শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন ব্রিটেনের নির্বাচনে আফসানার বড় জয়ে জগন্নাথপুরে উৎসবের আমেজ ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই

হাওরের বাঁধ নির্মানে অভিযুক্ত ১১ ঠিকাদারের বক্তব্য নিয়েছে দুদক

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৬ মে, ২০১৭
  • ৬০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক : সুনামগঞ্জের হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্ত ঠিকাদারদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ৯টি বাঁধে যারা একেবারেই কাজ করেননি সেই ৫ ঠিকাদারসহ ১১ ঠিকাদারকে রোববার প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরে সোমবার তাদের কাছ থেকে লিখিত বক্তব্য নেয় দুদক।
দুদকের এক কর্মকর্তা জানান, বাঁধের কাজ একেবারেই যারা করেননি তাদের মধ্যে যারা লিখিত জবাব দিয়েছেন, তারা হলেন_ টাঙ্গাইলের আকুর-টাকুরপাড়ার সুরাইয়া মঞ্জিলের বাসিন্দা মেসার্স গুডম্যান এন্টারপ্রাইজের প্রোপ্রাইটর আফজালুর রহমান, ফরিদপুরের গোয়ালচামট এলাকার এক নম্বর রোডের বাসিন্দা মেসার্স খন্দকার শাহীন আহমেদ, সিলেটের বাগবাড়ী এলাকার ১৯৭ প্রমুক্ত একতার সজীব রঞ্জন দাস ও সিলেটের পল্লবী ১২/১, মদিনা মার্কেটের মাহিন কন্সট্রাকশনের প্রোপ্রাইটর মো. জিল্লুর রহমান। এর বাইরে সুনামগঞ্জের মেসার্স নূর ট্রেডিংয়ের প্রোপ্রাইটর খায়রুল হুদা চপল ও মেসার্স এলএন কন্সট্রাকশনের প্রোপ্রাইটর পার্থসারথী পুরকায়স্থসহ ১১ জনের লিখিত বক্তব্য নিয়েছে দুদক।
ঠিকাদার খন্দকার শাহীন আহমেদ বলেন, ‘আমি সুনামগঞ্জে যাইওনি কাজের বিষয়ে কিছুই জানি না। বিষয়টি সম্পর্কে না জেনেই আমি বিপদে পড়েছি। রাজনৈতিক কারণ এবং সামাজিক নানা সম্পর্কের জন্যে বিভিন্নজনকে লাইসেন্স দিতে হয়। এভাবেই আমি ঢাকার সাগরিকা-৮, সেগুনবাগিচার বাসিন্দা মো. ইকবাল মাহমুদকে ৩০০ টাকার স্ট্যাম্পে চুক্তি করে লাইসেন্স দিয়েছিলাম। সোমবার আমি দুদকে লিখিত বক্তব্য দিয়েছি। লিখিত বক্তব্যে আমি উল্লেখ করেছি, নভেম্বরে দরপত্র গ্রহণ করে ফেব্রুয়ারিতে কার্যাদেশ দিয়ে মার্চ মাসে বাঁধের কাজ শেষ করার কথা বলা হয়েছে। এটি কোনোভাবেই সম্ভব নয়। এ ছাড়া ফিলিং চার্ট দিতে হয়। যৌথ ম্যাজরমেন্ট নিতে হয়, সেটাও করা হয়নি। এভাবে কাজ হয় কীভাবে?’
এদিকে অভিযুক্ত ঠিকাদারদের কেউ কেউ সশরীরে উপস্থিত না হলেও লিখিত বক্তব্য পাঠিয়েছেন।
দুদকের পরিচালক বেলাল হোসেন বলেন, অভিযুক্ত ১১ ঠিকাদারকে রোববার জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। সোমবার তাদের লিখিত বক্তব্য নেওয়া হয়েছে। তদন্তাধীন বিষয়ে এর বেশি কিছু বলা যাবে না। সুত্র- সমকাল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24