বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ১১:৫৮ অপরাহ্ন

স্বস্থির বৃষ্টিতে অস্বস্থিতে কৃষক-এখনও অরক্ষিত জগন্নাথপুরের নলুয়ার হাওর

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৯ মার্চ, ২০১৫
  • ৫৮ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি : এক পসলা বৃষ্টিতে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়ার হাওরের কৃষকদের মধ্যে কিছুটা স্বস্থি দেখা দিলেও হাওরের দায়সারা নির্মিত বেড়িবাঁধ নিয়ে কৃষকরা অস্বস্থিতে আছেন। এছাড়াও পাউবোর দায়সারা ভূমিকা ও ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধের ফলে কৃষকরা অকাল বন্যায় শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন । জেলার অন্যতম বোরো ফসলের হাওরটির বাঁধ নির্মাণ কাজ ও স্লুইস গেটের কপাট এখন পর্যন্ত বন্ধ না হওয়ায় হাওরটি অরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে।
কৃষকদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, একমাত্র বোরো ফসলের ওপর নির্ভরশীল এ উপজেলার কৃষকরা বোরো ফসল ঘরে তুলতে পারলে সারা বছরের অভাব দূর করে স্বাবলম্ভীভাবে হন। আর বোরো ফসল গোলায় না উঠলে তাদের দুঃখ কষ্টের যেন শেষ থাকেনা। কৃষকদের অভিযোগ ২৮ফেব্রুয়ারির মধ্যে হাওর রক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ শেষ করার কথা থাকলেও এখনও শেষ হয়নি বেড়িবাঁধের নির্মাণের ৫০ ভাগ কাজ। শনিবার পর্যন্ত নলুয়ার হাওরের ভুরাখালি লাম্বাহাট্রি কবরস্থান বায়া আগলাহাট্রি পর্যন্ত বেড়িবাঁধে মাটি পড়েনি। এছাড়াও হালেয়ার বাঁধ, শালিকার বাঁধ, বেতাউকা ও বেড়ি এলাকার বেড়িবাঁধে যৎসামান্য মাটি ফেলায় কৃষকরা শঙ্কায় রয়েছেন।
বেতাউকা গ্রামের কৃষক জুয়েল মিয়া জানান, এখন পর্যন্ত হাওররক্ষা বেড়িবাঁধের অর্ধেক কাজ শেষ না হওয়ায় কৃষকরা এবার দুশ্চিন্তায় ভুগছেন। অকাল বন্যা হলে এসব বেড়িবাঁধ ঠিকবে না। তিনি বলেন, শুক্রবার রাতে এক পসলা বৃষ্টি কৃষকদের মধ্যে আনন্দ ও স্বস্থি দেখা দিলেও সকালে কৃষকরা বেড়িবাঁধের অবস্থা দেখে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। জুয়েল বলেন, এই মুহুর্তে ফসলের জন্য বৃষ্টি খুব প্রয়োজন। বৃষ্টি হলে ফলন ভালো হবে। কিন্তু দায়সারা বাঁধের কারণে বৃষ্টি এলেই কৃষকদের ঘুম হারাম হয়ে যায়।

উপজেলার স্বজনশ্রী গ্রামের কৃষক সুলতান মিয়া জানান, এখন পর্যন্ত এবার আমআমি, গাদিয়ালা,হরিনাকন্দি, ও আলখানা স্লুইস গেটের কপাট বন্ধ করার কোন উদ্যোগ নেয়নি পানি উন্নয়ন বোর্ড। যে কারণে নলুয়ার হাওরটি অরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে।

নলুয়ার হাওর উন্নয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান বলেন, নলুয়ার হাওরের বেড়িবাঁধগুলোর কাজ এবার ভালো হয়নি। হাওরের একটি পিআইসিতেও সাইনবোর্ড সাঁটানো নেই। প্রায় সব কটির বাঁধের ভাঙ্গায় সামান্য মাটি ফেলা হয়েছে। পাউবো কর্মকর্তাদেরও হাওরে দেখা যায়নি। তিনি বলেন, বেড়িবাঁধে বাঁশ ও বস্তা দিয়ে হারগরা দিতে হবে।

