শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
অফিসার্স ক্লাব থেকে রানীগঞ্জের তহশীলদারসহ ৪ জুয়াড়ি গ্রেফতার আজানের মর্মবানী জগন্নাথপুরে ২২তম ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সেই সড়কে ২৩ কোটি টাকার টেন্ডার সম্পন্ন, নতুন বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হতে পারে জগন্নাথপুরে ১৫ দিন পর অবশেষে ধান কেনা শুরু জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে দুর্বৃত্তরা হত্যা করল স্টুডিও’র মালিক আনন্দকে সিলেট জেলা আ’লীগের নেতৃত্বে লুৎফুর-নাসির, মহানগরে মাসুক-জাকির প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় সহায়তা কেন্দ্র: প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরশহরে স্টুডিও দোকানদারের মরদেহ পাওয়া গেছে হিন্দুরাষ্ট্রের পথে ভারত: সংসদে বিজেপি নেতা

হলি আর্টিজান মামলা:৭ জনের ফাঁসি, একজন বেকসুর খালাস

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
  • Update Time : বুধবার, ২৭ নভেম্বর, ২০১৯
  • ১২৭ Time View

কূটনৈতিক জোন গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরায় ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ঘটনায় পুলিশের দায়ের করা মামলায় ৭ জনকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। আজ বেলা ১২টার দিকে ঢাকার সন্ত্রাস দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মজিবুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন। এছাড়া এ মামলার অভিযুক্ত একজনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, গাইবান্ধার জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী, নওগাঁর আসলাম হোসেন ওরফে আসলামুল ইসলাম ওরফে রাশেদ ওরফে র‌্যাশ, কুষ্টিয়ার আবদুস সবুর খান ওরফে সোহেল মাহফুজ ওরফে হাতকাটা মাহফুজ, জয়পুরহাটের হাদীসুর রহমান ওরফে সাগর, বগুড়ার রাকিবুল হাসান ওরফে রিগ্যান, একই জেলার মামুনুর রশীদ ওরফে রিপন ও রাজশাহীর শরিফুল ইসলাম ওরফে খালেদ। চাঁপাইনবাবগঞ্জের মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজানকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত।

৫১ কার্যদিবস শেষে এ রায় প্রদান করা হয়েছে। রায় আদালতে পর্যবেক্ষণে জাপানের একটি প্রতিনিধি দলসহ বিদেশিরা উপস্থিত ছিলেন।

নথি থেকে জানা যায়, ২০১৬ সালের ১লা জুলাই রাত পৌনে ৯টার দিকে ঢাকার হলি আর্টিজান রেস্তোরায় প্রবেশ করে হামলা চালায় ৫ জঙ্গি। তারা ভেতরে থাকা সবাইকে জিম্মি করে নির্মম হত্যাকাণ্ড চালায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে জঙ্গিদের হামলায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হন।

পরে সেনা কমান্ডোদের অভিযানে রোহান ইমতিয়াজ, নিবরাস ইসলাম, মীর সামিহ মোবাশ্বের, খায়রুল ইসলাম পায়েল ও শফিকুল ইসলাম উজ্জ্বল নামে পাঁচ জঙ্গি নিহত হয়। সেখান থেকে ১৭ বিদেশি ও চার জন বাংলাদেশির লাশ উদ্ধার করা হয়। জঙ্গিরা তাদের কুপিয়ে ও গুলি করে নৃশংস কায়দায় হত্যা করে।

বিশ্বব্যাপি আলোচিত এই ঘটনার দু’দিন পর গুলশান থানার এসআই উত্তম কুমার বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। দু’বছর ২২ দিন তদন্ত শেষে ২০১৮ সালের ২৩শে জুলাই তদন্তকারী সংস্থা পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম এন্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের ইন্সপেক্টর হুমায়ুন কবীর সন্ত্রাস বিরোধী আইন-২০০৯ (সংশোধনী ২০১৩) এর ৬(২)/৭/৮/৯/১০/১২/১৩ ধারায় আদালতে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দাখিল করেন। চার্জশিটে অভিযুক্ত ১৩ জন ২০১৬ সালের ১লা জুলাই থেকে পরবর্তী সময় পর্যন্ত বিভিন্ন অভিযানে নিহত হয়েছেন। জঙ্গি হামলার অভিযোগ থেকে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক রেজাউল হাসনাত করিম ও কানাডার টরেন্টো ইউনিভার্সিটির ছাত্র তাহমিদ হাসিব খানকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

