথায় ও কাজে আপনারাই যে দুর্নীতি বিরোধী তা প্রমাণ করতে হবে। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি,মুহিবুর রহমান মানিক এমপি, মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এমপি, ড. জয়া সেনগুপ্তা এমপি, অ্যাডভোকেট শামছুন নাহার বেগম শাহানা রব্বানী এমপি,পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ এমপি,রেজওয়ান আহমেদ তৌফিক এমপি, সিলেট বিভাগীয় কমিশনার মোছাঃ নাজমানারা খানম,ডিআইজি কামরুল আহসান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট, সুনামগঞ্জ পৌর মেয়র আইয়ুব বখত জগলুল,জেলা পুলিশ সুপার বরকতুল্লাহ খান, অধ্যক্ষ ইদ্রিস আলী বীরপ্রতিক,সাবেক অধ্যক্ষ প্রপেসর পরির্মল কান্তি দে,দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান হাজী আবুল কালাম,সাবেক এমপি ও পিপি অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ, দৈনিক সুনামগঞ্জ প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদক কামরুজ্জামান চৌধুরী,মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট আলী আমজাদ,মুক্তিযোদ্ধা মতিউর রহমান,সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের আহবায়ক এডভোকেট বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু,দৈনিক সুনামকন্ঠ সম্পাদক বিজন সেন রায়,দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর পত্রিকার সম্পাদক পংকজ দে ও মানবাধিকারকর্মী সাংবাদিক আল-হেলাল প্রমুখ। অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতির সচিব সম্পদ বড়–য়া,প্রেস সচিব জয়নাল আবেদীন সহ গণভবনে দায়িত্বরত কর্মকর্তাবৃন্দ এবং সামরিক ও বেসামরিক উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে দুপুর ১২টায় কিশোরগঞ্জের মিঠামইন এলাকা থেকে লোফ্লাইং ফ্লাইটে তিনি অকালে তলিয়ে যাওয়া হাওর পরিদর্শন করে নেত্রকোণা আসেন। সেখান থেকে তিনি আবারও লোফ্লাইং করে সুনামগঞ্জের পশ্চিমাঞ্চলের তলিয়ে যাওয়া হাওর দেখে দুপুর আড়াইটায় সুনামগঞ্জ পুলিশ লাইন হেলিপ্যাডে অবস্থান করেন। সেখান থেকে সরাসরি সার্কিট হাউসে চলে আসেন রাষ্ট্রপতি। বিকেল ৫টায় সুনামগঞ্জ ঐতিহ্য যাদুঘর পরিদর্শন শেষে শিল্পকলা একাডেমি ভবনে সুধীজনদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন তিনি। এদিকে রাষ্ট্রপ্রধানের আগমন উপলক্ষে জেলা শহরজুড়ে ছিল পিনপতন নিরাপত্তা। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সুনামগঞ্জ সার্কিট হাউজে অবস্থান করছেন রাষ্ট্রপতি। মঙ্গলবার সকালে হ্যালিকপ্টারযোগে আবার হাওর পরিদর্শন শেষে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিবেন তিনি। এর আগে ৫ম রতœ মরমী কবির প্রতিকৃতিসহ সুনামগঞ্জ ঐতিহ্য যাদুঘর পরিদর্শনকালে যাদুঘরে সংরক্ষিত মরমী কবি রাধারমন,হাছন রাজা,বাউল কামাল পাশা.দুর্বিণ শাহ ও শাহ আব্দুল করিমের ছবি ঘুরে ঘুরে দেখেন তিনি।
সুনামগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে মহামান্য রাষ্ট্রপতির সাক্ষাৎ কর্মসুচিকে নিয়ে হাজী নুরুল মোমেনের দলবাজীর ঘটনায় তোলপাড়
সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা :
সুনামগঞ্জে মহামান্য রাষ্ট্রপতির আগমনের সংবাদে ৭১ এর রণাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধারা সবচেয়ে বেশী উৎসাহিত হলেও জেলা প্রশাসনের নির্ধারিত আমন্ত্রণে চরম হতাশা ব্যক্ত করেছেন টেকেরঘাট সাবসেক্টরের কয়েকজন কোম্পানী কমান্ডার,শহীদ পরিবার ও যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যরা। গত ১৪ এপ্রিল শুক্রবার বেলা ৩টায় জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত প্রস্তুতি সভায় জানানো হয়,সার্কিট হাউসে রাষ্ট্রপতির সাথে তাঁর যুদ্ধদিনের সহকর্মী বীর মুক্তিযোদ্ধারা সাক্ষাতের সুযোগ পাবেন। বিশেষ করে টেকেরঘাট সাবসেক্টরের বীর মুক্তিযোদ্বাদের অনেকেই রাষ্ট্রপতির সাথে ব্যক্তিগতভাবে পরিচিত। বঙ্গভবনে জেলা আওয়ামীলীগ ও প্রশাসনের নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনাকালে রাষ্ট্রপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুর রহমান ও জজ মিয়াসহ বেশ কয়েকজনের নামও উল্লেখ করেছেন। কিন্তু মহামান্য রাষ্ট্রপতির সাথে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সাক্ষাতের সুযোগটিকে একান্তই ব্যক্তিগত সুযোগ হিসেবে ব্যবহার করছেন অস্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা জেলা ইউনিট কমান্ডার হাজী নুরুল মোমেন। তিনি শহরে বসবাসকারী ও বিভিন্ন উপজেলায় অবস্থানরত তার প্যানেলভূক্ত ব্যক্তিগত পছন্দের ৪০ জন মুক্তিযোদ্ধাদের একটি ব্যক্তিগত তালিকা প্রস্তুত করে জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলামের কাছে জমা দিয়ে উক্ত ৪০ জনের নামে জেলা প্রশাসক স্বাক্ষরিত পত্র হাতিয়ে নিয়েছেন। টেকেরঘাট সাবসেক্টরের আব্দুল মজিদ চৌধুরী ও সুভাস দাস কোম্পানীর সহ অধিনায়ক দিরাই উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ৩ বারের ডেপুটি কমান্ডার যোদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএনএম মাহমুদুর রসুল (কমান্ডার গোলাম রসুল),সুনামগঞ্জের প্রথম শহীদ আবুল হোসেনের বিধবা স্ত্রী রহিমা খাতুন,জেলা ইউনিট কমান্ডের প্রতিষ্টাতা কমান্ডার মরহুম শামসউল হকের কন্যা আওয়ামীলীগ নেত্রী সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌসী ছিদ্দিকা, টেকেরঘাট সাবসেক্টরের সহ অধিনায়ক মরহুম কাজী বশির উদ্দিন নানু মিয়ার জেষ্টপুত্র কাজী জালাল উদ্দিন জাহান, আব্দুল মজিদ বীর প্রতীক,মুক্তিযোদ্ধা কাকন বিবি,মুক্তিযোদ্ধা পিয়ারচান বেগম, অকাল প্রয়াত সাবেক জেলা ইউনিট কমান্ডার হাজী কেবি রশীদ (যোদ্ধাহত) এর পরিবারবর্গ,সাবেক জেলা ইউনিট কমান্ডার শাহজাহান বখতের কন্যা আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক ছাদিয়া বখত সুরভী,সাবেক এমএনএ দেওয়ান ওবায়দুর রাজার পুত্রবধূ ও বীর মুক্তিযোদ্ধা দেওয়ান মোসাদ্দেক রাজার সহধর্মীনি নাছিমা চৌধুরী এলি,সাবেক এমপিএ মরহুম এমএ রইছ,জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও এমপিএ মরহুম আব্দুজ জহুর সাহেবের সন্তানসহ অনেক মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক,মুক্তিযোদ্ধা,শহীদ পরিবার ও যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধারা মান্যবর রাষ্ট্রপতির সাথে সাক্ষাতের সুযোগ থেকে বঞ্চিত রয়েছেন। কেন এসব বীর মুক্তিযোদ্ধা,শহীদ পরিবার,মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও যোদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ও তাদের সন্তানদের সাথে এমন জগণ্য আচরন করছেন জানতে চাইলে জেলা ইউনিট কমান্ডার হাজী নুরুল মোমেন বলেন, আমি জেলা প্রশাসকের নির্দেশমতো শুক্রবারই ৪০ জন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধার নাম তালিকা দিয়েছি। গুরুত্বপূর্ণ যারা বাদ পড়েছেন যেমন যুদ্ধকালীন কোম্পানী কমান্ডার এসএনএম মাহমুদুর রসুলসহ আরো যারা তাদেরকে, যারা আসবেননা তাদের জায়গায় কোঅপ্ট করবো নাহয় গুরুত্বপূর্ণ বাদপড়া মুক্তিযোদ্ধাদের আরেকটি তালিকা পরদিন রবিবার জেলা প্রশাসকের কাছে দাখিল করবো। