বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০৩:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে দুইটি সরকারি ইজারাকৃত জলাশয় থেকে মাছ শিকারের অভিযোগ জগন্নাথপুরে পরীক্ষা কেন্দ্রে মুঠোফোন রাখার দায়ে শিক্ষক বহিষ্কার জগন্নাথপুরে জুয়া খেলার দায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত চারজন কারাগারে ২৫ জনকে আসামি করে আবরার হত্যার চার্জশিট আ’লীগে দূষিত রক্তের প্রয়োজন নেই: কাদের আনন্দবাজার-এর বিশ্লেষণ মুসলিমরা ক্ষমতাহীন হয়ে পড়ছে ভারতে?

হাওরজুড়ে অভাবের পূর্বাভাস

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১১ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৭০ Time View

এনামুল হক এনি, ধর্মপাশা
শিলাবৃষ্টি কিংবা আগাম বন্যায় সুনামগঞ্জে ফসলহানির ঘটনা বিগত বছরগুলোতে ঘটলেও এবার পানি উন্নয়ন বোর্ডের সীমাহীন দুর্নীতি এবং পাহাড়ী ঢল ও বৃষ্টির পানিতে সৃষ্ট আগাম বন্যা পুরো হাওরাঞ্চলে যে ভয়াবহতা সৃষ্টি করেছে তা অতীত ইতিহাসকে হার মানিয়েছে। ১৯৫৮-৫৯ সালে চৈত্র মাসের শেষের দিকে একবার এমন অকাল বন্যা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন, ধর্মপাশা উপজেলার চামরদানি ইউনিয়নের সাড়ারকোনা গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তি রমেন্দ্র নারায়ণ সরকার।
তিনি জানিয়েছেন, সেবার বন্যার পানি টানা বাড়েনি। কৃষক কিছু ফসল তুলতে পারলেও হাওরাঞ্চলে তীব্র অভাবের মতো অবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল। একই গ্রামের কৃষক অজিত সরকার। তিনি এবার ১৬ একর জমি ৭৫ হাজার টাকার বিনিময়ে রঙজমা এনে চাষ করেছিলেন। টগার হাওরে অবস্থিত জমি পুরোটাই এখন পানির নিচে। ধার দেনা করে তিনি চাষাবাদ করেছিলেন। এই জমি থেকে ৭শ থেকে ৮শ মণ ধান পাওয়ার কথা তাঁর। সেই ধান বিক্রি করে চার পাঁচ লাখ টাকা হাতে আসার কথা। সেই টাকায় নতুন করে ধানের ব্যবসায় বিনিয়োগ করারও পরিকল্পনা ছিল তার। কিন্তু তিনি এখন শূন্য। অজিত তার গোয়ালের ছয়টি গরুর মধ্যে চারটি বিক্রি করে দিয়েছেন। শুধু অজিতই নয়। হাওরাঞ্চলের অধিকাংশ কৃষকই গো-খাদ্যের অভাবে তাদের গরুগুলো বিক্রি করে দিচ্ছেন পানির দামে।
জেলার ধর্মপাশায় রয়েছে ছোটবড় মিলিয়ে ৭৮টি হাওর। উপজেলা কৃষি অফিসের হিসেব অনুযায়ী উপজেলার এ সব হাওরে রয়েছে ২৪ হাজার ৮০০ হেক্টর জমি। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শোয়েব আহমেদ জানান, ২৪ হাজার ৮০০ হেক্টর জমির মধ্যে ২৩ হাজার ৮১৮ হেক্টর পানিতে তলিয়ে গেছে।
যে ১০৮২ হেক্টর জমি এখনও টিকে আছে সেগুলো মধ্যনগর ইউনিয়নের একটি হাওরে। তবে ওই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রবীর বিজয় তালুকদার জানালেন, গত বছরও ধান পাকার আগে আগে বন্যা এসেছিল। চাষিরা কাঁচাপাকা ওই ধান কেটে এনে বছরের খোরাকি সংগ্রহ করতে পেরেছিল। কিন্তু এবার তা হয়নি।
সাড়ারকোনা গ্রামের সবচেয়ে কৃষক মোর্তোজ আলী এবার চাষ করেছিলেন ৩০ একর জমি। ব্যাংকের কাছে, এনজিওর কাছে রয়ে গেছে তার দেনা। মোর্তোজ আলীর আপন ছোট ভাই অ্যাড. আবদুল মজিদ তালুকদার বললেন, জলমহালগুলো উন্মুক্ত করে দিলে হাওরে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ
কিছুটা টিকে থাকতে পারবে এবং কৃষি ঋণ মওকুফ এবং এনজিওরা যেন তাদেরকে একবছর পর ঋণ শোধ করার সুযোগ দেয় সে ব্যবস্থা সৃষ্টি করে দিতে হবে সরকারকে।
ধর্মপাশা উপজেলার চন্দ্রসোনার থাল হাওর-সংলগ্ন জয়শ্রী গ্রামের বাসিন্দা নূরে আলম সিদ্দিকী জানালেন, এমন দুর্যোগ তিনি আর আগে কখনও দেখেননি। উপজেলা যুবলীগ নেতা ও জয়শ্রীর বাসিন্দা এনায়েত হোসেন জানান, এখনই দুর্যোগ মোকাবেলার ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে সামনে ভয়াবহ দুর্দিন অপেক্ষা করছে। তিনি বলেন, জরুরি ত্রাণ সরবরাহ না এলে দুর্ভিক্ষ দেখা দিবে। তবে ত্রাণ এলেও যেন তা বণ্টনের দায়িত্ব কেবল জনপ্রতিনিধিদের হাতে না থাকে। প্রত্যেক এলাকায় দলমত নির্বিশেষে লোকজন নিয়ে দুর্যোগ মোকাবেলা কমিটি করতে হবে। নইলে জনপ্রতিনিধিরা সব লুটেপুটে খাবে।