ঘটনা সম্পর্কে জানেন কিংবা ঘটনা দেখেছেন, প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জানেন- এরকম ১১৩ জন প্রত্যক্ষদর্শীর সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। এদের মধ্যে ১৭ জন সাক্ষী ঘটনার দিন হলি আর্টিজানের ভেতর অবস্থান করছিলেন। তাদেরকে কমান্ডো বাহিনী, পুলিশ ও র‌্যাব উদ্ধার করে। রায় ঘোষণার দিন ধার্য করার আগে এই মামলার ৭৫ টি আলামত আদালত পর্যবেক্ষণ করেন।

সূত্র জানায়, ২০১৮ সালের ২৬শে জুলাই সিএমএম আদালত মামলাটি সন্ত্রাস দমন ট্রাইব্যুনালের বদলির আদেশ দেন। ওই হামলার কারণ ও উদ্দেশ্য সম্পর্কে মামলার চার্জশিটে বলা হয়, এই হামলার মূল পরিকল্পনাকারী হলো বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডিয়ান নাগরিক তামিম আহমেদ চৌধুরী। ভয়াবহ এই হামলায় চিহ্নিত ২১ জনের মধ্যে ৫ জন সরাসরি অংশ নেয়। বাকিরা হামলার পরিকল্পনা, সমন্বয়, প্রশিক্ষণ এবং অস্ত্র- বোমা সংগ্রহসহ বিভিন্ন পর্যায়ে জড়িত ছিলো। হামলার মূল প্রশিক্ষক (মাস্টার ট্রেইনার) মেজর জাহিদ কিংবা তানভীর কাদেরি, নুরুল ইসলাম মারজান ছিলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আসামী। গুলশান হামলার জন্য বগুড়ার দুই জঙ্গিকে নিয়োগ করে রাজীব আর বসুন্ধরায় বাসা ভাড়া ও জঙ্গিদের উদ্বুদ্ধও করে সে। জঙ্গি সাগর সীমান্তের ওপার থেকে আনা অস্ত্র ঢাকায় মারজানের কাছে পৌঁছায়। বাশারুজ্জামান মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশ থেকে দু’দফা হুন্ডির মাধ্যমে আসা ২০ লাখ টাকা গ্রহণ করে এবং সেই টাকা গুলশান হামলায় ব্যবহৃত হয়।

যারা এই হামলা চালিয়েছিলো তারা ৫ থেকে ৬ মাস ধরে পরিকল্পনা করেছিলো। সেখানে হামলা চালানো জঙ্গিদের উদ্দেশ্য ছিলো আন্তর্জাতিক জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোর দৃষ্টি আকর্ষণ করা। আর সরকারকে বেকায়দায় ফেলতেও জঙ্গিরা এই হামলা চালিয়েছিলো। অভিযানে নিহত হলি আর্টিজানের পাচক সাইফুল ইসলামকে শুরুতে সন্দেহের তালিকায় রাখা হলেও তার সম্পৃক্ততার কোনো প্রমাণ তদন্তকারীরা পাননি। এমনকি জঙ্গি হামলার পর আটক হলি আর্টিজানের ডিশ ক্লিনার জাকির হোসেন শাওনের কোন সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়নি।

হামলায় অংশ নেয়া নব্য জেএমবির ৫ জঙ্গি নিবরাস ইসলাম, মীর সামেহ মোবাশ্বের, রোহান ইবনে ইমতিয়াজ, খায়রুল ইসলাম পায়েল ও শফিকুল ইসলাম উজ্জ্বল নিহত হয় ওই অভিযানে। আর পরে জঙ্গিবিরোধী বিভিন্ন অভিযানে হামলার মূল পরিকল্পনাকারী তামিম চৌধুরী, মেজর (চাকরিচ্যূত) জাহিদুল ইসলাম, তানভীর কাদেরী, নুরুল ইসলাম মারজান, আবু রায়হান তারেক, সারোয়ার জাহান, বাসারুজ্জামান চকলেট ও ছোট মিজান নিহত হন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24