শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:০৩ অপরাহ্ন

স্বপ্নের রানীগঞ্জ সেতু’র বাস্তবায়ন চলছে, কর্তৃপক্ষের দাবী ১৫ শতাংশ কাজ শেষ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১ মার্চ, ২০১৭
  • ২৬ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: সিলেট বিভাগের বৃহৎ রানীগঞ্জ সেতু’র কাজ ৩ মাস হয় শুরু হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন ডিসেম্বর থেকে সেতু’র কাজ শুরু হয়েছে, ৩ মাসে ১৫ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাকী কাজ নির্ধারিত মেয়াদ ২০১৮ সালের জুন মাসের মধ্যেই শেষ হবে। পাগলা-জগন্নাথপুর-রানীগঞ্জ-আউসকান্দি আঞ্চলিক মহাসড়কের ৩০ কিলোমিটারের মাথার এই সেতু’র কাজ শেষ হলে সুনামগঞ্জ জেলাবাসীর সঙ্গে রাজধানী ঢাকার দূরত্ব কমবে ৫২ কিলোমিটার। সুনামগঞ্জের যোগাযোগ ব্যবস্থারও অভূতপূর্ব উন্নয়ন হবে।
জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের রানীগঞ্জ বাজার ও পাইলগাঁও গ্রামের মধ্যবর্তী স্থানে কুশিয়ারা নদীর উপর ৭০২.৩২ মিটার দীর্ঘ সেতুর নির্মাণ কাজ এখন পুরোদমে চলছে। এক কোটি ২৬ লাখ ৮৬ হাজার ৪৭ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিতব্য সেতুটি পিসি গার্ডার এবং বক্স গার্ডারের সমন্বয়ে করা হচ্ছে। সেতুর প্রস্ত হবে ১০.২৫ মিটার। ১৫ টি স্প্যানের এই সেতুতে ১৪ টি পিয়ার থাকবে। এপ্রোচ সড়কের দৈর্ঘ্য হবে আড়াই কিলোমিটার। স্থানীয় লোকজন বলেছেন, দীর্ঘদিন ধরে কুশিয়ারায় সেতু নির্মাণের স্বপ্ন দেখছেন তারা। এখন নির্ধারিত সময় ২০১৮ সালের ৩০ জুনের মধ্যেই যেন এই সেতুর উপর দিয়ে গাড়ি চালিয়ে রাজধানী ঢাকায় যাতায়াত করা যায় সেই দাবী তাদের।
রানীগঞ্জের বাসিন্দা অ্যাড. আজমল হোসেন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন,‘এই সেতু কেবল রানীগঞ্জ এলাকা নয়। পুরো সুনামগঞ্জ জেলার যোগাযোগ ব্যবস্থার চিত্র পাল্টে দেবে।’
বাজারের ব্যবসায়ী রজত রায় বললেন,‘সেতু’র চলমান কাজ দেখার জন্য আশপাশ এলাকা থেকে লোকজন আসেন। এলাকাবাসী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর কাছে এই বড় একটি উন্নয়ন কাজের জন্য কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেন। সেতু’র কাজ শেষ হয়ে যখন গাড়ি চলবে, তখনই স্বপ্নের পুরোপুরি বাস্তবায়ন শুরু হবে’।
ব্যবসায়ী গিরিন্দ্র দাস বলেন,‘সেতু’র উপর দিয়ে গাড়ী চলা শুরু হলে সুনামগঞ্জ থেকে ঢাকায় যেতে ২ ঘণ্টা সময় কম লাগবে। আসায় যাওয়ায় ৪ ঘণ্টা সময় কমবে। অর্থাৎ সেতু হলে জেলাবাসীর ঢাকায় গিয়ে কাজ শেষে দিনে দিনে বাড়ি ফেরা সম্ভব। এটি এক সময় কল্পনাও করা যেতো না।’ স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই সেতু’র কাজ যথা সময়ে শেষ করার জন্য লোকবল বাড়ানোরও দাবি করেছেন।
সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম বলেছেন,‘রানীগঞ্জ সেতু’র ফাউন্ডেশনের নিচের ৬০ ভাগ পাইলিংয়ের কাজ ৩ মাসের মধ্যেই শেষ হয়েছে। বর্ষার আগে ৬০ ভাগ পিয়ার উপরে ওঠে যাবে। অ্যাপ্রোচ সড়কের জন্য জমি অধিগ্রহণের কাজ শেষের দিকে। সেতু’র কাজ ১৫ থেকে ২০ ভাগ হয়েছে। এভাবে কাজ হলে মেয়াদের মধ্যেই কাজ শেষ হবে।’ তিনি জানান, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় থেকে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান (সিআর ২৪ বি এসএম বিল্ডার্স জয়েন্ট বেঞ্চার) কে কাজে কোন ভাবেই গাফিলতি করা যাবে না বলে বার বারই বলা হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24