শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর টমটম গাড়ীর জন্য জগন্নাথপুরের এক চালককে রশিদপুরে নিয়ে খুন,গ্রেফতার-১ জেলা আ.লীগের গণমিছিল ৫ বছরেও শেষ হয়নি জগন্নাথপুরের ভবেরবাজার-গোয়ালাবাজার সড়কের কাজ,দুর্ভোগ লাখো মানুষের “জুম্মু কাশ্মীরে,গণতহ্যা শুরু করেছে মোদী সরকার”

হত্যা মামলায় দুই ভাইয়ের যাবজ্জীবন

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ৯৯ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

কিশোরগঞ্জে আবদুল খালেক সরকার হত্যা মামলায় দুই ভাইকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও এক লাখ টাকা করে জরিমানা করেছেন আদালত। এ ছাড়া এই মামলার অপর ছয় আসামিকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আবদুর রহিম আসামিদের উপস্থিতিতে এই রায় দেন।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত দুজন হলেন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার লতিবাবাদ এলাকার মৃত আবেদ আলীর ছেলে আক্কাছ মিয়া ও তারা মিয়া। আর খালাসপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা হলেন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার লতিবাবাদ এলাকার খায়রুল ইসলাম, মো. ইয়াছিন, মঞ্জিল মিয়া, আঙ্গুর মিয়া, শাহানা আক্তার ও হোসনা আক্তার।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার লতিবাবাদ এলাকার বিএডিসির কর্মচারী আবদুল খালেক সরকারের সঙ্গে আসামিদের জমি নিয়ে বিরোধ ছিল। এর জেরে ২০১২ সালের ৩০ জুন দুপুরের দিকে বাড়ির সামনে আবদুল খালেকের ছেলে আসাদুর রহমানের সঙ্গে আক্কাছ মিয়ার বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে আসাদুলের বাবা আবদুল খালেক এগিয়ে আসেন। এ সময় আক্কাছ ও তাঁর লোকজন লাঠিসোঁটা দিয়ে পিটিয়ে ও শাবল দিয়ে আঘাত করে আবদুল খালেককে গুরুতর জখম করেন। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই দিন সন্ধ্যায় আবদুল খালেক মারা যান।

পরের দিন খালেকের ছেলে সাইদুর রহমান বাদী হয়ে আটজনকে আসামি করে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্ত শেষে ২০১৩ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি পুলিশ ৮ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় ছয় আসামিকে খালাস দেওয়া হয়।

মামলাটি পরিচালনা করেন সরকারি কৌঁসুলি শাহ আজিজুল হক ও আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী জামাল উদ্দিন ও এ বি এম লুৎফর রাশিদ।
সৌজন্যে- প্রথম আলো

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24