বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ১০:১৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে বিএনপির দোয়া মাহফিল পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে কাল আসছেন জগন্নাথপুরে বাজার মনিটরিং করলেন পুলিশের এএসপি ধর্মঘট স্থগিত, যান চলাচল শুরু ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট মহাসড়কে প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে নেদার‌ল্যান্ডসের রাজধানীতে প্রথমবার মাইকে আজান জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই

সুনামগঞ্জ -৩ আসনে শেষ বেলায় এগিয়ে আ,লীগ প্রার্থী মান্নান, পিছিয়ে ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থী পাশা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • ১১৮ Time View

আলী আহমদ ::
ভিআইপি আসন বলে খ্যাত সুনামগঞ্জ-৩ ( জগন্নাথপুর ও দক্ষিন সুনামগঞ্জ ) আসনে শেষ প্রচার প্রচারনা শেষে এখন চলছে দল-দলের বাহিরে পরাজয়ের হিসেবে নিকেশ। নির্বাচনী হাওয়ায় এখন পর্যন্ত মহাজোট প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এগিয়ে আছেন। গত বৃহস্পতিবার জগন্নাথপুর পৌরশহরে অনুষ্ঠিত তাঁর শেষ নির্বাচনী জনসভা জনস্রোতে রূপ নেয়। অন্যদিকে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী জমিয়তে উলামে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্ম সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) অ্যাডভোট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী ভোটের মাঠে রয়েছেন পিছিয়ে। আনুষ্ঠনানিকভাবে কোন নির্বাচনী শেষ সভা হয়নি ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থী শাহীনুর পাশার।
আওয়ামীলীগের দূর্গ হিসেবে পরিচতি এ আসনটি নিজেদের দখলে রাখতে আওয়ামীলীগ ঘরের বিরোধ শেষ করে দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিরামহীনভাবে প্রচার প্রচারনা চালায়। অন্য যেকোনো সময়ের তুলনায় গত ১০ বছরে জগন্নাথপুরতথা দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ব্যাপক উন্নয়ন হওয়ায় ক্লিন ইমেজের অধিকারী সৎ ও সজ্জন ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত বর্তমান সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নানের জনপ্রিয়তা এলাকায় বেড়ে গেছে এমন আওয়াজ পাওয়া গেছে। আওয়ামীলীগ মনে করে সুনামগঞ্জের ৫টি আসনের মধ্যে এ আসনে সহজেই বিপুল ভোটে জয় পাবে তাঁরা। কারণ প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী শাহীনুর পাশা প্রথম থেকেই ইমেজ সংকটে। এছাড়া গত ১০ বছরে নির্বাচনী এলাকার মানুষের সুখ দুঃখে তাকে পাশে পাওয়া যায়নি। শুধু ভোট এলেই তাঁকে এলাকায় দেখা যায়। এছাড়াও বিএনপির মনোনয়ন বঞ্চিত প্রার্থীসহ বিভক্ত বিএনপির কোন নেতাকমীর্রা শাহীনুর পাশার পাশে নেই বলে জানিছেন স্থানীয় ভোটাররা।

সরেজমিন ভোটারদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, সাধারণ ভোটারের মধ্যে নির্বাচনী উৎসব তেমন নেই। ভোটাররা এখনও নিরব। তবে তাঁরা নির্বাচিত করতে চান সৎ ও যোগ্য প্রার্থীকে।
যাকে মিলবে সাধারন মানুষের পাশে। হবে উন্নয়ন। জগন্নাথপুরের হাওরাঞ্চলের চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য রনবীর কান্তি দাস বলেন, হাওরপারের মানুষের দুঃখ কষ্টে যাকে কাছে পাওয়া যাবে তাইকে আমরা ভোট দেব। কোন বসন্তের পাখিতে নির্বাচিত করব না।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, একাদশ জাতীয় নির্বাচনে সুনামগঞ্জ- ৩ আসনে এবার ৬ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতায় অংশ নেন। প্রার্থীরা হচ্ছেন আওয়ামীলীগ ও মহাজোট প্রার্থী মনোনীত অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান নৌকা), ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী (ধানের শীষ), জাকের পাটির শাহজাহান চৌধুরী (গোলাপ ফুল), এলডিপির প্রার্থী মাহফুজুর রহমান খালেদ (ছাতা), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত প্রার্থী দক্ষিণ মুহিবুল হক আজাদ (হাতপাখা), ও বাংলাদেশ মুসলিম লীগ মনোনীত প্রার্থী সৈয়দ শাহ মুবশ্বির আলী (হারিকেল)। এরমধ্যে গত মঙ্গলবার জাকের প্রার্থী প্রার্থী শাহজাহান চৌধুরী মহাজোট প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে গেছেন।

