রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ভোলায় পুলিশ-জনতা সংঘর্ষ, নিহত ৪, শতাধিক আহত জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা ছাত্র সাব্বিরের হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল জগন্নাথপুরে পৃথক দুই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখনও মামলা হয়নি সাংবাদিকতার উজ্জ্বল পরিম-লে কামকামুর রাজ্জাক রুনু এক স্বপ্নচারী পুরুষ শেখ রাসেলের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে আ.লীগের আলোচনাসভা জগন্নাথপুরে শ্রমিকলীগের কমিটি বিলুপ্ত জগন্নাথপুরের তিন রাজনীতিবীদ জেলা আ,লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মনোনীত হলেন জগন্নাথপুরে দুইপক্ষের বিরোধে বলি হলো মাদ্রাসার ছাত্র সাব্বির জগন্নাথপুরে ছিনতাইকৃত গ্রামীণফোনের রিচার্জ কার্ড-অর্থসহ ডাকাত গ্রেফতার জগন্নাথপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে শিশু নিহত

সুনামগঞ্জ-১ আসনে প্রার্থী পরিবর্তনের শ্লোগানে রতন বিরোধী সবাই এক জোট

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৯ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৭৮ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জ-১ আসনে ‘পরিবর্তন চাই’ স্লোগান তুলে সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বিরোধী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা একাট্টা হয়েছেন। সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বিরুদ্ধে দলীয় বিভেদ সৃষ্টি এবং তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে সম্পৃক্ততা নেই এবং দলে বিভেদ সৃষ্টির অভিযোগ তুলে একসঙ্গে গণসংযোগ শুরু করেছেন ৬ মনোনয়ন প্রত্যাশী। সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন অবশ্য বলেছেন,‘নির্বাচনী এলাকার ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের নামই যারা জানেন না, তারা আমার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন।’
জেলার জামালগঞ্জ, ধর্মপাশা ও তাহিরপুর উপজেলা নিয়ে সুনামগঞ্জ- ১ নির্বাচনী আসন। এই আসনে দুইবার সংসদ সদস্য হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। আগামী জাতীয় নির্বাচনেও এখানে দলীয় প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার প্রচারণা দিচ্ছেন তিনি। কিন্তু নির্বাচনী এলাকার অন্য ৬ মনোনয়ন প্রত্যাশী এক জোট হয়ে গণসংযোগে নেমেছেন। মঙ্গলবার বিকালে একসঙ্গে তাঁরা প্রথম শো-ডাউন করেছেন ধর্মপাশা উপজেলা সদরে। একসঙ্গে তারা মুজিবনগর দিবসের আলোচনা সভায় অংশ নিয়েছেন ধর্মপাশা জনতা উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে। মনোনয়ন প্রত্যাশী এসব নেতাদের কেউ কেউ বলেছেন,‘আমরা এমপি রতনের পরিবর্তন চাই, রতন ছাড়া অন্য যে কেউ মনোনয়ন পেলে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবো।’ নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন ইউনিটের নেতারাও এই মনোনয়নযুদ্ধে বিভক্ত।
ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমদ বিলকিস এ প্রসঙ্গে বলেন,‘আওয়ামী লীগের একজন কর্মী হিসাবে মনে করছি, যারা এক হয়ে গণসংযোগে নেমেছেন, তাঁদের মধ্যে সুনামগঞ্জ-১ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার মতো জনসম্পৃক্ত বা কর্মী সম্পৃক্ত নেতা নেই।’
জামালগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম নবী হোসেন বলেন,‘আওয়ামী লীগের প্রার্থী পরিবর্তন হবে কী-না দলীয় সভানেত্রী বা মনোনয়ন বোর্ড-ই বুঝবে। মনোনয়ন বোর্ড বা সভানেত্রীর প্রতি আমাদের অবিচল আস্থা রয়েছে।’
তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন খান বলেন,‘আমরা নৌকার পক্ষে থাকবো। যাকে নৌকা দেওয়া হবে তিনিই আমাদের প্রার্থী।’
এই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী অব. যুগ্মসচিব বিনয় ভূষণ তালুকদার বলেন,‘আমরা ঐক্য চাচ্ছি এবং নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে মাঠে নেমেছি। বর্তমান এমপি রতনের সঙ্গে স্থানীয় ত্যাগী আওয়ামী লীগের অনেকেই ক্ষুব্ধ। এ কারণে স্থানীয় সংসদ সদস্যকে নিয়ে কর্মসূচি করা যাচ্ছে না।’
মনোনয়ন প্রত্যাশী কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামীমা শাহরিয়ার বলেন, ‘কৃষক লীগের একটি কর্মীসভায় মঙ্গলবার ধর্মপাশায় গিয়েছিলাম। ওখানে একটি স্কুল পরিচালনা কমিটির আমন্ত্রণে মুজিবনগর দিবসের আলোচনা সভায় গিয়েছি। সেই অনুষ্ঠানে অন্য নেতারাও অংশ নিয়েছেন। আগামী নির্বাচনে এই আসনে আমি দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী। দলীয় প্রধান বা মনোনয়ন বোর্ড নৌকা যাকেই দেবেন, সকলকেই তার হয়ে কাজ করতে হবে।’
মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীম এ প্রসঙ্গে বলেন,‘নির্বাচনী এলাকার তৃণমূল পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে এমপি রতনের যোগাযোগ নেই। নির্বাচনী এলাকার সকল উপজেলায় দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দল রয়েছে। এমপি অনুপ্রবেশকারীদের দিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। এই অবস্থায় আমরা প্রার্থী পরিবর্তন করে তৃণমূল পর্যায়ে সম্পৃক্ত কোন দলীয় নেতাকে প্রার্থী দেখতে চাই।’
মনোনয়ন প্রত্যাশী এবং এই আসনের সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দ রফিকুল হক বলেন,‘জনগণ এবং দলীয় নেতা-কর্মীরা প্রার্থী পরিবর্তন চায়, পরিবর্তন করে যাকে খুশি তাকে দেওয়া হোক।’
মনোনয়ন প্রত্যাশী আওয়ামী লীগ নেতা ড. রফিকুল ইসলাম তালুকদার এবং ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি রফিকুল হাসান চৌধুরীও মঙ্গলবার ধর্মপাশায় ৬ মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ঐক্যবদ্ধ সভায় একই ধরনের মন্তব্য করেছেন।
মনোননয়ন প্রত্যাশীদের এভাবে একাট্টা হয়ে গণসংযোগে নামা প্রসঙ্গে সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন,‘যারা বলেন তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে সম্পৃক্ততা নেই, আমার সন্দেহ রয়েছে তারা সুনামগঞ্জ-১ আসনের কোন ইউনিয়ন বা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদকের নাম জানেন কী-না। বহিরাগত কেউ আমার সঙ্গে দলীয় কার্যক্রমে সম্পৃক্ত নয়। যারা নতুন নতুন প্রার্থী তারাই বহিরাগত নিয়ে নেমেছেন। নৌকার পক্ষে সকলে ঐক্যবদ্ধ হলে আমি স্বাগত জানাই। মাননীয় সভানেত্রী যার হাতে নৌকা তুলে দেবেন, তাঁর পক্ষে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান আমার। দলীয় টানাপোড়েন বা কোন্দল সৃষ্টির জন্য জেলা আওয়ামী লীগের দুয়েকজন নেতা দায়ী। তাঁরা ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য কোন্দল লাগায়।’
জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীম অবশ্য বলেছেন,‘জেলার নেতাদের দোষ দিয়ে লাভ নেই। জেলার কোন নেতার কোন্দল লাগানোর প্রশ্নই ওঠে না। সংসদ সদস্যের নিজের উপজেলা ধর্মপাশায় দল দ্বিধাবিভক্ত। সকল কর্মসূচি পালন হয় আলাদা আলাদাভাবে।’
সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24