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ কামরুজ্জামান বলেন,শুক্রবার নয় হাজী নুরুল মোমেন ৪০ জনের একটি নাম তালিকা শনিবার বিকেলে দিয়েছেন। পরে তার কাছ থেকে কোন তালিকা আর পাওয়া যায়নি। বিষয়টিকে হাজী নুরুল মোমেনের নিছক বাড়াবাড়ি ও ব্যক্তিগত স্বার্থ সংশ্লিষ্ট এবং অসৎ উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে এহেন হীনমন্যতার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানরা। আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী জালাল উদ্দিন জাহান বলেন, হাজী নুরুল মোমেনের বাড়ী কিশোরগঞ্জ জেলায়। তিনি জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের একজন সক্রিয় নেতা ছিলেন। ২০০১ ইং সনে বিএনপি ক্ষমতায় আসলে তিনি কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের বিএনপি সমর্থিত স্বঘোষিত চেয়ারম্যান কবির খানের সমর্থিত জেলা ইউনিট কমান্ডার ছিলেন। তিনি মুক্তিযোদ্ধা সংসদের জেলা ইউনিট কমান্ড এর কার্যালয়ে সংরক্ষিত জাতির জনকের ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিকৃতি নামিয়ে নিয়ে বাথরুমে রেখে অবমাননাকর অপরাধ করেছিলেন। বর্তমানে মুক্তিযোদ্ধাদেরকে তিনি দ্বিধাবিভক্ত করে রেখেছেন। তার দলবাজীর কারনে জেলায় মুক্তিযোদ্ধারা আজ দ্বিধাবিভক্ত ও অধিকার বঞ্চিত। তিনি কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের হেলাল গ্রুপ করেন বলে অধ্যক্ষ আব্দুল আহাদ চৌধুরী গ্রুপের কোন মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সহ্য করতে পারেননা। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মান্যবর রাষ্ট্রপতি জনাব আব্দুল হামিদ এডভোকেট সাহেবের সাথে সুনামগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মার সম্পর্ক। ৭১ সালে তিনি যখন দেশের সর্বকনিষ্ট এমপিএ ছিলেন তখনই মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে টেকেরঘাট সাবসেক্টরসহ ৫নং সেক্টরের মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনায় গৌরবোজ্জল ভূমিকা পালন করেন। মহামান্য রাষ্ট্রপতির যুদ্ধদিনের সেইসব সহকর্মীরা ১৭ এপ্রিলের সুনামগঞ্জ সফরটিকে তাদের অনেকের জীবনের শেষ সুযোগ মনে করেছিলেন। কিন্তু হাজী নুরুল মোমেন তাদের অনেকের জীবনের শেষ ইচ্ছা ও সুযোগটিকে তার ব্যক্তিগত সুযোগে পরিণত করে হীনমন্যতার পরিচয় দিয়েছেন। তাই সুনামগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে মহামান্য রাষ্ট্রপতির সাক্ষাৎ কর্মসুচিকে নিয়ে হাজী নুরুল মোমেনের দলবাজীর ঘটনার আমরা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি সাংবাদিক আল-হেলাল বলেন,হাজী নুরুল মোমেন তার ব্যক্তিগত গ্রুপের একাংশের স্বার্থে নাম তালিকা সরবরাহ করছেন। এখানে আমার পিতা যুদ্ধকালীন কমান্ডার এসএনএম মাহমুদুর রসুলসহ অনেককে ইচ্ছেকৃতভাবে কথিত তালিকায় উপেক্ষা করেছেন বলে জানানোর পরও আমি জেলা প্রশাসকের কাছে কোন ইনসাফ পাইনি। অভিযোগের ব্যপারে জানতে চেয়ে জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলামের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। শেষ পর্যন্ত বিষয়টি কোনদিকে মোড় নেয় সেদিকে দুষ্টি এখন সকলের।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24