শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ০২:২৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের রসুলপুর আর্দশ ক্রিকেট ক্লাবের জার্সি উম্মোচন শাহারপাড়ায় মেডিকেল সেন্টার উদ্ধোধন ও মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত এম এ মান্নান প্রাথমিক মেধাবৃত্তি পরীক্ষা ২৯ নভেম্বর ‘মার্টিন স্বপ্নে ইসলামের কোনো এক নবীর কথা বারবার উচ্চারণ করছিল’ জগন্নাথপুরের নয়াবন্দর-শংকপুর সড়ক উদ্বোধন করলেন পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুরে পরিকল্পনামন্ত্রী-ক্ষমতায় আসতে না পেরে একটি মহল গুজব ছড়াচ্ছে মিরপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শেরীন শপথ নেবেন ২৫ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমার একাধিক মামলার আসামি গ্রেফতার সাহাবাদের যুগে শিশুদের শিক্ষায় অধিক গুরুত্ব দেওয়া হতো জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায়

হাওরের দুর্দশা দেখতে আজ শাল্লায় আসছেন প্রধানমন্ত্রী

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৬৬ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
হাওরের ফসল ডুবে দেশের প্রায় ২০ ভাগ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন সুনামগঞ্জের কার্ডধারী প্রায় ৩ লাখ কৃষক ও জেলে পরিবারসহ কমপক্ষে ৫ লাখ পরিবার। এরা সামনের দিনগুলো কীভাবে খেয়ে বাঁচবেন, কীভাবে ছেলে-মেয়েকে পড়াশুনা করাবেন, এসব বিষয় চিন্তা করে যখন দিশেহারা, ঠিক সেই সময় (রোববার) রাষ্ট্রপ্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসছেন হাওরভাটি’র উপজেলা শাল্লার ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতে। কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোনা, হবিগঞ্জ এবং সুনামগঞ্জ জেলার সীমান্তবর্তী উপজেলা শাল্লায় প্রধানমন্ত্রী’র আগমনকে হাওরের মানুষ মনে করছেন, ‘পুরো হাওরাঞ্চলের মানুষের দুঃখ দুর্দশার সাথী হতেই আসছেন প্রধানমন্ত্রী’।
চৈত্রের মাঝামাঝি সময়ে কোন কোন হাওরে বাঁধ না হওয়ায় এবং কোন কোন হাওরে বাঁধ ভেঙে সুনামগঞ্জের এক লাখ ৬৬ হাজার ৬৮২ হেক্টর ফসল ডুবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন হাওরাঞ্চলের কৃষক এবং ধান পঁচে হাওরের মাছ মরে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন জেলেরা। এই অবস্থা পুরো হাওরজুড়ে। কাজ ও খাবারের সন্ধানে হাওরাঞ্চল ছেড়ে রাজধানীমুখী বা শহরমুখী হচ্ছে অনেক প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র কৃষক পরিবার। কৃষকদের এই দুর্যোগে প্রধানমন্ত্রী হাওরবাসীকে বাঁচাতে প্রয়োজনীয় সকল উদ্যোগই গ্রহণ করবেন বলে মনে করছেন হাওরবাসী।
শাল্লার ডুমরা গ্রামের দরিদ্র কৃষাণী ময়না দাস বলেন,‘আমাদের যা ছিল, সবই পানির নীচে। গরু, ছাগল সবই বিক্রি করে সামান্য পরিমাণে চাল কিনে খেয়ে না খেয়ে বেঁচে আছি। প্রধানমন্ত্রী আমাদের বাঁচাতে আসছেন, আমাদের তাঁর কাছে কিছুই চাইতে হবে না, তিনি সবই বুঝেন’।
জ্যেষ্ঠ আইনজীবী সুনামগঞ্জ জেলা বারের সাবেক সভাপতি অ্যাড. হুমায়ুন মঞ্জুর চৌধুরী বলেন,‘বাঁধ নির্মাণের সময় স্থানীয় পত্রিকাগুলোয় বড় বড় করে ছাপা হয়েছে বাঁধের কাজ শুরুই হয়নি। পরে প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়েছে এবং ফসল ডুবেছে। সুতরাং প্রধানমন্ত্রী নিশ্চয়ই এসব বিষয়
