রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯, ০২:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে আশার আলো ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে তিন শতাধিক বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ জগন্নাথপুরে বিপর্যস্ত যোগাযোগ ব্যবস্থা,১০ কোটি টাকার ক্ষতি, লাখো মানুষের দুর্ভোগ জগন্নাথপুরে বিদ্যুৎ স্পর্শে শিশুর মৃত্যু সুনামগঞ্জের নিরপরাধ ব্যক্তিদের মিথ্যা মামলায় জড়ানোর প্রতিবাদে মানববন্ধন যে পরিচয়ে হোয়াইট হাউসে যান প্রিয়া সাহা দুদকের তদন্তের অধিকাংশই চুনোপুঁটির বিরুদ্ধে : ইকবাল মাহমুদ প্রিয়া সাহার বক্তব্যকে ‘দেশদ্রোহী’ বললেন কাদের প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করবেন ব্যারিস্টার সুমন দোয়ারাবাজারে ইউএনওকে প্রাণনাশের হুমকি, থানায় জিডি ভারতের বিহারে এবার গোরক্ষকরা হত্যা করল ৩ জনকে

হাওরাঞ্চলে ফড়িয়াদের কাছে কৃষকের ধরনা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১২ মে, ২০১৯
  • ১৫০ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক ::
সুনামগঞ্জে ধান বিক্রয় নিয়ে বিপাকে কৃষক। হাওরাঞ্চলের একেক স্থানে একেকরকম ধানের দাম। কোথাও ধানের মণ ৪৫০ টাকা আবার কোথাও ৬৫০ টাকা। অর্থাৎ অঞ্চল ভেদে ধানের দাম কম বেশি হচ্ছে। কৃষক সংগঠকরা বললেন,‘সরকার ধান না কোনায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।’ ফড়িয়ারা ইচ্ছা-খুশী ধানের দাম নির্ধারণ করছে।
কৃষক সংগ্রাম সমিতির কেন্দ্রীয় আইন বিষয়ক সম্পাদক, ধর্মপাশার বাদশাগঞ্জের বাসিন্দা খায়রুল বাশার ঠাকুর খান শনিবার বিকালে জানিয়েছেন, চিকন জাতের বা ব্রি ২৮ জাতের প্রতিমণ ধান ৫০০ থেকে ৫১০ টাকা এবং মোটা জাতের বা ব্রি ২৯ জাতের ধান ৪৫০ থেকে ৪৮০ টাকায় বিক্রয় হচ্ছে। কৃষকরা বাধ্য হয়ে কম দামে ধান বিক্রি করতে হচ্ছে। মধ্যনগরে আড়তে নিয়ে গেলে দাম কিছু বেশি পাবে কিন্তু পরিবহন খরচ দিয়ে পুষাবে না, এজন্য অনেকে আড়তেও যাচ্ছে না।’ সরকার ধান না কেনায় কৃষকরা এমন সংকটে পড়েছে বলে মন্তব্য করেন এই কৃষক নেতা।
বিশ্বম্ভরপুরের কৃষক নেতা স্বপন কুমার বর্মণ বলেন,‘চিকন ধান ৫৫০ টাকা এবং মোটা ধান ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মানুষ ধান নিয়ে রীতিমত বিপদে পড়েছে। উৎপাদন খরচের চেয়ে এক-দেড়’শ টাকা কম দামে ধান বিক্রি করছেন কৃষকরা।’
শাল্লা প্রেসক্লাবের সভাপতি পিসি দাস বলেন,‘ধান কিনতে কেউ এখন আর কৃষকের কাছে আসছে না। সকল কৃষকই ফড়িয়াদের দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে ধরনা দিচ্ছে ধান কেনার জন্য। ভাল চিকন ধান ফড়িয়ারা ৬০০ টাকা এবং মোটা ধান ৫৫০ টাকায় বিক্রয় হচ্ছে।’
মধ্যনগরের সাড়ার কোণার কৃষক অজিত শংকর রায় বলেন,‘মধ্যনগরের বাজারে ২৯ ধান ৬২০ থেকে ৬৩০ এবং ২৮ ধান ৬৫০ থেকে ৬৬০ টাকায় বিক্রয় হচ্ছে।’
হাওরাঞ্চলের সবচেয়ে বড় ধানের আড়ৎ মধ্যনগর বাজারে এখন দিনে ৯ থেকে ১০ হাজার মণ ধান কেনা হচ্ছে জানিয়ে ধানের আড়ৎদার সমিতির সভাপতি জ্যোতির্ময় রায় জানালেন, ব্রি ২৮ ধান শনিবার ৬৭০ থেকে ৬৭৫ টাকা এবং ব্রি ২৯ জাতের ধান ৬৩৫ থেকে ৬৪০ টাকায় কিনেছেন তারা।
সুনামগঞ্জ জেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এনাম আহমদ বলেন সরকার ১০৪০ টাকা ধানের মণের মূল্য নির্ধারণ করে ২৫ এপ্রিল থেকে ধান কেনার নির্দেশ দিলেও জেলার কোথাও এখনো ধান কেনা শুরু হয়নি। সরকার সুনামগঞ্জ থেকে ধান কেনার যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে তাও হাস্যকর।’
সুনামগঞ্জ জেলা খাদ্য কর্মকর্তা মো. জাকারিয়া মোস্তফা জানালেন, ২৯ এপ্রিল ধান ক্রয়ের চিঠি পেয়েছেন। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ক্রয় কমিটির সভা হয়েছে সুনামগঞ্জে এবার ৬৫০৮ মে.টন ধান কেনা হবে। ২-৩ দিনের মধ্যেই কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান কেনা শুরু হবে।
সুনামগঞ্জে এবার দুই লাখ ২৪ হাজার ৪৪০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। এবার ধানের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে নয় লাখ ৭৫ হাজার মেট্রিক টন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24