শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুরের সাম্রাটে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র মনাফকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

স্ত্রীকে দেখতে প্রতিদিন ৬ ঘন্টা হাঁটেন ৯৯ বছরের বৃদ্ধ

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ১২০ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::নিউইয়র্কের রচেষ্টারে বসবাসরত লুথার ইউংগারের বয়স এখন ৯৯ বছর। বিবাহিত জীবনের পার করেছেন ৫৫ বছর। তারপরও স্ত্রী অভারলির প্রতি তার ভালোবাসা ম্লান হয়নি এতটুকু।
লুথার আর অভারলির সংসার ভালই চলছিল । কিন্তু ২০০৯ সালে অভারলি ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত হয়ে রচেষ্টারের স্ট্রং মেমোরিয়াল হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর থেকেই পাল্টে যায় লুথারের জীবন।
শীত, গ্রীষ্ম, রোদ, বৃষ্টি- যাই হোক না কেন প্রতিদিন স্ত্রীকে দেখতে লুথার বাড়ি থেকে তিন মাইল পথ হেঁটে আসেন হাসপাতালে। আবার হেঁটে ফিরে যান বাড়িতে। গত ৯ বছরে তার এই যাওয়া আসা চলছে।লুথারের স্ত্রী এখন পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে পড়ে আছেন হাসপাতালের বেডে।কিন্তু তার প্রতি ভালোবাসা একটুও পাল্টায়নি লুথারের।
লুথার জানান, স্ত্রীকে এই অবস্থায় হাসপাতালের বেডে দেখতে তার খুব কষ্ট হয়। তারপরও প্রতিদিন তাকে দেখতে আসেন। কারণ স্ত্রীকে ছাড়া তার জীবন অসম্পূর্ণ।
কিছুদিন আগে অভারলির নিউমোনিয়া হওয়াতে তার শরীর আরও খারাপ হয়ে যায়। এ কারণে স্ত্রীর জন্য লুথারের আকুলতা আরও বেড়েছে। এ ব্যাপারে লুথার-অভারলির মেয়ে লুথেটা বলেন, ‘মায়ের এই অসুস্থতার পুরো সময় বাবা তার পাশে ছিলেন। কখনও রাতের পর রাত হাসপাতালে থেকেছেন, কখনও হাসপাতালের মেঝেতেই ঘুমিয়ে গেছেন।’
প্রতিদিন ৬ মাইল হেঁটে স্ত্রীকে হাসপাতালে দেখতে যাওয়ার কারণে রচেষ্টারের অনেকের কাছে পরিচিত মুখ হয়ে উঠেছেন লুথার ইউংগার। অনেকেই তাকে হাসপাতাল কিংবা বাড়ির পথে লিফট দিতে আগ্রহ দেখান। কিন্তু লুথার হাঁটতেই পছন্দ করেন। তিনি বলেন, ‘অনেকেই আমাকে বয়স অনুসারে কাজ করতে বলেন।তারা তাদের জায়গায় ঠিকই আছে। তারা আমাকে ঈর্ষা করে কারণ আমি ধূমপান কিংবা মদ্যপান করি না। এসব স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। যদি আমি এসব করতাম তাহলে প্রতিদিন ৬ মাইল হাঁটতে পারতাম না।’
লুথার ইউংগারের স্ত্রী অভারলির চিকিৎসা সহায়তার জন্য এরই মধ্যে একটি ফান্ড গঠন করেছেন তাদের মেয়ে লুথেরা। সূত্র: মেট্রো

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24