উপজেলা কৃষক, কৃষি কার্যালয় ও পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়,জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়া, মইয়া,পিংলা, মমিনপুরসহ ছোট বড় ১০টি হাওরে এবার ২৫ হাজার হেক্টর বোরো আবাদ করা হয়েছে। হাওরের ফসল রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ড ২৫টি পিআইসির মাধ্যমে হাওর রক্ষা বাঁধের কাজ শুরু করে। ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে কাজ শুরু করে ২৮ ডিসেম্বর কাজ শেষ করার কথা থাকলেও এ পর্যন্ত হাওর রক্ষা বাঁধের ৫০ ভাগ কাজ বাকী রয়েছে। ফলে কৃষকরা চিন্তিত হয়ে পড়েছেন। পানি উন্নয়ন বোর্ড এবার জগন্নাথপুর উপজেলায় ২৫টি পিআইসির অনুকুলে ১ কোটি ৫৪ লাখ টাকা অর্থ বরাদ্দ দিয়েছে। এছাড়াও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে আরো ১ কোটি টাকার কাজ চলছে।

নলুয়ার হাওরপাড়ের বাসিন্দা চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড পিআইসিদেরকে সময়মতো টাকা না দেয়ায় কাজ এখনও শেষ হয়নি। তবে তিনি দাবী করেন, পাউবো যে পরিমাণ টাকা দিয়েছে পিআইসিগুলো তার চেয়ে বেশী কাজ করেছে। তিনি নলুয়ার হাওরের সবকটি বাঁধের কাজ শেষ করতে চেষ্ঠা চলছে বলে জানান।

জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা বলেন, ২০১০ সালে ১৫ এপ্রিল অকাল বণ্যায় নলুয়ার হাওর তলিয়ে যাওয়ার পর কৃষকদের আন্দোলন ও দাবীর প্রেক্ষিতে সরকার হাওর রক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজে ঠিকাদারী প্রথা বিলুপ্ত করে পিআইসি প্রথা (প্রজেক্ট ইমপ্লিমেন্ট কমিটি) নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি চেয়ারম্যান মেম্বারদের সভাপতি ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিকে সাধারণ সম্পাদক করে বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু করে। কিন্তুু এসব কাজ শেষ করতে পাউবো পিআইসদেরকে অর্থ সহায়তা না করায় যথাসময়ে বাঁধের কাজ শেষ হচ্ছে না। তিনি বলেন, জগন্নাথপুরের নলুয়ার হাওরের বাঁধের কাজ এখনও শেষ হয়নি। ইতিমধ্যে ঝড়বৃষ্টি শুরু হওয়ার কৃষকদের শঙ্কা বেড়ে গেছে। দ্রুত পিআইসিদেরকে অর্থ বরাদ্দ দিয়ে হাওররক্ষা বেড়িবাঁধের কাজ শেষ করার দাবি জানান তিনি।

হাওররক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজের তদারক কমিটির সভাপতি জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, নলুয়ার হাওর ঘুরে যেসব বেড়িবাঁধের কাজ দায়সারা হয়েছে সেগুলোকে দ্রুত সঠিকভাবে কাজ শেষ করতে তাগদা দিয়েছি। তিনি বলেন, অর্থ প্রাপ্তির বিষয়টি সমস্যা হওয়ায় কাজ বিলম্বিত হচ্ছে। সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাঠ কর্মকর্তা মোসাদ্দেক আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, নলুয়ার হাওরের বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজের বিষয়ে আমাদের তদারকি রয়েছে। কিছুদিনের মধ্যেই সবকটি বেড়িবাঁধ ও স্ল্ইুসগেটের কপাট বন্ধ করে হাওররক্ষা করা হবে। ৩১ মার্চের মধ্যে কাজ শেষ করার চেষ্ঠা চলছে বলে তিনি দাবী করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24