পুরো হাওরাঞ্চলে যখন নতুন ধানের গন্ধে চারদিক আনন্দে ভরে থাকার কথা সেখানে এমন কৃষকের চাপা কান্না। কৃষকের সাথে শ্রমিক শ্রেণির লোকজনেরা পড়েছেন বিপাকে। এই সময়ে ধান কাটার শ্রমিকেরা কাজ করে পুরো বছরের খোরাকি সংগ্রহ করে থাকেন। কিন্তু এবার তারাও কোনো কাজ পাচ্ছে। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে ভিড় জমাচ্ছেন শ্রমিকেরা। পরিচয়পত্র সংগ্রহ করে কাজের সন্ধানে শহরের দিকে প্রতিদিনই কেউনা কেউ রওয়ানা দিচ্ছেন। তিন বেলা ভরপেট ভাত খেতে অভ্যস্ত মানুষ মাঠের ফসল ভেসে যাওয়ায় ভয়াবহ উদ্বেগে দিন কাটাচ্ছে। গত শুক্রবার থেকে গতকাল সোমবার পর্যন্ত টগার হাওর, চন্দ্রসোনার থাল ও ধারাম হাওরের বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে সর্বত্রই মানুষের কণ্ঠে আতঙ্কের ধ্বনি শোনা গেছে। ধর্মপাশা উপজেলাসহ সুনামগঞ্জ জেলাকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা করে সরকারি সহযোগিতা প্রদানের জন্য দলমত নির্বিশেষে সাধারণ মানুষ নানান কর্মসূচি পালন অব্যাহত রেখেছেন। কর্মসূচিতে তিনি ভিজিডি, ভিজিএফ ও ন্যায্যমূল্যের মাধ্যমে দুর্গত এলাকার প্রত্যেক পরিবারের জন্য চাল বিতরণের ব্যবস্থা গ্রহণ, কৃষি ঋণ মওকুফ, আগামী অর্থবছরের কৃষি ঋণের ব্যবস্থা করা, সার, বীজ ও অন্যান্য কৃষি উপকরণ বিনামূল্যে দেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ, সুনামগঞ্জ জেলার ছোট-বড় সব জলমহাল খাজনা না নিয়ে সবার জন্য উন্মুক্ত ঘোষণা করা এবং খোলাবাজারে ১০ টাকা কেজি চাল বিক্রির উদ্যোগ নেওয়ার জোর দাবি জানানো হচ্ছে ।
ধর্মপাশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মামুন খন্দকার বলেছেন, ‘ধর্মপাশা উপজেলার সর্বত্রই হাহাকার শুনছি আমি। এখানকার হাওরের ২৪ হাজার ৮০০ হেক্টর জমির মাত্র ১০৮২ হেক্টর টিকে আছে। বছরের এই একটি চাষাবাদই এখানকার অর্থনীতি। এই মানুষগুলোকে বাঁচানোর জন্য অবশ্যই বিশেষ ব্যবস্থা নিতে হবে।’
জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া শুরু হয়েছে। যেন খাদ্যসংকট দেখা না দেয় সেজন্য এরই মধ্যে প্রত্যেক উপজেলায় ওএমএসের মাধ্যমে তিন টন আটা এবং তিন টন চাল দেওয়া হয়েছে।’
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ইনস্টিটিউটের সহকারি অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘যখন কোনো এলাকার মানুষ নিজের সম্পদ দিয়ে টিকে থাকার ক্ষমতা হারায়, তখনই তাদেরকে দুর্গত বলা যাবে।’ হাওরাঞ্চলের অকাল বন্যা ও বানভাসি মানুষের বিবরণ শুনে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার এই শিক্ষক বলেন, ‘একাডেমিক নলেজ ও পার্সোনাল এথিকস থেকে যা বুঝতে পারছি আমার ওপর দায়িত্ব ন্যস্ত হলে আমি অবশ্যই হাওরকে দুর্গত এলাকা বলে ঘোষণা করে দিতাম।’
হাওরকে দুর্গত এলাকা ঘোষণার দাবি সম্পর্কে দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জাকির হোসেনের আকন্দের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, দুর্গত এলাকা ঘোষণার জন্য সবচেয়ে বড় শর্ত ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়ে যাওয়া। হাওরের পরিস্থিতি ভয়াবহ। সেখানে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন। তবে এখন পর্যন্ত জেলা পর্যায় থেকে কোনো প্রস্তাবনা মন্ত্রণালয়ে আসেনি। প্রত্যেক জেলায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার জন্য একটি কমিটি রয়েছে, দুর্গত এলাকা ঘোষণার জন্য ওই কমিটি থেকে প্রস্তাব আসতে হবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24