রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:১৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

হাওরে ঠিকাদারী প্রথা বাতিলের সুপারিশ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৪ জুলাই, ২০১৭
  • ৫৭ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জসহ ছয়টি জেলায় ব্যাপক ফসলহানি ঘটেছে। পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে এই দুর্যোগ একই সাথে প্রকৃতি ও মনুষ্যসৃষ্ট হতে পারে। কিন্তু সাধারণ বর্গাচাষী থেকে শুরু করে বহু জমির মালিক একবাক্যে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডকে দোষারোপ করেছে। ফসলহানি ঘরে ঘরে সংকট ডেকে এনেছে। সিলেট অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলীর নিয়ন্ত্রিত হাওর অঞ্চলের ৬ টি জেলার মাটির কাজ বাস্তবায়নে নীতিমালা অনুসরণ, নিয়মিত মনিটরিং, সময়মত কাজ শুরু করার বিষয়ে তিনি ব্যর্থ হয়েছেন। অথচ এই একটি অংশের কাজের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের মত একটি বৃহৎ প্রতিষ্ঠনের সুনামের মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে, একই সাথে সরকারকে বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাঠ পর্যায়ের স্থানীয় কর্মকর্তাবৃন্দ ও প্রকল্প পরিচালক এর দায় এড়িয়ে যেতে পারেন না। পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের যে তিনজন প্রকৌশলীকে বরখাস্ত করা হয়েছে তা সময়োচিত পদক্ষেপ বলে ভূক্তভোগীরা আমলে নিয়েছেন। একই সাথে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারগণও এই ধীরগতি বা গাফিলতি বা কাজ না করার জন্য দায়ী। তদন্ত প্রতিবেদনে স্থানীয় জনগণের উধৃতি দিয়ে ঠিকাদারী প্রথা বাতিলের উল্লেখ করে পিআইসি গঠনের নীতিমালা পরীক্ষা করা প্রয়োজন এবং স্থানীয়দের দাবী অনুযায়ী ‘জমি যার বাঁধ তার’ বিশেষ ভাবে প্রাণিধানযোগ্য। জেলার জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ইউসুফ আল আজাদ এ প্রসঙ্গে বলেন,‘হাওরে গত কয়েক বছরে বাঁধ নির্মাণে যেভাবে গাফিলতি আমরা দেখেছি, তাতে মনে হয়েছে ঠিকাদারী প্রথায় বাঁধ রক্ষা হবে না। ঠিকাদারদের ক্ষমতা পাউবো’র চেয়ে বেশি। ঠিকাদারদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না পাউবো। এই অবস্থায় ঠিকাদারী প্রথা বাতিল এবং ‘জমি যার বাঁধ তার’ এটিই
কার্যকর করতে হবে। অর্থাৎ হাওরে যাদের জমি আছে তাদেরকেই বাঁধ নির্মাণের কাজে যুক্ত করতে হবে।’
তদন্ত রিপোর্টে উল্লেখ রয়েছে তদন্তকারী দলকে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার গৃহবধূ শিবাহী সাহা বলেছেন,‘হাওরের একজন বউ আমি, আমার স্বামী কৃষক। আমাদের একটি মেয়ে আছে। আমার মতো আগাম বন্যায় হাজার হাজার কৃষক যখন বন্যায় ভাসে, তখন চোখের জল মানে না। সময়মতো বাঁধের কাজটি যদি পানি উন্নয়ন বোর্ড করত, তাহলে তাদের দোষারোপ কেউ করত না।’
সুষ্ঠুভাবে ও সময়মত ডিজাইন অনুসারে কাবিটা ও ঠিকাদারী কাজ সম্পন্ন হয়নি। কোন কোন ক্ষেত্রে কাজই শুরু হয়নি। তাই কেবল আগাম বন্যা ও বিপদ সীমার উপর পানি প্রবাহের কথা উল্লেখ করে পুরো বিষয়টাকে আড়ালে নেয়া যায় না। পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাঠ পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ, স্থানীয় কৃষকদের কোন আস্থাই অর্জন করতে পারেননি। স্থানীয়দের অভিমত, শয়তানখাীর ক্লোজার না করায় ২৩ ফেব্রুয়ারি ধর্মপাশার চন্দ্রসোনার থাল হাওরে পানি প্রবেশ করে।
তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে পিআইসি গঠনের নীতিমালা পরীক্ষা করা প্রয়োজন এবং স্থানীয়দের দাবী অনুযায়ী ‘জমি যার বাঁধ তার’ বিশেষ ভাবে প্রাণিধানযোগ্য।
ঠিকাদারী কার্যক্রম সবচেয়ে বেশি প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছে। যথাসময়ে টেন্ডারে কার্যাদেশ দিতে না পারা ও বাস্তবে ঠিকাদারদের উপর কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণের শিথিলতা এবং ঠিকাদারদের অবহেলা কৃষকদের যেমন সর্বনাশ করেছে, তেমনি পানি উন্নয়ন বোর্ডের সুনামকে ব্যাপকভাবে ক্ষুন্ন করেছে। ঠিকাদারী প্রক্রিয়াকে নিবিড়ভাবে পর্যালোচনা করা প্রয়োজন। হাওর এলাকার কাজে সময়ের সম্পর্ক অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। স্থানীয় জনগণ ঠিকাদারী প্রথা পুরো বাতিল চেয়েছেন। উপজেলা পরিষদের মাধ্যমে এবং জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে কাজ সম্পাদন করার দাবিও উঠেছে।
হাওর এলাকার নদীসমূহ খননের কোন বিকল্প নেই। একই কারণে হাওরের তলদেশ ভরাট হবার কারণে তাও খনন করা প্রয়োজন। এই খনন বিচ্ছিন্নভাবে করলে কোন ফল হবে না। উজান থেকে সংশ্লিষ্ট নদীসমূহ খনন করলেই কেবল ইতিবাচক ফল আসবে।
বোর ফসল পরিপক্ক হতে দীর্ঘ সময় নেয়। তাতে আগাম বন্যা বা ঢলে ক্ষতিগ্রস্ত হবার সম্ভাবনা সব সময়ই থাকে। সেজন্য টেকসই বীজের উদ্ভাবন প্রয়োজন।
এটি প্রণিধানযোগ্য যে, কৃষকদের স্থানীয় জাতের বা ট্রাডিশনাল জাতের বোর ফসলে উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টায় কোন লাভ নেই। কারণ এতে যে ফসল হবে তাতে খরচ উঠবে না। বিকল্প ফসলের ব্যবহারের জন্য সুনির্দিষ্ট স্টাডি অপরিহার্য।
সুনামগঞ্জসহ ৬টি জেলার হাওর অধ্যুষিত অঞ্চল বর্তমানে তিনটি প্রশাসনিক বিভাগের (সিলেট, ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগ) অন্তর্ভুক্ত। একটি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় একজন প্রকল্প পরিচালকের অধীনে যে কার্যক্রম পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়েছে তা সঠিক হয়নি বলে প্রমাণিত হয়েছে। বাস্তব অবস্থার প্রেক্ষিতে ছোট ছোট প্রকল্প নিলে সুফল বেশি পাওয়া যাবে। হাওর অঞ্চলকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে বন্যা প্রতিরোধ সহ উন্নয়ন কার্যক্রম গ্রহণ করা অপরিহার্য। এক্ষেত্রে পার্বত্যজেলা সমূহে যেমন পার্বত্য উন্নয়ন বোর্ড আছে, তেমন কার্যক্রম হাওর এলাকায়ও জরুরী। হাওর ও জলাভূমি অধিদপ্তরের কার্যপরিধির মধ্যে এই ধরণের উন্নয়ন কার্যক্রম অন্তর্ভূক্ত নয়।
হাওর এলাকার বাঁধ নির্মাণ, সংস্কার, মেরামত ইত্যাদি কার্যক্রম যে পিআইসি বা ঠিকাদারদের মাধ্যমে করা হয় তা মুনাফা অর্জনের লক্ষ্যে আবর্তিত। কিন্তু যেখানে ফসল রক্ষা মূল উদ্দেশ্য এবং যার মাধ্যমে দেশের শস্যভান্ডার সমৃদ্ধ হয়, সেখানে ঠিকাদার বা পিআইসি’র লাভ জনক কার্যক্রমের বাইরে এসে সেবামূলক কাজের মাধ্যমে এটি সম্পাদনের বিষয়টি বিবেচনাযোগ্য। উপজেলা পরিষদকে বিশেষভাবে দায়িত্ব নেয়ার বিষয়টিও আলোচনায় এসেছে।
