শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:৩৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন ব্রিটেনের নির্বাচনে আফসানার বড় জয়ে জগন্নাথপুরে উৎসবের আমেজ ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই

সুনামগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে যত ভোগান্তি

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৭ জুন, ২০১৮
  • ৩৫৮ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
‘আমার দুই আত্মীয়ের পাসপোর্ট করার জন্য আবেদন একসাথে দিলাম। একজন ১২শ’ টাকা অতিরিক্ত দিছে। হে (সে) পাসপোর্ট পাইলাইছে, যে অতিরিক্ত টাকা দেয় নাই, সে ৩ মাস ধরে হাটতেছে।’ উত্তেজিত হয়ে তিনি জিজ্ঞাসা করছিলেন, এটি কেন ? এ নিয়ে পাসপোর্ট ডেলিভারী কর্নারে বসা অফিস সহকারী সাখাওয়াত হোসেনের সঙ্গে রীতিমত বাকবিতন্ডা শুরু হয় ছাতকের আইনজীবী আবুল হোসেনের। উত্তেজিত হয়ে তিনি বলছিলেন, ‘ভোগান্তির শেষ নেই। তোমরা মানুষরে জ্বালানী শুরু করছো।’ ডেলিভারী কর্নারে বসা পাসপোর্ট অফিসের অফিস সহকারী সাখাওয়াত হোসেন বলছিলেন, ‘আমরা টাকা নেইনি, আপনি কাকে টাকা দিয়েছেন আমরা জানি না, যে নিয়েছে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন।’
বুধবার দুপুর ১২ টা ১ টা পর্যন্ত সুনামগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে অবস্থানের সময় দুপুর পৌঁনে ১ টায় ডেলিভারী কর্নারে এমন কথোপকথন শুনা যাচ্ছিল।
খোঁজ নিয়ে জানা গেল গত প্রায় ৩ মাস ধরেই সুনামগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে এমন ভোগান্তি। জেলার প্রবাসী অধ্যুষিত এলাকার বাসিন্দারা এজন্য সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন। পাসপোর্ট অফিসের হিসাব অনুযায়ী দুই হাজার ৮০০ গ্রাহকের পাসপোর্ট প্রিন্টের অপেক্ষায় আছে। এসব গ্রাহকের সকল প্রক্রিয়া শেষ। তাঁদের পাসপোর্ট এখন ডেলিভারী পাবার কথা। কিন্তু পাচ্ছেন না। এই গ্রাহকদের কেউ হজ্বে যাবেন, কেউ চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাবেন। কেউ বা কর্মসংস্থান বা স্টুডেন্ট ভিসায় বিদেশে যাবেন। এরা প্রতিদিন পাসপোর্ট অফিসে ধরণা দিতে দিতে ক্ষুব্ধ।
নাদিম কাদির নামে দিরাই শহরতলির সাকিতপুরের এক শিক্ষার্থী বলেন,‘স্টুডেন্ট ভিসার জন্য কানাডায় আবেদন করতে চেয়েছিলাম। ৭০ দিন আগে পাসপোর্ট করার জন্য আবেদন করেছি। ৪০ দিন আগে পাসপোর্ট ডেলিভারি দেবার কথা, এই ৪০ দিনে ৭-৮ বার সুনামগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে এসেছি, পাসপোর্ট পাইনি। যে সেশনে ভর্তি হতে কানাডায় স্টুডেন্ট ভিসার আবেদন করতে চেয়েছিলাম, এখন সেই সময় পার হয়ে গেছে।’
জগন্নাথপুরের হাবিব মিয়া মালয়েশিয়া যাবেন। তার সবকিছু ঠিকঠাক হয়ে আছে। কিন্তু দুই মাস ঘুরেও পাসপোর্ট না পাওয়ায় তাঁর সব পরিকল্পনায় গুড়েবালি। হাবিব মিয়া বলেন,‘হাঁটতে হাঁটতে জীবন নষ্ট’।
সুনামগঞ্জ শহরতলির মাইজবাড়ি-বদিপুরের মো. ইমান আলী বলেন,‘পাসপোর্টের ফরম নিজে পূরণ করে অফিসে নিয়ে গেলে ১০০ টা ভুল ধরে, ফিরিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু অফিসের দালালরা, যারা অতিরিক্ত টাকা নেয়, তারা ওই ফরমই নিয়ে গেলে রেখে দেয় পাসপোর্ট অফিসের লোকজন।’
সুনামগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসের ‘পাসপোর্ট ডেলিভারী কর্নারে একটি কাগজের নোটিশে লেখা রয়েছেÑ সাময়িক যান্ত্রিক ত্রুটির জন্য পাসপোর্ট পেতে বিলম্ব হচ্ছে। পাসপোর্ট পেতে সাময়িক বিলম্বের জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।’
ছাতকের আইনজীবী আবুল হোসেন এবং দিরাইয়ের আইনজীবী শহীদুল হাসমত খোকন বলেন,‘অতিরিক্ত টাকা দিলে পাসপোর্ট পেতে কোন সমস্যা হয় না। পাসপোর্ট করতে আসা মানুষ প্রতিদিন আমাদের কাছে ক্ষোভের কথা জানায়।’
অ্যাডভোকেট আবুল হোসেন বলেন,‘আমার নিজের মানুষ তাদের দালালের কাছে টাকা দিয়ে আগে পাসপোর্ট ডেলিভারী নিয়েছে।’ পাসপোর্ট ডেলিভারী কর্নারে অফিস সহকারী সাখাওয়াত হোসেনের সঙ্গে কথা কাটাকাটি প্রসঙ্গে তিনি বলেন,‘ সে বলে অতিরিক্ত টাকা তারা (স্টাফ কেউ) নেয়নি, আমি বললাম আমি অতিরিক্ত টাকা দেওয়ায় একটি পাসপোর্ট ডেলিভারী পেলাম। আরেকটি টাকা না দেওয়ায় পেলাম না, তাহলে যে টাকা নিয়েছে তাঁকে তোমাদেরই মানুষ দাবি করবো না কেন?’
অফিস সহকারী সাখাওয়াত হোসেন আইনজীবী আবুল হোসেনের অভিযোগ প্রসঙ্গে বলেন,‘তিনি টাকা দিয়ে থাকলেও আমরা (অফিসের কেউ) নেইনি। সুতরাং তিনি আমাদের অভিযুক্ত করতে পারেন না।’
সুনামগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক মো. আলী আশরাফ বলেন,‘গত আড়াই মাস হয় যান্ত্রিক ত্রুটির জন্য পাসপোর্ট পেতে সমস্যা হচ্ছে। এই সমস্যা সারা দেশেই। ঈদের পর সেটি থাকবে না।’ অতিরিক্ত টাকা দিলে আগে পাসপোর্ট পাওয়া যায়, এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন,‘টাকা পয়সা নেবার প্রশ্নই ওঠে না। এমন অভিযোগ অসত্য। ভিসার মেয়াদ শেষ বা অসুস্থ রোগী চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যাবে, এমন হলে আগারগাঁও পাসপোর্ট পার্সনাইলেজসন সেন্টারে আমরা নোট দিয়ে পাঠাই। আগ্রহীরা নিজেরা স্ব-শরীরে ওখানে যান। তারা (আগারগাঁওয়ের দায়িত্বশীলরা) যাচাই করে সঠিক মনে করলে পাসপোর্ট সরবরাহ করেন।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24