জগন্নাথপুর-দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলাবাসী জানান, এ আসনে ১৯৯১, ৯৬ ও ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক পরারাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদ সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
২০০৫ সালের ২৭ এপ্রিল তিনি বার্ধ্যকজনিত কারণে মারা গেলে ওই বছরের ২০ জুন উপ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে আওয়ামীলীগ দলীয়ভাবে নির্বাচনে অংশ না নিলেও নির্বাচনে অংশ নেন নেন আওয়ামীলীগ ঘরনার দুই প্রার্থী। তাঁরা হলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক সচিব এমএ মান্নান ও নাগরিক ঐক্যর প্রার্থী যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য নজরুল ইসলাম। নির্বাচনে চারদলীয় জোট প্রার্থী হিসেবে জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী ৪৪ হাজার ৭০১ ভোট পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। নির্বাচনে শাহীনুর পাশা চৌধুরী সাথে নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি ছিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী এমএ মান্নান পান ৩৮ হাজার ৩০১ ভোট।
পরবর্তীতে ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত মহাজোট প্রার্থী হিসেবে এমএ মান্নান ১লাখ ৩৪ হাজার ৫৫৯ ভোট পান। নির্বাচনে ২০দলীয় জোট প্রার্থী জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম ৫৬ হাজার ৭৬৫ ভোট পান। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে ২০দলীয় জোট নির্বাচনে অংশ না নেয়ায় এ আসনে আওয়ামীলীগ বনাম আওয়ামীলীগের মধ্যে লড়াই অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে এমএ মান্নান ৫০ হাজার ৪৩৬ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তাঁর সাথে প্রতিদ্বন্ধিতা করেন আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদ তনয় আজিজুস সামাদ ডন ৪১ হাজার ০৩ ভোট ।
২০১৮ সালের নির্বাচনে আবারো আওয়ামীলীগতথা মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে এমএ মান্নান ও ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী ১০ বছর পর মুখোমুখি হয়েছেন।
নির্বাচনী মাঠে প্রথম থেকেই মহাজোট প্রার্থী অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান প্রচার প্রচারনায় এগিয়ে যান। আওয়ামীলীগ আসনটি ধরে রাখতে নিজের ঘরের কোন্দন নিরসন করে জয়ের জন্য একাট্রা। মহাজোট প্রার্থীকে বিজয়ী করতে শতাধিক লন্ডণপ্রবাসী দেশে ফিরে প্রচারনায় অংশ নেন। এছাড়াও জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র উপজেলা আওয়ামীলীগ সহসভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল মনাফ ও উপজেলার আটটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানও নৌকার প্রার্থীর পক্ষে মাঠে রয়েছেন।
অপর দিকে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী অ্যাডভোট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী বিভক্ত বিএনপির নেতাকর্মীর সমর্থন নিয়ে মাঠে নামেন। জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবু হোরায়রা ছাদ মাষ্টার পক্ষের কিছু নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রথম দিকে মাঠে প্রচারনা দেখা গেলেও উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবু হোরায়রা ছাদ মাষ্টার, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ মুচ্ছাবির আহমদ ও যুবদল নেতা রাসেল বক্সসহ বেশ কিছু নেতাকর্মী গ্রেপ্তার হওয়ার পর থেকেই বিএনপির নেতাকর্মীরা মাঠে দেখা যায়নি। বিএনপির অপর পক্ষের উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আক্তার হোসেন বলের নেতাকর্মীরা শাহীনুর পাশার পক্ষে মাঠে নামেনি। এছাড়াও বিএনপির মনোনয়ন বঞ্চিতদেরও ভোটের মাঠে নেই পাশার পাশে দাড়াননি। তবে বিএনপির নেতাকর্মীরা কৌশলী হয়ে নিরবে কাজ করছে বলে বিএনপির নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন। এদিকে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী শাহীনুর পাশা চৌধুরী এক প্রবাসীর দায়েরকৃত অর্থ প্রতারণার মামলায় আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করলে আদালত থেকে তিনি ১০ লাখ টাকা জমানত দিয়ে জামিন নিয়ে গ্রেপ্তার থেকে রক্ষা পান। এছাড়াও বিভিন্ন ইসুতে ইমেজ সংকটে পড়েন ঐক্যজোটের প্রার্থী শাহীনুর পাশা। এছাড়াও জগন্নাথপুরে পর পর টানা তিনবার হাওরে ফসলডুবির ঘটনার সময় ক্ষতিগ্রস্থ লোকজনের পাশে অ্যাডভোটেক মাওলানা শাহীনুর পাশাকে দেখা যায়নি বলে জানিয়েছেন ভোটাররা।

