মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:১২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
দুই ট্রেনের মুখামুখি সংঘর্ষে নিহত ১৬ রাধারমন দত্ত এ দেশের লোক সংস্কৃতির ভান্ডার কে সমৃদ্ধ করেছেন: জেলা প্রশাসক ‘আওয়ামী লীগে দুঃসময়ের কর্মী চাই, বসন্তের কোকিল না’ জগন্নাথপুরে মূল্য তালিকা না থাকায় ভ্রাম‌্যমান আদাতের অভিযানে জরিমানা আদায় ঈদে মীলাদুন্নবী (সা:) উপলক্ষে জগন্নাথপুরে র‌্যালি ও আলোচনাসভা জগন্নাথপুরে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত সুনামগঞ্জে নৌকাডুবিতে প্রহরীর মৃত্যু দেখে নিন যে স্থানে জন্মগ্রহণ করেছিলেন মহানবী (সা.) বাবরি মসজিদ ধ্বংসকারী সেই বলবীর সিং এখন মুসলিম! রাধারমণের মৃত্যুবার্ষিকীতে ‘ক্লোজআপ ওয়ান’র সেরা প্রতিযোগি সালমা জগন্নাথপুর আসছেন সোমবার

হাওর এলাকায় ত্রাণ মন্ত্রনালয়ের কর্মচারিদের ছুটি বাতিল

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৭২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
বন্যায় আক্রান্ত হাওর অঞ্চলের ৬ জেলায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়াধীন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সব ধরনের ছুটি বাতিল করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া।

বুধবার সচিবালয়ে হাওরের বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে এক সভা শেষে মন্ত্রী সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। এ সময় দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘আজই (বুধবার) তাদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। সেখানে সার্বক্ষণিক থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বন্যার্ত মানুষর পাশে থেকে তারা সব ধরনের সহায়তা করবেন।’

তিনি জানান, আগামী ফসল না ওঠা পর্যন্ত হাওরাঞ্চলে ৩ লাখ ৩০ হাজার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে মাসে বিনামূল্যে ৩০ কেজি চাল ও ৫শ’ টাকা করে দেওয়া হবে। সাধারণ মানুষের জন্য খোলা বাজারে (ওএমএস) ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি কার্যক্রমও চলবে।

মায়া বলেন, ‘একটি মানুষও যেন অভুক্ত না থাকে, সেজন্য সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের সমস্যা সম্পর্কে সরকার সজাগ রয়েছে। কৃষকের এই সমস্যা কয়েক মাসের মধ্যে কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে না। পরবর্তী ফসল না ওঠা পর্যন্ত তাদেরকে খাদ্যসহ সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হবে। এজন্য সরকারের কাছে পর্যাপ্ত খাবার মজুদ রয়েছে। বন্যার্ত এলাকার মানুষ না খেয়ে থাকবে না।’

বন্যায় আক্রান্ত হাওরাঞ্চলে ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে পাওনা ঋণ আদায়ে বিভিন্ন এনজিও তাদের চাপ দিচ্ছে— জানিয়ে এ বিষয়ে জানতে চাইলে ত্রাণমন্ত্রী বলেন, ‘এনজিওরা অনেক জায়গায় চড়া সুদে ঋণ দিয়েছে। তারা বারবার তাদেরকে এই সুদের জন্য চাপ দিচ্ছে। এখন তারা কষ্টে আছেন— তাদের ওপর মরার ওপর খাড়ার ঘা।’

ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ ও আগামী এক বছর সুদ নিয়ে কৃষকদের ওপর যেন চাপ সৃষ্টি করা না হয় সেজন্য এনজিওদের প্রতি আহ্বান জানান মন্ত্রী।

তিনি জানান, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ সরকারের কাছে বেশ কিছু দাবি জানিয়েছেন। এর মধ্যে হাওর অঞ্চলের মানুষের কৃষি পুনর্বাসন, বিদ্যুৎ বিল এক বছরের জন্য মওকুফ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শতভাগ শিক্ষার্থীর উপবৃত্তির ব্যবস্থা, শিক্ষার্থীদের বেতন মওকুফ করা, বিল-হাওর ইজারা মুক্ত করা। এছাড়াও বিভিন্ন বিভাগ ও দফতরে খালি পদে নিয়োগ, স্বল্প-মধ্য-দীর্ঘমেয়াদি পুনর্বাসনের ব্যবস্থা, সময় মত ফসল রক্ষা বাঁধ মেরামতের ব্যবস্থা করা ইত্যাদি।

ত্রাণমন্ত্রী বলেন, এসব দাবি বাস্তবায়নে সরকার ইতিমধ্যে কাজ শুরু করেছে। যেসব অন্য মন্ত্রণালয়াধীন সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করা হবে। যেমন, বিদ্যুতের বিল মওকুফের ব্যাপারে বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়, শিক্ষার্থীদের বেতন মওকুফের বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ জানানো হবে।

উল্লেখ্য, উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও অতি বৃষ্টিতে গত ২৯ মার্চ সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ ও সিলেটের হাওর অঞ্চল বন্যায় প্লাবিত হয়। সরকারি হিসেবে বন্যায় প্রায় ২ লাখ হেক্টর জমির বোরো ধান সম্পূর্ণ পানিতে তলিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। হাওরের বন্যায় পানি দূষণে ৪১ কোটি টাকার ১ হাজার ২৭৬ টন মাছ মারা গেছে। ৩ হাজার ৮৪৪টি হাঁস মারা গেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24