বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:১০ অপরাহ্ন

স্বামীর পরকীয়া ঠেকাতে না পেরে গৃহবধূর আত্মহনন

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৪৭ Time View

স্টাফ রিপোর্টার
দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী ছন্দা (ছদ্মনাম) জানালার গ্লাস দিয়ে দেখছিল মা দরজা বন্ধ করে উড়না দিয়ে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস লাগাচ্ছে। এমন দৃশ্য দেখে সে আর্তচিৎকার করে উঠে । মাকে অনুনয় বিনয় করে ফাঁস না লাগানোর জন্য। কিন্তু‘মা শিশু কন্যার দিকে কোন নজর না দিয়ে গলায় ফাঁস পড়ে নেয়। শেষ রক্ষা করতে ছন্দা মামা ঈশতিয়াককে (৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থী) ডেকে আনে। ঈশতিয়াক জানালার গ্লাস ভেঙে এবং দরজা খোলে বোনের ফাঁস ঠেকানোর চেষ্টা করছিল। এসময় ঈশতিয়াক মোবাইল করে বাড়ির বাইরে থাকা বোনের জামাই ও তাঁর বাবাকে বোনের এই আত্মহত্যার কথা জানায়। কিন্তু তাঁরা আসতে আসতেই শহরের মল্লিকপুরের এক বাসার ভাড়াটিয়া তিন সন্তানের জননী গৃহবধূ আয়েশা আক্তার গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করলেন। শনিবার সকালে সাড়ে ৮ টায় এই ঘটনা ঘটে। আয়েশার ভাই ঈশতিয়াক ও বাবা আলী আকবর পুলিশকে জানিয়েছেন ‘স্বামীর পরকীয়ার কারণেই আয়েশা আত্মহত্যা করেছেন।’
পুলিশ জানিয়েছে, আয়েশা চিরকুটে লিখে গেছেন তাঁর মৃত্যুর জন্য স্বামী দায়ী। স্বামীর অমানসিক আচরণেই সে আত্মহত্যা করেছে।
তাহিরপুর উপজেলার বৃন্দারবন গ্রামের নুরুজ্জামানের ছেলে বিল্লাল মিয়ার (৪০) সঙ্গে ১২ বছর আগে বিয়ে হয় বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ছাতারকোনার আলী আকবরের মেয়ে আয়েশা আক্তার রতœার (৩০)। এই দম্পত্তির ৩ সন্তান। বিল্লাল মিয়া চাকুরি করেন একটি উন্নয়ন সংগঠনে।
গত ৩ মাস হয় আলী আকবরের সঙ্গে তাঁর অফিসেরই একটি মেয়ের পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মেয়েটিকে এক পর্যায়ে নিজের বাসায় থাকার ব্যবস্থা করেন বিল্লাল মিয়া। কিন্তু স্ত্রী আয়েশা সেটি মানতে পারেন নি বলে তাকে বাসা থেকে বিদায় করা হয়। এরপরও বিল্লালের সঙ্গে ঐ মেয়েটির পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল। এর জের ধরে বিল্লাল ও আয়েশার মধ্যে ঝগড়া বিবাদও লেগে থাকতো। শেষ পর্যন্ত স্বামীকে পরকীয়ার ফাঁদ থেকে ফিরাতে না পেরে নিজেই আত্মহননের পথ বেছে নেয় গৃহবধূ আয়েশা।
ঘটনার পর স্বামী বিল্লাল মিয়াকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
সুনামগঞ্জ সদর থানার ওসি শহীদুল্লা জানিয়েছেন, আয়েশার বাবা আলী আকবর বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সাবইন্সপেক্টর একেএম জালাল উদ্দিন বলেন,‘আমরা বিল্লালকে জিজ্ঞাসাবাদ করছি এবং তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ যাচাই করছি।’
সুনামগঞ্জের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার তাপস রঞ্জন ঘোষ বলেন,‘আয়েশার লিখে যাওয়া চিরকুট এবং তার ভাই ইশতিয়াক এবং বাবা আলী আকবর- বিল্লালের বিরুদ্ধে পরকীয়ার অভিযোগ এনেছেন, সেটি যাচাই করছে পুলিশ।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24