জানেন, তিনি সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়ে হাওরবাসীকে বাঁচাবেন। এবার কৃষকদের বাঁচাতে বকেয়া ঋণ মওকুপ, বিনা সুদে নতুন ঋণ প্রদান এবং এই বছরের খাজনাও মওকুপ করবেন বলে মনে করছি আমরা।’
শিক্ষাবিদ পরিমল কান্তি দে বলেন,‘হাওরের দরিদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের সন্তানরা যাতে শিক্ষা-দীক্ষা থেকে ঝরে না পড়ে সেজন্য সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মিড’ডে মিল এবং মাধ্যমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষার্থীদের জন্য এবার উপবৃত্তি চালু করা জরুরি, প্রধানমন্ত্রী অবশ্যই এটি বিবেচনা করবেন।’
হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের আহ্বায়ক বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু বলেন,‘দেশের প্রায় ২০ ভাগ এলাকা হাওরাঞ্চল, শতাব্দীকালেও হাওরের মানুষের এমন বিপদ দেখা দেয়নি। কৃষি ও মাছ উৎপাদনের খরচ এখানে কম। প্রধানমন্ত্রী বাঁধ দুর্নীতি’র পথ বন্ধ করার ব্যবস্থা করে হাওরের মানুষকে আলাদাভাবে বিবেচনা করে নতুন নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করবেন বলেই বিশ্বাস করি আমরা।’
দিরাই উপজেলার শ্যামারচরের কৃষক নেতা অমর চাঁদ দাস বলেন,‘বৃহৎ পরিমাণ জমির মালিকরা শহরবাসী, অকৃষক, আয়ের উৎস্যও ভিন্ন রয়েছে। মরেছে প্রান্তিক ও মধ্যবিত্ত কৃষক। প্রান্তিক কৃষকরা কাজ পাচ্ছে না, সকলে সরকারের সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচী’র সহায়তাও পাচ্ছে না। মধ্যবিত্ত কৃষকরা দাদন ব্যবসায়ীদের ঋণের বদলে জমি-জমা তুলে দিয়ে দরিদ্র হবে এবার। গরু বিক্রি’র টাকায় আপাতত তাদের সংসার চলছে। এরা এক সময় এলাকা ছেড়ে চলে যাবে, কৃষি উৎপাদন ক্ষতিগ্রস্ত হবে। প্রধানমন্ত্রী নিশ্চয়ই এসব কৃষকদের বাঁচানোর উদ্যোগ নেবেন, প্রয়োজনে এদের রেশনিং ব্যবস্থা চালু করবেন তিনি।’
দিরাই-শাল্লার সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তা বলেন,‘প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত মমতাময়ী, হাওরবাসীর প্রতি গভীর মমতা থেকেই তিনি আসছেন। তিনি হাওরবাসীকে বাঁচাতে নানা উদ্যোগ, নানা প্রকল্প গ্রহণের নির্দেশ দেবেন। কৃষি ঋণ মওকুপের ঘোষণা ইতিমধ্যে দিয়েছেন তিনি, আমাদের দাবি কেবল সুদ নয়, ঋণ মওকুপ করে নতুন ঋণ গ্রহণের সুযোগ দেওয়া, এনজিওগুলোও এবার ঋণ আদায় স্থগিত এবং ক্ষুদ্র কৃষকের ঋণ মওকুপ করবে বলেই প্রত্যাশা করছি আমরা।’
প্রসঙ্গত, প্রধানমন্ত্রী রোববার সকাল ১০ টায় শাল্লা উপজেলা সদরের সাহেদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এসে অবতরণ করে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের হাতে ত্রাণ তুলে দেবেন। সকাল সাড়ে ১০ টায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় গণসংযোগ করবেন। সাড়ে ১২ টায় ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেবেন। সূত্-সুন্মগঞ্জর খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24