অন্যদিকে জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ব্যাপক উন্নয়নে মহাজোট প্রার্থী এমএ মান্নানের ইমেজ বেড়েছে ভোটের মাঠে। তাঁর নির্বাচনী উপজেলা জগন্নাথপুরে দেশকোটি টাকা ব্যয়ে রানীগঞ্জ কুশিয়ারা নদীর ওপর দৃশ্যমান রানীগঞ্জ সেতু, বিদ্যুতের সাবষ্টেশন, ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন, শতভাগ বিদ্যুতায়ন, জগন্নাথপুরের প্রধান সড়ক আব্দুস সামাদ আজাদ আঞ্চলিক মহাসড়ক আধুনিককরণ উন্নয়ন, পৌরশহরে ছয়তলা বিশিষ্ট আধুনিক হাসপাতাল অনুমোধন, উপজেলাজুড়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন সেক্টেরে ব্যাপক উন্নয়নের পাশাপাশি দক্ষিণ সুনামগঞ্জে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ, টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট, শতভাগ বিদ্যুতায়নসহ বিভিন্ন উন্নয়নের জন্য প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান প্রসংশিত হয়েছেন বলে দাবী করে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু বলেন, আওয়ামীলীগের ঘাটি হচ্ছে আসনটি। জয়ের জন্য আমরা সবাই বিভেদ ভুলে একাট্রা। উন্নয়নের জন্য আবারও এমএ মান্নানকে নৌকা প্রতিকে বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির নেতা আব্দুল হাসিম ডালিম বলেন, ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীর সঙ্গে বিএনপির কাজ করবে। ভোটের মাঠ থেকে বিএনপিকে সরাতে ইতিমধ্যে আমাদের দলের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীদের প্রেগÍার করেছে। প্রতিদিনই পুলিশ দলীয় নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি তল্লাশি চালিয়ে যাচ্ছে। সুষ্ঠ নির্বাচন হলে ধানের শীষ বিজয়ী হবে।

ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ধানের শীষের গনজোয়ার দেখে আমার কর্মীদের গণগ্রেপ্তার চালিয়েছে পুলিশ। মানুষ পরিবর্তন চায়। সুষ্ঠ নির্বাচন হলে ধানের শীষ প্রতিকে আমি বিজয়ী হব বলে মনে করছি।

আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী এম এ মান্নান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, গত ১০ বছরে আমার নির্বাচনী এলাকায় ব্যাবক উন্নয়ন করেছি। মানুষ উন্নয়নের পক্ষে। তাই আমি বিশ্বাস করি উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় জনগন আবারো আমাকে নির্বাচিত করবে।

জগন্নাথপুর উপজেলা সহকারী রির্টানিং অফিসার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সুষ্ঠু, অবাধ, ও গ্রহনযোগ্য নির্বাচন সম্পন্নের লক্ষ্যে সকল প্রস্তুুতি গ্রহন করা হয়েছে। এখানে মোট ভোটার ২ লাখ ৯১ হাজার, ৬শত ৪৭জন। এরমধ্যে জগন্নাথপুরে ১ লাখ ৭০ হাজার, ১শত ৮৮ ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ১ লাখ ২১ হাজার ৪শত ৫৯জন। জগন্নাথপুর উপজেলায় ভোট কেন্দ্র ৮৭টি ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ৫৫টি ভোট কেন্দ্র রয়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24