মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ০৮:৪৭ পূর্বাহ্ন

সুনামগঞ্জে ১৪ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান হয় বছরে ৪ মাস

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২১ মে, ২০১৯
  • ৩১১ Time View

পরীক্ষা কেন্দ্রের কাজে ব্যবহৃত জেলার কিছু ভালো মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা শ্রেণিকক্ষে পাঠদান থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বছরের প্রায় ৮ মাস এসব বিদ্যালয়ে পাঠদান হচ্ছে না। একারণে আশানুরূপ ফলাফলও হচ্ছে না এসব বিদ্যালয়ের।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলার ১৪ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ১২০ দিনের বেশি পাঠদান হয় না। এই নিয়ে বিদ্যালয়গুলোর প্রধান শিক্ষকরা সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বললেও কোনও লাভ হচ্ছে না।
জেলার জামালগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিধান চক্রবর্তী জানালেন, এই বছর সরকারি ছুটি ৮৫ দিন, জেএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র হওয়ায় বিদ্যালয়ে পাঠদান হয়নি ১৭ দিন, এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র থাকায় ৩০ দিন, এইচএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র থাকায় ৩৬ দিন এবং বিএ পরীক্ষার কেন্দ্র থাকায় পাঠদান হয়নি ২৬ দিন। বিদ্যালয়ের বার্ষিক, অর্ধবার্ষিক ও নির্বাচনী পরীক্ষার জন্য ৪০ দিন পাঠদান করা যায়নি। সব মিলিয়ে পাঠদান হয়নি ২৩৪ দিন। ৩৬৫ দিনের বছরের বাকী ১৩১ দিনের মধ্যে স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ নানা কারণে আরও কয়েকদিন পাঠদান করা যায় না। অর্থাৎ গড়ে ৪ মাসের বেশি পাঠদান হয় না বিদ্যালয়ে। এই অবস্থায়ও বিদ্যালয়টি ফলাফল ভালো করার চেষ্টা করছে। এবারের জেএসসি পরীক্ষায় জামালগঞ্জে ৩ শিক্ষার্থী ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে, ৩ টিই আমার বিদ্যালয়ের। আমি বিশ্বাস করি, আমার বিদ্যালয় থেকে পরীক্ষা কেন্দ্র কমানো হলে, ফলাফল আরও ভাল হবে।’
জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের দায়িত্বশীলরা জানান, কেবল জামালগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় নয়, শাল্লার শাহীদ আলী পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়, তাহিরপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, গোবিন্দগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়, বিশ্বম্ভরপুর মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, সুনামগঞ্জ শহরের সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি সতীশ চন্দ্র বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, এইচএমপি উচ্চ বিদ্যালয়, দিরাই উচ্চ বিদ্যালয়, দোয়ারাবাজার মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, বাদাঘাট উচ্চ বিদ্যালয় ও পাগলা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ এমন সমস্যায় ভুগছে।
সরকারি সতীশ চন্দ্র বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হাফিজ মো. মাসহুদ চৌধুরী বলেন,‘এইচএসসি পরীক্ষার জন্য দেড় মাস, অনার্স পরীক্ষার জন্য ২ মাস পাঠদান করা যায় না। বিভিন্ন ফোরামে এসব নিয়ে কথা বলেছি, কেউ আমলে নেন না। বিদ্যালয়ে পাঠদান না হলে ফলাফল ভালো করা যাবে কীভাবে, তবুও আমরা চেষ্টা করছি।
শহরের এইচএমপি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইনচান মিঞা বলেন,‘বিদ্যালয়ে পাঠদান হলে বাড়িতেও বেশি পড়বে শিক্ষার্থীরা, কিন্তু সেটি হচ্ছে না, জেএসসি, এসএসসি, ডিগ্রী ও অনার্স পরীক্ষার কেন্দ্র বিদ্যালয়ে, এরপর নির্ধারিত ছুটি তো আছেই। এখন আলাদা পরীক্ষা কেন্দ্রের কথা না ভাবলেই নয়। না হয় পরীক্ষার জন্য অন্যদের পড়াশুনা পিছিয়ে যাবে।’
জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলমও বললেন,‘বিদ্যালয়গুলো এখন পরীক্ষার কেন্দ্র হয়ে গেছে। বহুবার এসব বিষয় নিয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে। তারা বলেছেন, পরীক্ষার জন্য আলাদা হল রুম হবে। কিন্তু সেটিও হচ্ছে না।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24