হাওর এলাকায় একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে যে কার্যক্রম চলে, সেজন্য মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের শক্তিশালী মনিটরিং প্রয়োজন। সুনামগঞ্জসহ ছয়টি জেলায় এই মনিটরিং অত্যন্ত দুর্বল। প্রকল্প পরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এই দায়িত্ব এড়াতে পারেন না। পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাজের সিংহভাগ বাস্তবায়নে জড়িত নির্বাহী প্রকৌশলী, উপ সহকারী প্রকৌশলী বা এসও গণ। কিন্তু এই বিস্তীর্ণ অঞ্চলে কাজের গুণগতমান ও কার্যক্রমের মনিটরিং ছিল না বললেই চলে। মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রমের ধীর গতিরোধ করা বা যথাযথ গুরুত্ব দিয়ে তা সম্পাদনের দায়িত্ব নির্বাহী প্রকৌশলী, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী কিংবা প্রধান প্রকৌশলী বা প্রকল্প পরিচালক কেউ করেননি। তদুপরি এ প্রকল্প অফিসটি ঢাকাস্থ মতিঝিলে অবস্থিত। হাওর অঞ্চলের বিশেষ ধরনের কাজের জন্য যে কমিটমেন্ট দরকার, তা মাঠ পর্যায়ে বরাবরই অনুপস্থিত ছিল। বিশেষ করে ক্যারিডওভার কাজ হাওর এলাকার জন্য মোটেই গ্রহণযোগ্য নয়। এটি কোন বিধি সম্মত পদক্ষেপও নয়। এ বিষয়ে প্রকল্প পরিচালক দায়িত্ব এড়াতে পারেন না।
যে নকশা অনুসারে হাওরে কার্যক্রম চলছে, তা বাস্তব অবস্থার নিরিখে আরো পরীক্ষা নিরীক্ষা করা প্রয়োজন। তাছাড়া নকশা অনুযায়ীও কাজ হচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখা দরকার। বিভিন্ন হাওরের জন্য নকশার বিভিন্নতা থাকার বিষয়টি বিবেচ্য।
নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রকল্পের দরপত্র আহবান, কার্যাদেশ প্রদান এবং গুণগতমান বজায় রেখে প্রকল্পের কাজ সম্পন্নকরণ ওতোপ্রতোভাবে জড়িত। কিন্তু এক্ষেত্রে কার্যাদেশোত্তর মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের কাজ বাস্তবায়নে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ না করা, এমনকি ১৪২ টি (সুনামগঞ্জ ৮৪ টি, সিলেট ১২টি, হবিগঞ্জ ২টি, মৌলভীবাজার ৪টি, নেত্রকোনা ৩৫টি, কিশোরগঞ্জ ৫টি) ক্যারিডওভার প্যাকেজের কাজ এ বছরেও শতভাগ সম্পন্ন না হওয়া সত্ত্বেও দরপত্রের শর্ত মোতাবেক ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ না করা মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের গাফিলতির সাক্ষ্য বহন করে। এছাড়া সুনামগঞ্জ জেলার ৬ টি হাওরের ৯ টি প্যাকেজের কাজ নির্ধারিত সময়ে শুরু না করার পরেও কার্যাদেশ বাতিল না করা মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের দায়িত্বহীনতার পরিচয় বহন করে।
২০১৬-১৭ অর্থ বছরে ‘হাওর এলাকায় আগাম বন্যা প্রতিরোধ ও নিষ্কাশন উন্নয়ন’ প্রকল্পের অনুকূলে মূল এডিপিতে ৮০ কোটি টাকা বরাদ্দ ছিল। এরমধ্যে দুই কিস্তিতে ৪০ কোটি টাকা ছাড় করা হয়। পরবর্তী সময়ে আরএডিপিতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করে ১০০ কোটি টাকা করা হয়। আগাম বন্যার প্রেক্ষিতে কাজ সমাপ্ত করা যাবে না বিধায় বাপাউবো’র এবং মন্ত্রণালয়ের পুন:উপযোজন প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে পরিকল্পনা কমিশনের কার্যক্রম বিভাগ আরডিপির বরাদ্দ ১০০ কোটি টাকা থেকে হ্রাস করে ৪০ কোটি টাকা নির্ধারণ করে ছাড়কৃত ৪০ কোটি টাকা থেকে গত মার্চ পর্যন্ত ব্যয়িত অর্থের পরিমাণ ২২ কোটি ৪২ লক্ষ ৪৩ হাজার টাকা। এরমধ্যে সুনামগঞ্জে ব্যয় হয় ৯ কোটি ৩৭ লক্ষ ৯৩ হাজার টাকা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24